বৃহস্পতিবার ২৪ মে ২০১৮ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

খানসামায় অলৌকিক আগুনের গুন্জনে ঘর ছাড়া মানুষ

এস.এম.রকি, খানসামা (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: কোনো প্রকার ঘটনা ছাড়াই হঠাৎ করে গত পাঁচ দিন ধরে দিনাজপুরের খানসামা উপজেলার আলোকঝাড়ি ইউনিয়নের বয়উদ্দিন পাড়ায় মোট ৯ বার আগুন লাগার ঘটনা ঘটছে।

গত বুধবার(৭ ফেব্রুয়ারি) আনুমানিক দুপুর ১২ টার সময় ওই গ্রামের আতিকুর ইসলামের ঘড়ের ঘরে প্রথম আগুন লাগতে দেখতে পায় প্রতিবেশীরা, তাৎক্ষণিকভাবে প্রতিবেশীরা আগুনকে নিভাতে পারলেও আবার সেই দিন সন্ধা ৭ টার দিকে আবার একই গ্রামের রব্বানি ইসলামের রান্না ঘরের আগুন লাগে এই আগুনও পূর্বের মতই নিভে ফেলে এলাকাবাসীরা।

ওই দিন আগুন লাগানোকে সেভাবে গুরুত্ব না দিলেও পর দিন আবারো বয়উদ্দিন পাড়ার সিদ্দিকুল রহমানের শয়ন কক্ষে সকাল ৮ টায় ও বিকেল ৩টায় আনিসুল ইসলামের গোয়াল ঘরে আগুন লেগে যায় এবং এই আগুনও স্থানীয়রা নিভে ফেলে। এরপর থেকেই এই গ্রামে শুরু হয় আগুন আতঙ্ক।

এই আগুন আতঙ্কের ফলে দিন রাত ধরে সর্তকতার সাথে গ্রামবাসী ও পাশেপাশের মানুষ গ্রাম পাহারা দেওয়া অবস্থায় গতকাল শুক্রবার ও আজ রবিবার সকাল পর্যন্ত ৫ দফাসহ মোট ৯ বার আগুন লেগেছে ওই গ্রামের ৮ জনের বাড়ির রান্না ও শয়ন ঘরে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, এর আগে ১৯৯৫ সালে দূর্ঘটনার কারণে এক ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে এই পুরো গ্রামটি পুড়ে ছাই হয়ে যায়।

ঠিক কি কারণে এবার এই গ্রামে বারবার আগুন লাগানোর মত ঘটনা ঘটছে তা কেউ ঠিক বলতে পারছে না। তবে এসব অগ্নিকান্ডে ঘটনায় কোনো বড় ধরনের ক্ষয়ক্ষতি না হলেও আংশিক ভাবে ক্ষতি হয়েছে ঘর ও বাশের তৈরি এসব ঘরবাড়ি।

হঠাৎ বারংবার অগ্নিকান্ডের ঘটনাকে কেন্দ্র করে এই গ্রামকে দূরদূরান্ত থেকে দেখতে ভীর জামাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ, এমনি চিত্রের দেখা মেলে রবিবার সেই গ্রামটিতে সরোজমিনে এসে। আগুন নেভানোর জন্য বিপুল পানি বিভিন্ন পাত্রে প্রস্তুত করে রাখতেও দেখা গেছে।

রহস্যজনক এই গ্রামকে দেখতে আসা মানুষ এই ঘটনাকে একেক জন একেক রকম করে আগুন লাগানোর কারণ হিসাবে উলে­খ করছে । অধিকাংশরাই মনে করছে অলৌকিক কোনো কারণেই ঘটতে পারে এই অগ্নিকান্ডের ঘটনাটি।

অগ্নিকান্ডে শিকার বাড়ির মালিক আতিকুর ইসলামের সাথে এর কারণ জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, ‘ঠিক কি কারণে এ রকমটা বারবার ঘটছে তা আমি বুঝতে পারছি না’।

এ দিকে আগুন আতঙ্কে এই গ্রামের প্রায় কয়েকটি পরিবার দুদিন ধরে এখন বসবাস করছে খোলা মাঠে। গ্রামের পাশের আবাদি জমিতে তবু টাঙ্গিয়ে তাদের বসবাস করতে গেছে রাতের বেলা। এছাড়াও ঘরের সকল আসবাবপত্র  ও গরু ছাগলকে নিয়ে ঘর থেকে বের হয়ে খোলা মাঠে অবস্থান করছে অনেকেই ।

শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) ঘটনার সংবাদ পেয়ে খানসামা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও  ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা এসে ঘটনাস্থল পর্যবেক্ষন করেন ।

খানসামা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব-উল-ইসলামের সাথে এবিষয়ে কথা হলে তিনি বলেন, ‘আগুন লাগার রহস্য উদঘাটনে ফায়ার সার্ভিস কাজ করছে’।