রবিবার ৫ জুলাই ২০২০ ২১শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কোভিড-১৯ এর প্রভাবে প্রায় ৯৫% পরিবারের উপার্জন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে; দৃঢ় সমন্বয় প্রয়োজন, বলছে ওয়ার্ল্ড ভিশন

ঢাকা, বাংলাদেশ (২০ জুন ২০২০): ওয়ার্ল্ড ভিশন এর মতে, কোভিড-১৯ এর প্রভাবে সৃষ্ট সামাজিক ও অর্থনৈতিক অস্থিতিশীলতার কারণে শিশু, বিশেষত যারা শহর বা গ্রামের অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে বসবাস করছে, তাদের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যঝুঁকি বৃদ্ধি পেয়েছে।

আজ প্রকাশিত ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর কোভিড-১৯ র‌্যাপিড ইমপ্যাক্ট এ্যাসেসমেন্ট প্রতিবেদন মতে, দেশব্যাপী সরকার ঘোষিত প্রায় ৯০ দিনে লকডাউনে কার্যত অর্থনৈতিক কর্মকান্ড স্থবির হয়ে পড়ায়, দেশের প্রায় ৯৫% পরিবারের উপার্জন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে যার মধ্যে দৈনিক রোজগার বা ব্যবসা বন্ধ থাকায়  ৭৮.৩% পরিবারের উপার্জন কমেছে ।

বাংলাদেশের জনসংখ্যার ৪৫% শিশু, যার মধ্যে ৪৬% দ্রারিদ্র এবং এর এক-চতুর্থাংশ অতিদারিদ্রতার মধ্যে বেড়ে উঠছে। অন্তর্বর্তীকালীন ন্যাশনাল ডিরেক্টর চন্দন গোমেজ বলেন, “আমরা শংকিত, বিশেষত ৫ বছরের কম বয়সী সেই সকল শিশুদের নিয়ে যারা অপুষ্টির মত প্রতিরোধযোগ্য সংক্রমনের ঝুঁকির মধ্যে আছে, যা দেশে শিশু মৃত্যুর হার বাড়িয়ে তুলতে পারে।”

“দেশের ২৬টি জেলার ৫৭টি উপজেলার আমাদের কর্মএলাকাগুলোতে আমরা দেখেছি খাদ্য সংকটের কারণে অপুষ্টির মত সমস্যাগুলোতে শিশুরা অধিক মাত্রায় সংক্রমিত হচ্ছে। প্রতিবেদনটিতে উঠে এসেছে, জরিপ এলাকার ৯৪.৭% পরিবারে খুব সামান্য অথবা কোন খাবার সঞ্চিত নেই যেখানে ৩৮.৫% শিশু এবং ৫৮.৯% প্রাপ্তবয়ষ্ক ব্যাক্তি দিনে সর্বোচ্চ দুইবেলা খেতে পারছেন। এছাড়া  ৫৮% পরিবার খুব কম খাবার খেয়ে দিন পার করছে।”

প্রতিবেদনটিতে আরো উঠে এসেছে, প্রায় ৩৪% পরিবার রান্না, ধোয়া-মোছা ও পান করার জন্য নিরাপদ ও বিশুদ্ধ পানি পাচ্ছে না । অন্যদিকে ৫০% পরিবার স্বাস্থ্যবিধি উপকরণ এবং পরিষ্কার পানির অপর্যাপ্ততার কারণে সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার মত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে পারছে না ।

“আমি শংকিত সেই ৮৭% শিশুদের নিয়ে যারা বাড়িতে থেকে বিচ্ছিন্ন বোধ করছে এবং ৯১.৫% শিশু যারা কোভিড-১৯ নিয়ে দুঃশ্চিন্তাগ্রস্থ ।  রোহিঙ্গা শরনার্থী শিবিরের শিশু এবং তাদের পাশর্^বর্তী জনবসতিসহ বাংলাদেশের সকল শিশুদের বর্তমান পরিস্থিতিতে যে সকল সমস্যা প্রভাবিত করছে তা সমাধানে আমাদের দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়া এবং এই সমস্যাগুলো সমাধানে প্রয়োজনীয় উপকরন ও সেবা প্রাপ্তি নিশ্চিত করা প্রয়োজন ” , বলেন চন্দন গোমেজ ।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের  ৮টি বিভাগের ৫২টি উপজেলার ১২ থেকে ১৮ বছর বয়সি ১৬১৬ জন শিশু এবং ২৬৭১ জন প্রাপ্তবয়ষ্ক ব্যাক্তির উপর পরিচালিত জরিপ থেকে প্রাপ্ত তথ্য নিয়ে র‌্যাপিড ইমপ্যাক্ট এ্যাসেসমেন্ট প্রতিবেদনটি তৈরী করা হয়েছে ।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email