বৃহস্পতিবার ১৫ নভেম্বর ২০১৮ ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

খানসামায় রবি ভুট্টা চাষে বাড়ছে কৃষকের আগ্রহ

মোঃ নুরনবী ইসলাম, খানসামা (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের খানসামা উপজেলায় দিন দিন রবি মৌসুমের ভুট্টা চাষে আগ্রহ বাড়ছে কৃষকের। ধানের চেয়ে বেশি খরচ কম হওয়ায় এবং বেশি লাভের আশায় তারা ভুট্টা চাষে ঝুঁকে পড়েছে।

সরেজমিনে খানসামার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে মাঠের পর মাঠজুড়ে ভুট্টাক্ষেত। যেসব মাঠ গত বছরও বোরো ধানে পূর্ণ ছিল সেগুলো এবার সবুজ ভুট্টায় ভরে আছে। কেউবা জমিতে পানি দিচ্ছেন কেউবা জমিতে ওষুধ স্প্রে করছেন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সূত্র মতে, গত বছর পুরো উপজেলায় রবি ভুট্টার চাষ হয়েছিল ৫ হাজার ১১৫ হেক্টর জমিতে। প্রতি হেক্টরে ফলন হয়েছিল ৮ মেট্রিক টন করে। এতে করে গেল বছর লাভের মুখ দেখে এবার রবি ভুট্টা চাষে আরো আগ্রহ বেড়েছে এ অঞ্চলের কৃষকের।

ফলে এবছর এ যাবত রবি মৌসুমে ভুট্টার চাষ হয়েছে ৪ হাজার ২৫০ হেক্টর জমিতে এবং কয়েকদিনের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা পার হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। এবার রবি ভুট্টা চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৫ হাজার ১১৫ হেক্টর।

উপজেলার ভান্ডারদহ গ্রামের আব্দুল মজিদ, পূর্ব হাসিমপুর গ্রামের মনছুর আলী, পশ্চিম হাসিমপুর গ্রামের জয়ন্ত চন্দ্র রায় রাখালধাম ও মিলন চন্দ্র রায়, দক্ষিণ বালাপাড়া গ্রামের বাউরাপাড়ার মোঃ শরীফ উদ্দীন ভুট্টা চাষীদের কাছ থেকে জানা যায়, তারা গত এক মাস ধরে ভুট্টা পরিচর্য়ায় ব্যস্ত সময় পার করেছেন।

তারা আরো জানান, ভুট্টা আবাদে খরচ কম, ফলন বেশি। বাজারে দামও ভালো পাওয়া যায়। বোরো ধান চাষের তুলনায় ভুট্টা চাষে সেচ ও পরিচর্যা খরচ তুলনামূলক অনেক কম।

উপজেলার আঙ্গারপাড়া ইউনিয়নের পাকেরহাট গ্রামের সুকুমার রায় জানান, গত বছর প্রায় দশমিক ৫৪ হেক্টর (৪ বিঘা) জমিতে ভুট্টা চাষ করে ফলন পেয়েছিলেন প্রায় ৪ দশমিক ৬৪ মেট্রিক টন (১১৬ মন)। আশা করছেন এবারো একই রকম ফলন পাবেন।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ইয়াসমিন আক্তার বলেন, পোল্ট্রি ফিড, মাছের ফিড তৈরিতে ভুট্টার ব্যাপক চাহিদা থাকে, তাই এতে লোকসান সাধারণত হয় না। আবার স্বল্প সেচ, খরচ কম লাগায় ধানের বদলে ভুট্টা চাষে বেশি আগ্রহী কৃষকরা।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ আফজাল হোসেন বলেন, খানসামায় ভুট্টার ফলন ও মান অত্যন্ত ভাল। ভুট্টা একটি লাভজনক ফসল। উপজেলায় ধানের পরে ভুট্টা বেশি চাষ হয়েছে। ফসলটির ফলনও অনেক ভালো। তাছাড়া ধানের চেয়ে ভুট্টার সেচ সুবিদা অনেক বেশি। আগামীদিনে চাষীরা আরও বেশি করে ভুট্টার চাষ করে স্বাবলম্বী হতে পারবেন বলে আশা করা যাচ্ছে।