শনিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

খানসামায় ব্যাগিং পদ্ধতিতে কীটনাশকমুক্ত আম উৎপাদন

আমিনুল ইসলাম, খানসামা (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের খানসামায় নিরাপদ প্রযুক্তি ব্যবহার করে হাফিজ উদ্দিন শাহ নামে এক আম চাষী ব্যাগিং পদ্ধতিতে কীটনাশকমুক্ত আম উৎপাদন করে ব্যাপক সাড়া ফেলেছেন। চলতি বছর উপজেলার নেউলা গ্রামে ৪৯ শতকের একটি জমিতে লাগানো আ¤্রপালি জাতের বাগানে ২৫ শতক অংশে তিনি ব্যাগিং পদ্ধতি করেছেন। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের এনএটিপি-২ প্রকল্পের আওতায় তিনি এ পদ্ধতিতে ৭০টি গাছে ব্যাগ লাগিয়েছেন।

বাগান ঘুরে দেখা গেছে, অনুকূল আবহাওয়ায় এ বছর আ¤্রপালি ও বারি-৪ জাতের আমের বাম্পার ফলন হয়েছে। স্থানীয় ভাবে সংগ্রহকৃত চারা দিয়ে লাগানো হাফিজ উদ্দিনের বাগানে রোপনের ২ বছর পর গত বছর প্রথম এবং এ বছর দ্বিতীয় বারের মত ফল ধরেছে। এক বিঘা পরিমাণ জমিতে বাগান করতে তাঁর খরচ হয়েছে প্রায় এক লাখ টাকা। আর প্রতিটি গাছে আম ধরেছে প্রায় ৩০ কেজির মত। বর্তমান বাজারে যার মূল্য প্রায় এক লাখ টাকার মত। একই ভাবে তাঁর অপর দু’টি বাগান করতে খরচ হয়েছে প্রায় আড়াই লাখ টাকার মত। ধারণা করা হচ্ছে, চলতি বছর আম বিক্রি হবে প্রায় বাগানের খরচের সমান। এছাড়াও তিনি এসব বাগানে বেড়া হিসেবে লেবু গাছ লাগিয়ে বাড়তি আয় করছেন।

হাফিজ উদ্দিন ছাড়াও এ বছর সহজপুর গ্রামের মাসুদার রহমান, ডাঙ্গাপাড়ার শিরিল মুর্মু এবং গোয়ালডিহি গ্রামের আফতাব উদ্দিনকে স্বল্প পরিমাণে ব্যাগিং পদ্ধতিতে কীটনাশকমুক্ত আম উৎপাদন করতে দেখা গেছে।

হাফিজ উদ্দিনের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমার দীর্ঘ দিনের সখ ছিলো বাগান করা। সে চিন্তা থেকেই আম বাগান করেছি। সেই সুবাদে অনেকবার রাজশাহীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরেও দেখেছি। আমি রাজশাহীর চাপাইতে ব্যাগিং পদ্ধতি দেখেছি। তাই আমিও কীটনাশকমুক্ত ব্যাগিং পদ্ধতি করছি। এটি দেখার জন্য প্রতিদিন অনেক বাগান মালিক আসছেন। এ কাজে আমাকে উপজেলা কৃষি অফিস সহায়তা করছে। আমার আরও বাগান আছে, দেখি আগামিতে ব্যাগিং পদ্ধতি বাড়াব। গত বছর এ বাগানে আম বিক্রি করেছিলাম ৮০ হাজার টাকা। আশা করছি এ বছর আম বিক্রি এক লাখ টাকা পার হতে পারে।

উপজেলা কৃষি অফিসার মো. আফজাল হোসেন বলেন, আম ১০০ গ্রাম পরিমাণ হলে ব্যাগ লাগাতে হয়। এতে আম যেমন ছত্রাকমুক্ত ও বিষমুক্ত হয়, তেমনি আমের রঙ হয় আকর্ষণীয়। ফলে, ক্রেতারা এগুলো কিনতে আগ্রহী হয়। বাজার মূল্যও ভালো পাওয়া যায়। বিদেশে এসব আমের প্রচুর চাহিদা রয়েছে। যেহেতু খানসামায় বাণিজ্যিক ভাবে আম চাষ শুরু হয়েছে, সে জন্য আমরা সেদিকে দৃষ্টি রেখেছি।