শুক্রবার ৭ অগাস্ট ২০২০ ২৩শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কেজরিওয়ালকে গ্রেফতারের খবরে ভারতের বিভিন্নস্থানে সংঘর্ষ

aap-bjp-clash ইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক: আম আদমি পাটির্র (আপ) নেতা অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে গুজরাট সফরকালে গ্রেফতার করা হয়েছে- গতকাল এই খবর ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে আপের সমর্থকরা দিল্লী, লাক্ষেৌ ও মুম্বাইসহ বিভিন্ন স্থানে সমর্থকরা বিজেপি অফিসে হামলা চালায়। উল্লেখ্য, গতকাল গুজরাটের রাধানগর থানা পুলিশ কেজরিওয়ালকে আধা ঘণ্টা থানায় আটকে রেখে ছেড়ে দেয়। বিজেপির সদর দফতরে হামলা ও দফতরের সামনে সংঘর্ষে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ ১৪ জন আপ সমর্থককে গ্রেফতার করেছে। কালকের ঘটনার জন্য দিল্লীর পার্লামেন্ট স্ট্রিটের পুলিশ স্টেশনে দাঙ্গা, সাধারণ মানুষের সম্পত্তি ধ্বংস ও পুলিশকে বাঁধা দেয়ার অভিযোগে আপ এবং বিজেপির মোট ৩৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। বিজেপি সমর্থকদের সঙ্গে পার্টি সদস্য দের ভয়াবহ সংঘষের্র পর এই ঘটনার জন্য সমর্থকদের হয়ে ক্ষমা চেয়েছেন আপ প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়াল। সমর্থকদের কাছে শামিত্ম বজায় রাখার জন্যেও তিনি আবেদন জানিয়েছেন। গতকাল অরবিন্দ কেজরিওয়ালের গুজরাট সফরের প্রথম দিনকে ঘিরে উত্তেজনা ছড়ায় রাজধানী আর লক্ষে্ণেৌতে। নরেন্দ্র মোদির রাজ্যে আপ সুপ্রিমোকে আটক করার কথা ছড়িয়ে পড়তেই আপ সমর্থকরা দিল্লী আর লক্ষ্ণৌতে বিজেপি দফতরে হামলা চালায়। পাল্টা হামলা চালায় বিজেপিও। দুই দলের সংঘর্ষে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় এই দুই শহরের বিজেপি সদর দফতর এলাকা। নরেন্দ্র মোদির উন্নয়নের হালহকিকত সরজমিনে দেখতে গুজরাট গিয়েছিলেন আপ প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়াল। সভা করার কথাও ছিল। কিন্তু সভাস্থলে যাওয়ার পথে তাকে বাঁধা দেয় রাধানগর থানার পুলিশ। আধ ঘণ্টা তাকে থানায় আটকে রাখার পর ছেড়ে দেয় পুলিশ। কেজরিওয়ালকে আটক করার খবর পৌঁছতেই দিলীলতে আপ নেতা-কর্মীরা নেমে পড়েন রাসত্মায়। বিজেপি দফতরের সামনে তারা বিক্ষোভ শুরু করেন। বিজেপি কর্মী সমর্থকদের সঙ্গে তাদের হাতাহাতি শুরু হয়। দুই পক্ষের সংঘর্ষে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় বিজেপি দফতরের সামনের এলাকা। হাতাহাতিতে দু’পক্ষের পাঁচজন আহত হন। পরিস্থিতি সামাল দিতে জলকামান ছুড়তে হয় পুলিশকে।

পুলিশ অবশ্য কেজরিওয়ালকে আটক করার খবর স্বীকার করেনি। পুলিশের দাবি বুধবার ভোট সিডিউল ঘোষণা হয়েছে। তিনি যাতে আদর্শ আচরণবিধি মেনে চলেন তা নিয়ে অবহিত করতেই আপ প্রধানকে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। আপ শিবিরের অবশ্য দাবি- যে কোনোভাবে তার কর্মসূচি বানচাল করাই ছিল মোদি সরকারের উদ্দেশ্য।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email