শনিবার ৭ ডিসেম্বর ২০১৯ ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

খানসামা ও চিরিরবন্দরে ৫ মিনিটেই বিদ্যুৎ সংযোগ দিচ্ছে ‘আলোর ফেরিওয়ালা’

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ ‘শেখ হাসিনার উদ্যোগ, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ’ প্রধানমন্ত্রীর এই শ্লোগানকে বাস্তবায়ন করতে দিনাজপুরের খানসামা ও চিরিরবন্দর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে ভ্যান, অটো ও মোটরসাইকেলে “আলোর ফেরিওয়ালা” ব্যানার টাঙ্গিয়ে ফেরি করে গ্রাহকদের বাড়ি বাড়ি বিদ্যুৎ সংযোগ দিচ্ছে দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১।

জামানত জমাদানের মাত্র ৫ মিনিটেই গ্রাহদের বাড়িতে গিয়ে বিদ্যুতের মিটার ও তার সংযোগ দিয়ে ঘরে বাতি জ্বেলে দিচ্ছেন পল্লী বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

খানসামা উপজেলার ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের খলিলুর রহমান, বাসুলী গ্রামের আনোয়ারুল হক, শাহিনুর ইসলাম, শুশুলী গ্রামের জিয়াউর রহমানসহ অনেকে বলেন, বাড়ি কিংবা ব্যবস্যা প্রতিষ্ঠানে বিদ্যুতের সংযোগ পেতে দিনের পর দিন, মাসের পর মাস এমনকি বছরের পর বছর অপেক্ষা করেও পাওয়া যেত না কাঙ্খিত বিদ্যুৎ। আর এখন মাত্র ৫ মিনেটে ঘরে বসেই সহজেই পাচ্ছি বিদ্যুতের লাইন। এ যেন স্বপ্ন।

দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ রাণীরবন্দর জোনাল অফিস জানায়, খানসামা উপজেলার আলোকঝাড়ি, ভেড়ভেড়ী, আঙ্গারপাড়া, খামারপাড়া, ভাবকি ও গোয়ালডিহি এবং চিরিরবন্দর উপজেলার তেতুলিয়া, নশরতপুর, ফতেজংপুর, হাসিমপুর, ইসুবপুর ও আলোকডিহি এই ১২ ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে গ্রামে ‘আলোর ফেরিওয়ালা’ ভ্যানগাড়িতে করে ড্রফ তার ও মিটার নিয়ে গ্রাহকদের বাড়িতে গিয়ে ৯৯টি বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে। রাণীরবন্দর জোনাল অফিসের আওতায় খানসামা ও চিরিরবন্দর উপজেলায় ৯৭ ভাগ গ্রাহকের মাঝে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে। এ বছরের শেষের দিকে সকলের ঘরে ঘরে শতভাগ বিদ্যুৎ পৌঁছে যাবে।

দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ রাণীরবন্দর জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) মো মমিনুর রহমান বিশ্বাস জানান, এক সময় গ্রাহকদের বিভিন্ন সিন্ডিকেটের মাধ্যমে নানাভাবে হয়রানীর শিকার হতে হত। এখন সে চিত্র একবারেই পাল্টে গেছে। আজ থেকে ১০ বছর আগেও বিদ্যুৎ পাওয়াটা ছিল মানুষের জন্য স্বপ্নের ব্যাপার। সেখানে মাত্র ৫ মিনিটে ঘরে বসেই বৈদ্যুতিক লাইন পাচ্ছে সাধারণ মানুষ।