মঙ্গলবার ১১ ডিসেম্বর ২০১৮ ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

কেমন আছে হাকিমের পরিবার

খুব বেশিদিন আগের কথা নয়। সেদিনে ছিল একটু ভ্যাঁপসা গরম। সন্ধার একটু পরে বীরগঞ্জ হাই স্কুলের মাঠে খোলা মাঠে মুক্ত আকাশের নীচে কথা হচ্ছিল ছোট ভাই হাকিমের সাথে। মনে একটু সাহস জোগানোর জন্যে হটাত করেই বলে বসলাম “চল হাকিম গান করি”।কিংকর্তব্যবিমুর লাজুক হাকিম কি করবে বুঝে উঠতে পারছিল না। আনেকটা আমার পিড়াপিড়িতেই বেসুর গলায় গেয়ে উঠলাম,
“আমরা করব জয় , আমরা করব জয় ,
আমরা করব জয় নিশ্চয় |
আহা বুকের গভীর, আছে প্রত্যয়
আমরা করব জয় নিশ্চয় |”

এর ৭/৮ বছর পেরিয়ে ১১ এপ্রিল ২০১৭। খুব অল্প নোটিসেই হাকিম জয়ের মেডেল বুঝে না নিয়েই সবাইকে কাঁদিয়ে আমাদের ছেড়ে চলে গেছে না ফেরার দেশে। আমার পোস্ট যারা পরেন তারা হয়ত মনে করতে পারেন হাকিমের সেই চলে যাওয়ার কথা।জীবন সংগ্রামের লড়াকু বীর হাকিম জয়ের আনন্দ নিয়ে যেতে পারেনি বরং আমানত হিসাবে রেখে গেছে তার স্বপ্নিল জগতের রাজপুত্র, তার বুকের মানিক তিন সন্তান। বিরাট এক দায়িত্ত দিয়ে গেছে সমাজকে। হ্যাঁ সমাজকে বিশেষ করে বীরগঞ্জকে তার কথা ভাবতে হবে কারন হাকিম সমাজকে নিয়ে ভাবত, বীরগঞ্জের দুঃস্থ ছেলে মেয়েদের কথা ভাবত।

হাকিমের তিন ছেলে। মধ্যমটি দুর্ভাগ্য জনক ভাবে ভারসাম্যহীন (Physically Challenged)। কি করছে হাকিমের স্ত্রী এই তিন সন্তানদের নিয়ে। কি এমনি বা বয়স হয়েছে তার স্ত্রীর। যে বয়েসে তার স্বামী সন্তানদের নিয়ে আনন্দে বাস করার কথা, যে বয়েসে তার স্বামী সন্তানদের নিয়ে বছর শেষে একটু সমুদ্রের পারে কিংবা বিশাল পর্বতের পাদদেশে বসে স্বপ্নের ডানা মেলে ঘুরে বেড়ানোর কথা। তা না হয়ে বিধাতা তার কপালে একে দিলেন চরম এক পরীক্ষা। হাকিমের রেখে যাওয়া আমানত সুরক্ষার পরীক্ষা।

বীর যোদ্ধা হাকিমের স্ত্রী কেমনি বা হারমানা ভঙ্গুর রমনী হতে পারে। বিপদের সময় কেমন করে কঠিন হতে হয় সে শিক্ষাত সে হাকিমের জীবন থেকেই জেনেছে।ঢাকা থেকে ফিরে গহীন পল্লীতে গিয়ে বাবা মা কিংবা আত্মীয় স্বজনের আশ্রয়ে বাকী জীবন কাটানো যে আত্ন মর্যাদা শীল গর্বিত কোন রমনীর গল্প হতে পারেনা সেটি সাহেরা বোঝে। তাইত সে শপথ নিয়েছে হাকিমের স্বপ্ন পুরনের। সন্তানের কাছে আত্ন সমর্পণ যে কত অপমানকর তা সাহেরা তিলে তিলে বুঝে।

এগিয়ে এসেছে হাকিমের পরীক্ষিত বন্ধুরা। দীর্ঘ দিনের বাড়ি ওয়ালা তাদের বাসার ভাড়া কমিয়ে দিয়েছে।স্কুল তার ছেলেদের টিউশনি ফি নিবেনা বলে জানিয়েছে।বীরগঞ্জে হাকিমের রেখে যাওয়া কিছু সম্পত্তি থেকে উপার্জিত অর্থ দিয়ে জীবনের এক কঠিন পরীক্ষায় সাহেরা। কাউর কাছে হাত পাতেনি বোনটি। সৃষ্টি কর্তার প্রতি অবিচল আস্থা রেখে স্বামীর মনোবলকে বুকে ধারন করে প্রতিটি দিন যুদ্ধ করে চলছে সে।

সাহেরার আত্ন সন্মানের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে আমাদের কি মনে হওয়া অনুচিত হবে তার পাশে দাড়ানোর।যে হাকিম দুঃস্থ মানুষের কথা ভাবত আমরা কি পারিনা তার এই রেখে যাওয়া সন্তানদের মোটামুটি মানের সুন্দর ভবিষ্যৎ দেখাতে।সমাজেত অনেক ধনী ব্যাক্তি রয়েছে।সমাজের কাজ করবে ভেবে কতজনিত কোটি কোটি টাকা ব্যয় করে চলেছে জন প্রতিনিধী হওয়ার আশায়। কেউ কি পারেনা একটি শুধু একটি সন্তানের পড়ালেখার দায়ীত্ত নিতে। সামগ্রিক দায়িত্ত একার পক্ষে নেয়া সম্ভব না হলে সমষ্টি গত ভাবে ত একটু চেষ্টা করা যেতে পারে। খাওয়ার টেবিলের একটি মেনু কমিয়ে, সংসারের আজাচীত ব্যয় এড়িয়ে কিংবা যাকাতের টাকার কিছু অংশ কি আমরা চিন্তা করতে পারিনা হাকিমের রেখে যাওয়া সন্তানদের জন্যে। ভুল করে চিন্তা না করলে খুব আন্যায় হবে, যা ঘটে গেছে হাকিমের পরিবারের উপর দিয়ে ঠিক তেমনটিই ঘটে জেতে পারে আমার আপনার অনেকের পরিবারের উপরে। কারন সবাইকে মানতে হবে, ললাটে জয়ের তিলক একে সবাই এই পৃথিবী ছেড়ে যেতে পারেনা ।

হাকিমের স্ত্রীর জীবন যুদ্ধে কেউ সহযোদ্ধা হতে চাইলে তার কাছে পৌঁছানোর

ঠিকানাঃ
মোছাঃ সাহেরা শারমিন। ইসলামিক ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড। দনিয়া শাখা। একাউন্ট নং- ২০৫০৩৯৬০২০০০৭৪৭০৫।বিকাশ নং ০১৭১১৭৩০৮৬৭।

বোন সাহেরার অনুমতি না নিয়েই শুধুমাত্র আমার দায়িত্ত অনুভুতি থেকেই এ পোস্টটি করলাম। কারন আমি মনে করি এটা আমাদের দায়ীত্ত তোমার প্রতি কৃপা নয়।

লেখক-এটিএমএ মতিন

অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা