সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ৮ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছে কৃষকরা,দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে চলছে শীতকালীন সবজি চাষের প্রস্তুতি

নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) থেকে এম.এ সাজেদুল ইসলাম(সাগর) :     দেশের অন্যতম প্রধান সবজি উৎপাদনকারী অঞ্চল খ্যাত দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে মাঠে মাঠে চলছে শীতকালীন সবজি চাষের জোর প্রস্তুতি। বীজতলার পরিচর্যার পাশাপাশি জমি প্রস্তুতিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে কৃষকেরা। তারা আশায় বুক বেঁধে যেভাবে প্রস্তুতি এগিয়ে চলছে তাতে কোন বিপর্যয় দেখা না দিলে স্বপ্ন পূরণের হাতছানি রয়েছে কৃষকদের। সরেজমিনে দেখা গেছে সবজি প্রধান এলাকা ঘুরে দেখা যায় শীতকালীন সবজি চাষে শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন চাষীরা। আধুনিক কৃষি প্রযুক্তি ব্যবহার করে বীজতলায় উৎপাদন করেছেন রোপন উপযোগী চারা। অনিষ্টিকারী রোগ, পোকা-মাকড় ও প্রাকৃতিক বিপর্যয় না হওয়ায় চাষীরা বেগুন, মরিচ, ফুলকটি, ওলকপি, বাঁধাকপি, টমেটোর কাংখিত চারা উৎপাদনে সক্ষম হয়েছেন। যা স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে পার্শ্ববর্তী এলাকার সবজি চাষেও সরবরাহ যোগাবে। অপর দিকে আগাম জাতের কিছু কিছু সবজি ইতিমধ্যেই মাঠ সবুজ করে তুলেছে। মূলা, লাল শাক, বেগুনসহ আগাম জাতের ফুলকপি ও বাঁধাকপি ইতিমধ্যেই বাজারজাত করতে শুরু করেছেন চাষীরা। আগাম এ সবজি চাষের খরচ বেশি হওয়ায় বাজারে এখন চড়া দামে এসব সবজি বিক্রয় হচ্ছে। তবে চাষিরা আশা প্রকাশ করছেন, ভরা উৎপাদন মৌসুমে সবজির দাম সহনীয় পর্যায়ে চলে আসবে। দাউদপুর ইউনিয়নের কৃষক সোহরাব হোসেন, মোজাম্মেল, নজরুল ইসলাম তারা জানায়- আগাম সবজি উৎপাদনে কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছে তারা। আগাম সবজি উৎপাদন করতে পারলে বাজারে উৎপাদন ব্যয় ভালো পাওয়া যাবে। এদিকে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবু রেজা মোঃ আসাদুজ্জামান জানান- শীতকালীন সবজি উৎপাদন করে অনেক কৃষক স্বালম্বী হয়েছে। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন কর্মকতা মল্লিকা সেহনবিশ জানান- সবজি চাষীদের উৎপাদনে পরামর্শসহ সম্পূরক সেচ প্রদানে ইউনিয়ন পর্যায়ের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাগণ পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন। দাউদপুর ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ফাত্তাউজ্জামান জানান- তার ইউনিয়নে এ বছরে রেকর্ড পরিমাণ সবজি উৎপাদন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।