বুধবার ১৪ নভেম্বর ২০১৮ ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

খোলা আকাশের নিচে পাঠদান

নীলফামারী প্রতিনিধি : নীলফামারীর ডিমলার উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল তিস্তা নদী বেষ্টিত টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের উপড় দিয়ে মঙ্গলবার বয়ে যাওয়া কাবৈশাখী ঝড়ে টেপাখড়িবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের সম্পুর্ন শ্রেনীকক্ষ উড়ে যাওয়ায় টেপাখড়িবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪শ ৩০ জন শিক্ষার্থীকে খোলা আকাশের নিচে পাঠদান দেয়া হচ্ছে এতে করে ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষা কায্যক্রম।
গত মঙ্গলবার দুপুরে বিদ্যালয় চলা কালীন সময়ে হটাৎ কালবৈশাখী ঝড় বিদ্যালয়টির শ্রেনীকক্ষ উড়িয়ে নিয়ে লন্ডভন্ড করে দেয় বিদ্যালয়টিকে। এ সময় বিদ্যালয়ের ৬জন শিক্ষার্থী আহত হয়।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফাতেমা খাতুন বলেন, মঙ্গলবার দুপুরে হটাৎ কালবৈশাখী ঝড়ে চোখের সামনে নিমিষেই লন্ডভন্ড হয়ে যায় বিদ্যালয়ের শ্রেনীকক্ষ শিক্ষার্থীরা প্রানের ভয়ে বাঁচতে গিয়ে কালবৈশাখীর কবলে পরে কয়েকজন আহত হন। বর্তমানে ঘড়ের অভাবে রোদ বৃষ্টি মাথায় নিয়ে শিক্ষার্থীদের পাঠদান দেয়া হচ্ছে খোলা আকাশের নিচে। বিদ্যালয়ের শ্রেনী কক্ষের বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার নিকট লিখিত আবেদন করা হয়েছে।
ডিমলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুন নাহার বলেন, মঙ্গলবার কালবৈশাখী ঝড়ে উপজেলার টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের টেপাখড়িবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের শ্রেনীকক্ষ উড়ে যাওয়ার বিষয়টি জেনে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য বলা হয়েছে। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল হালিম বলেন, কালবৈশাখী ঝড়ে টেপাখড়িবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয়ের শ্রেনী কক্ষ উড়ে যাওয়ার বিষয়টি আমি অবগত রয়েছি। প্রধান শিক্ষকের আবেদনের বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।