বৃহস্পতিবার ১৫ নভেম্বর ২০১৮ ১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

কুড়িগ্রাম-০৪ আসনে নির্বাচনী হালচাল

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে কুড়িগ্রাম-৪ আসনে মাঠপর্যায়ে চলছে নেতাকর্মীদের গণসংযোগ।কে কোন দলের সমর্থন নিয়ে নির্বাচনে লড়বেন সেটি নিয়ে চলছে ব্যাপক আলোচনা। এলাকার চায়ের দোকান, হাটবাজার, রেল স্টেশন, বাস স্টেশন, নৌ-বন্দরসহ গ্রামাঞ্চলের বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে চলছে চুলছেড়া বিশ্লেষণ। চিলমারী, রৌমারী ও রাজিবপুর নিয়ে গঠিত ২৮ কুড়িগ্রাম-৪ আসন। এ আসনে মোট ভোটার ২ লাখ ৮৯ হাজার ২ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছে ১ লাখ ৪১ হাজার ৭১৭ জন এবং নারী ভোটার রয়েছে ১ লাখ ৪৭ হাজার ২৮৫ জন।
১৯৯১ ও ১৯৯৬ সালে এ আসনে নির্বাচিত হন জাতীয় পার্টির প্রার্থী গোলাম হোসেন। পরের নির্বাচনেও জয় পায় দলটি। সেবার জামায়াতের প্রার্থীকে হারান গোলাম হাবিব। ২০০৮ সালের নির্বাচনে জাতীয় পার্টির গোলাম হাবিবকে হারিয়ে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী জাকির হোসেন নির্বাচিত হন। ২০১৪ সালে আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর জাতীয় পার্টি (জেপি) দখলে যাওয়ায় আগামী নির্বাচনে এ আসনটি পুনরুদ্ধারে মরিয়া হয়ে উঠেছে জাপা।
আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে চুলছেরা বিশ্লেষণে ব্যস্ত রাজনৈতিক দলগুলো। সম্ভাব্য প্রার্থীরা কৌশলে প্রচারণার পাশাপাশি দলের সমর্থন আদায়ে বিভিন্নভাবে যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছেন। ভোটারদের অভিমত, যোগ্য প্রার্থীকে দেখতে চায় তারা।
জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচন প্রত্যাশী রয়েছেন, সদ্য জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়ে পার্টির চেয়ারম্যানের কূটনৈতিক উপদেষ্টা সাবেক সচিব ও রাষ্ট্রদূত আশরাফ-উদ দৌলা তাজ, রাজিবপুর জাতীয় পার্টির সাবেক সভাপতি অধ্যক্ষ মো. ইউনুছ আলী। অপরদিকে এবং চিলমারীর বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জোবাইদুল ইসলাম বাদল গণসংযোগ অব্যাহত রেখেছেন। জাতীয় পার্টির মনোনয়ন প্রত্যাশিদের মধ্যে থেকে আশরাফ-উদ দৌলা তাজ কে লাঙ্গল প্রতীকে মাঠে দেখা যেতে পারে। সম্প্রতি হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদের চিলমারী সফরে তার বক্তব্যে থেকে ফুটে উঠেছে।
জানাগেছে, গত নির্বাচনে কুড়িগ্রাম-৩ আসন থেকে গোলাম হাবিবকে মনোনয়ন দিয়ে শেষ মুহুর্তে তা প্রত্যাহার করে নেয়ায় অনেকটা ক্ষোভে দল ত্যাগ করেন সাবেক এ সংসদ সদস্য।
জাতীয় পার্টির নেতা আশরাফ-উদ দৌলা তাজ রাজনৈতিক ভাবে দূরদর্শিতার পরিচয় দেওয়ায় তিনি গণসংযোগের মাধ্যমে জাতীয় পার্টির পক্ষে জনমত গড়ে তুলতে সক্ষম হয়েছেন। গত ১৯ আগষ্ট সাবেক রাষ্ট্রদূত আশরাফ-উদ দৌলা তাজ’র চিলমারী বাসভবনে মধ্যাহ্নভোজে আসেন পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ। এসময় সংক্ষিপ্ত আলোচনায় হুসাইন মুহাম্মদ এরাশাদ তাজ’কে গণসংযোগ অব্যাহত রাখার পরামর্শ প্রদান করেন। আশরাফ উদ দৌলা তাজের মাধ্যমে হারানো আসনটি ফিরে পাওয়ার সম্ভাবনা দেখছেন এরশাদ।
এদিকে এ আসনে আওয়ামী লীগের একাধিক মনোনয়ন প্রত্যাশী মাঠে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সু-সংগঠিত করার চেষ্টার পাশাপাশি তাদের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা। এ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচন প্রত্যাশী রয়েছেন, চিলমারী উপজেলা আ.লীগ সভাপতি ও চিলমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শওকত আলী সরকার বীর বিক্রম, রৌমারী উপজেলা আ.লীগ সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য মোঃ জাকির হোসেন, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবি শেখ জাহাঙ্গীর আলম, রৌমারী উপজেলা আ.লীগ সাধারণ সম্পাদক মো. রেজাউল ইসলাম মিনু, রৌমারী মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ও সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের, চরশৌলমারী ইউপি চেয়ারম্যান কে এম ফজলুল হক, চিলমারী উপজেলা আ.লীগ সাংগঠকি সম্পাদক রহিমুজ্জামান সুমন, রৌমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মজিবুর রহমান বঙ্গবাসী, রাজিবপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শফিউল আলম ও অধ্যক্ষ ফজলুল হক মনি।
এ বিষয়ে চিলমারী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও আ.লীগ সভাপতি শওকত আলী সরকার বীর বিক্রম বলেন, চিলমারী উপজেলা আ.লীগ সুসংগঠিত। চিলমারী, রৌমারী ও রাজিবপুর উপজেলার তৃণমূল পর্যায়ের নেতা-কর্মীরাও আমাকে নৌকা প্রতীকে নির্বাচনী মাঠে দেখতে চায়। আমাকে মনোনয়ন দেয়া হলে ইনশা আল্লাহ নৌকা মার্কা বিপুল ভোটে জয়ী হবো। রৌমারী উপজেলা আ.লীগ সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য মো. জাকির হোসেন বলেন, রৌমারী রাজিবপুর ও চিলমারীতে আমার ব্যাপক জনসমর্থন বেড়েছে। এ তিন উপজেলার মানুষ আমাকে আবারও নৌকা প্রতীকে দেখতে চায়। তিনি আরো জানান, মনোনয়ন পেলে প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীদের চেয়ে ব্যাপক ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হব। শেখ জাহাঙ্গীর আলম জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে মাঠে কাজ করার পরামর্শ দিয়েছেন। ইতোমধ্যেই তৃণমূল পর্যায়ে ব্যপক গণসংযোগ করে অনেকাংশে মাঠ তৈরি করতে পেরেছি। এলাকার তরুণ ভোটাররাই আমার সমর্থক বেশি। নৌকা প্রতীক দেয়া হলে আমি বিজয় অর্জনে সক্ষম হবো।
এদিকে এ আসনটি জামায়াতের ভোট ব্যাংক দাবি দলটির স্থানীয় নেতা-কর্মীদের। বিগত নির্বাচনে জোটগত ভাবে তাই এ আসনে বিএনপি জামায়াতকে সমর্থন দেয়। বিগত সময়ে দলটির প্রার্থী জয়ী হতে না পাড়লেও এবারের নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা দেখছেন নেতাকর্মীরা।
এ আসনে জামায়াতের মোস্তাফিজার রহমান মোস্তাক’কে ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচনী মাঠে দেখা যেতে পারে। এ ছাড়া বিএনপি থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী রয়েছেন, চিলমারী উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি আব্দুল বারি সরকার, নয়ার হাট ইউপি চেয়ারম্যান ও চিলমারী বিএনপি’র সিনিয়র সহ-সভাপতি অধ্যাপক আবু হানিফা, রৌমারী বিএনপি’র সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান, রাজিবপুর বিএনপি’র সভাপতি অধ্যাপক মোখলেছুর রহমান।
রাজিবপুর উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি অধ্যাপক মোখলেছুর রহমান জানান, বিগত নির্বাচনে জোটগত ভাবে জামায়াতকে মনোনয়ন দেয়া হলেও ভাল ফল আসেনি। এবারের নির্বাচনে তৃণমূল বিএনপি’র নেতাকর্মীদের দাবি যেন বিএনপি থেকে বিশ দলীয় জোটের প্রার্থী করা হয়। এবারে নির্বাচনে তিনি বিএনপি থেকে মনোনয়ন চাইবেন।
জামায়াতের মোস্তাফিজার রহমান মোস্তাকও বিশ দলীয় জোটের মনোনয়ন চাইবেন। তাকে মনোনয়ন দেয়া হলে জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন তিনি।
অপরদিকে এ আসনে ভোটের মাঠের ট্রাম্পকার্ড সাবেক প্রধান বন সংরক্ষক ও সাবেক সংসদ সদস্য গোলাম হাবিব। গত ২০১৪ নির্বাচনে কুড়িগ্রাম-৩ আসন থেকে তাকে মনোনয়ন দিয়ে শেষ মহুর্তে তা প্রত্যাহার করে নেয়ায় অনেকটা ক্ষোভে দল ত্যাগ করে নিজেই সততা দল নামে পার্টি গড়েন সাবেক এ সংসদ সদস্য। তবে নির্বাচন কমিশন কর্তৃক তা নিবন্ধিত না হওয়ায় নির্বাচনী মাঠে স্বতন্ত্র হিসেবে বর্তমান থাকলেও প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর কাছে তিনি প্রাধান্য।
এ বিষযে সাবেক প্রধান বন সংরক্ষক ও সাবেক সংসদ সদস্য গোলাম হাবিব দুলাল বলেন, আমি আমার নির্বাচনী এলাকার জনগণের পাশে সব সময় ছিলাম, থাকবো। আমি সব সময় চিলমারী, রৌমারী ও রাজিবপুরের উন্নয়নে কাজ করার চেষ্টা করেছি। এ তিন উপজেলার মানুষের ভালোবাসাও পেয়েছি। আগামী নির্বাচনে আমাকে আবারও সংসদ সদস্য হিসেবে দেখতে চায় এখানকার জনগণ।