শনিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

কীটনাশকের ব্যবহার কমাতে জমিতে ‘আলোক ফাঁদ’

দিনাজপুর প্রতিনিধি : কীটনাশকমুক্ত চাষাবাদে আর্থিক সাশ্রয়ের পাশাপাশি ভাল ফসল পেতে জমিতে আলোক ফাঁদ বসানো হয়েছে। দিনাজপুরের বীরগঞ্জের ৩৪টি কৃষি ব্লকে ধারাবাহিকভাবে কৃষি বিভাগের পরামর্শে এ আলোক ফাঁদ বসানো হচ্ছে। কৃষকদের রোপনকৃত আমন ক্ষেতে পোকা ও রোগ-বালাই আক্রমণ করতে না পারে সেজন্য কৃষি বিভাগ এ কাজ শুরু করেছে।

ধানক্ষেতে আলোক ফাঁদ স্থাপন করে পোকা দমনের পাশাপাশি পোকা আক্রমণ হলে কি ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে সে ব্যাপারে প্রচার-প্রচারণা শুরু করেছে ওই বিভাগের কর্মকর্তারা। চাষাবাদে আর্থিক সাশ্রয়ের পাশাপাশি ভাল ফসল হওয়ায় কৃষককে লাভবান করবে এ ‘আলোক ফাঁদ’। তাই এ ‘আলোক ফাঁদ’ পদ্ধতি কৃষকের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। আমন ধানসহ ফসল চাষে স্বল্প খরচে পরিবেশ বান্ধব ‘আলোক ফাঁদ’ ব্যবহারে ব্যাপক সফলতা এনে দিবে কৃষকদের।

কৃষকেরা ‘আলোক ফাঁদ’ পদ্ধতিতে ফসলের পোকা দমনের কারণে কমবে কীটনাশক ব্যবহার। আর এর ফলে চাষাবাদ করে লাভবান হবেন কৃষক। সহজ লভ্য এই পদ্ধতি ব্যবহার করে খুব সহজেই পোকামাকড়গুলো নিধন করা যায়। এতে করে খরচ অনেকটাই কমে যাবে বলে জানান কৃষকেরা।

গত সোমবার সন্ধ্যার দিকে বীরগঞ্জের কয়েকটি এলাকায় জমিক্ষেতে আলোক ফাঁদ বসানো হয়। এসময় কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মনোরঞ্জন অধিকারী, বীরগঞ্জ উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা শাহজাহান আলী উপস্থিত ছিলেন।

কৃষি বিভাগ জানায়, আমন ধানের ক্ষেতের আইলে কোথাও পানি ভর্তি পাত্রে, কোথাও কাগজের উপর আলো জ্বালিয়ে ধানে আক্রমণাত্মক বিভিন্ন পোকা ধরছেন। কৃষকরা নিজে জমিতে এই পোকাগুলোর উপস্থিতি দেখে ক্ষেতে পোকার আক্রমণের আগেই কোনো ওষুধ প্রয়োগ করতে হবে, তা সহজেই নিরূপন করতে পারছেন। এই আলোক ফাঁদ ব্যবহার করে এলাকার অনেক কৃষক খুব কম খরচে কীটনাশক ব্যবহার করতে পারবেন। এতে কৃষকদের খরচ অনেকটা কমে আসছে এবং ধানের উৎপাদনের পরিমাণও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

বীরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান জানান, কোনো ক্রমেই যেন পোকা কিংবা রোগ-বালাই আক্রমণ করতে না পারে এবং কৃষকরা হাসিমুখে উৎপাদিত ফসল ঘরে তুলতে পারে সেজন্য বিভিন্ন স্থানে আলোক ফাঁদের সাহায্যে পোকার উপস্থিতি সনাক্ত করে পরবর্তী করণীয় সম্পর্কে কৃষকদের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

উল্লেখ্য, দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলায় এবার ২৯ হাজার ২৯০ হেক্টর জমিতে আমন চাষ করা হয়েছে।