মঙ্গলবার ১২ নভেম্বর ২০১৯ ২৮শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কোনো জমিই অনাবাদি থাকবে না-প্রধানমন্ত্রী

সমবায়ের ভিত্তিতে চাষাবাদ শুরু করলে দেশের কোনো জমিই অনাবাদি থাকবে না বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শনিবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) ৪৮তম জাতীয় সমবায় দিবস ২০১৯ উদযাপন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

এবারে সমবায় দিবসের প্রতিপাদ্য; ‘বঙ্গবন্ধুর দর্শন; সমবায় উন্নয়ন।’ বিআইসিসির ওই অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী সমবায় দিবসে ‘জাতীয় সমবায় পুরস্কার-২০১৯’ প্রাপ্তদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন।

এসময় শেখ হাসিনা বলেন, ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্প আমরা শুরু করেছিলাম। সেটার নাম পরিবর্তন করে এখন ‘আমার বাড়ি আমার খামার’ করেছি। আমরা চাই, প্রতিটি বাড়ি থেকেই উদপাদন হোক। মানুষ গ্রামে বসেই যেনো অর্থ উপার্জন করতে পারে। অবশ্য, একেকটি বাড়ির অল্প উৎপাদন বাজারজাত করণে সমস্যা দেখা দেয়, সেটা সমবায়ের ভিত্তিতে বিপননের ব্যবস্থা করছি। গ্রাম উন্নয়ন সমিতি করে সেই কাজটি করে দিচ্ছি।

তিনি বলেন, ‘সারা বাংলাদেশে একটি মানুষও যেনো গৃহহারা না থাকে। তাদের তথ্য নিয়ে ঘর করে দিচ্ছি। নদীভাঙ্গণে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ১০০ কোটি টাকার একটা থোক বরাদ্দ রেখেছি। ওখান থেকে তাদের ঘরবাড়ি করে দিচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, নৌপথ ও সড়কপথ চালু করা এবং বিদুৎ সুবিধা দেয়ায় এখন গ্রাম পর‌্যায়েও ব্যবসা সম্প্রসারণ হচ্ছে। সেখানকার উৎপাদিত পণ্যও এখন বাজারে সহজেই আসতে পারছে।

তিনি বলেন, আমরা কারো কাছে হাত পাততে চাই না। কারো মুখাপেক্ষী হতে চাই না। সেজন্য স্বাবলম্বী হতে জাতির পিতার নির্দেশনা মেনে আমরা সমবায়কেই গুরুত্ব দিবো। যাতে অধিক সংখ্যক মানুষ লাভবান হতে পারে। এজন্য বিদ্যমান সমবায় আইন যুগোপযোগী করতে হবে। সমবায় ব্যাংক মুখ থুবড়ে পড়ে ছিল, এর আইনটির আরও সময়োপযোগী করতে হবে। যাতে এটাকে লাভজনক করা যায়, সে ব্যবস্থা নিতে হবে।

তিনি বলেন, ‘এক্ষেত্রে সমবায় কাজে যারা দক্ষ, তাদের প্রশিক্ষণ দিতে হবে। সৎভাবে তারা যেনো কাজ করেন, সেদিকে গুরুত্ব দিতে হবে। বর্তমান ডিজিটাল বাংলাদেশে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে আধুনিক প্রযুক্তিজ্ঞান সম্পন্ন ব্যবস্থাপনা গড়ে তুলে সমবায়ের মাধ্যমে আমাদের দেশের উন্নয়ন করতে পারবো।

জাতির পিতার ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তুলবো।’ এসময় স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম, প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচারর‌্য, সচিব হেলালুদ্দিন আহমদসহ সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।