শুক্রবার ২৯ মে ২০২০ ১৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল আত্মসাত বীরগঞ্জে যুবলীগ সম্পাদকসহ দুই ডিলারের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক ॥ দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার পলাশবাড়ী ইউনিয়নে খাদ্য বান্ধব কর্মসূচির চাল আত্মসাতের অভিযোগে খাদ্য বান্ধব কর্মসুচীর দুই ডিলার পলাশবাড়ী ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ নাজমুল হোসেন বাহাদুর এবং অপর ডিলার মোঃ রহিমুল ইসলামের বিরুদ্ধে বীরগঞ্জ থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ফিরোজ আহমদ মোস্তফা।

বুধবার সন্ধ্যায় বীরগঞ্জ থানায় একটি লিখিত ভাবে অভিযোগ দেওয়া হয়েছে জানিয়েছে বীরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুল মতিন প্রধান।

তিনি বলেন, যেহেতু অভিযোগটি দুনীতি বিষয়ক সেকারণে অভিযোগটি জিডি আকারে গ্রহন করে দুর্নীতি দমন কমিশন বরাবরে প্রেরণ করা হয়েছে।

ভূক্তভোগী একই ইউনিয়নের বৈরবাড়ী গ্রামের বিনোদ অধিকারীর ছেলে ধীরেন্দ্রনাথ অধিকারী, ধুকোল মহন্ত ছেলে ফাগুনা মহন্ত, মৃত শচিন্দ্রনাথ রায়ের ছেলে রমেশ চন্দ্র রায়, এবং আকবর আলীর স্ত্রী মহিলা ইউপি সদস্যা পারুল বেগম বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে লিখিত অভিযোগ উল্লেখ করেন ঝলঝলি গ্রামের মোঃ নুরুল ইসলামের ছেলে খাদ্য বান্ধব কর্মসুচীর ডিলার মোঃ নাজমুল হোসেন বাহাদুর তাদের বরাদ্দকৃত কার্ডের বিপরীতে খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল না দিয়ে দীর্ঘ দিন থেকে আত্মসাত করে আসছেন।

একই অভিযোগ অপর ডিলার পলাশবাড়ী গ্রামের মোজাফ্ফর রহমানের ছেলে রহিমুল ইসলামের বিরুদ্ধে।

তার বিরুদ্ধে একই এলাকার চাপাপাড়া গ্রামের নাথু সরকারের ছেলে জগদিশ চন্দ্র রায়, একই গ্রামের পরিতোষ সরকারের স্ত্রী লিপি রানী রায়, উমর আলীর স্ত্রী মোছাঃ লাল বানু, সুরেন্দ্র নাথ সরকারের ছেলে বিমল সরকার, জোতিন্দ্র নাথ সরকারের স্ত্রী রিক্তারানী সরকার অভিযোগ করেন।

এ ব্যাপারে বিনোদ অধিকারীর ছেলে ধীরেন্দ্রনাথ অধিকারী জানান, ডিলার মোঃ নাজমুল হোসেন বাহাদুর আমাদের নামে বরাদ্দকৃত কার্ডের চাল দীর্ঘদিন ধরে আত্মসাত করে আসছিল। বিষয়টি আমরা টের পেয়ে উনার কাছে যাই। উনি অস্বীকার করে। পরে এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত ভাবে অভিযোগ করেছি।

একই এলাকার চাপাপাড়া গ্রামের নাথু সরকারের ছেলে জগদিশ চন্দ্র সরকার বলেন, ডিলার মোঃ রহিমুল ইসলাম আমার বরাদ্দকৃত কার্ড দিয়ে চাল উত্তোলন করলেও আজ পর্যন্ত আমি কোন চাল পাইনি।

অভিযোগ পেয়ে বুধবার উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইয়ামিন হোসেন পলাশবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদে গিয়ে তদন্ত করে অভিযোগের সত্যতা পান।

এ ব্যাপারে তিনি বলেন, এলাকার লোকজনের লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত করা হয়। তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক অফিসারকে মামলা করার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ফিরোজ আহমদ মোস্তফা জানান, ডিলার নাজমুল হোসেন বাহাদুর ভূয়া মাষ্টার রোল জমা দিয়ে ৪টি কার্ডের বিপরীতে ২হাজার ৭৩০কেজি চাল এবং ডিলার রহিমুল হোসেন ৫টি কার্ডের বিপরীতে ৩হাজার কেজি চাল আত্মসাত করেছে। অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় তাৎক্ষনিক ভাবে দুজনের ডিলারশীপ বাতিল এবং বুধবার সন্ধ্যায় বীরগঞ্জ থানার দুজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত দুই ডিলার পলাতক থাকায় তাদের সাথে চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email