বুধবার ১২ অগাস্ট ২০২০ ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

গণহত্যার শিকার দিনাজপুরের বুদ্ধিজীবীরা

মুক্তিযুদ্ধের একটা কলংকজনক অধ্যায় হলো বুদ্ধিজীবী হত্যা। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী এবং তাদের দোসর রাজাকার, আলবদর, আলশামস সেই সময় বেছে বেছে অত্যান্ত নৃশংস ও বর্বরোচিত কায়দায় বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করেছিল বাঙালি জাতিকে পঙ্গু করার জন্য, বাংলাদেশকে জ্ঞ্যাণ ও মেধা চর্চায় শুন্য করার জন্য। গণহত্যার শিকার সেই বুদ্ধিজীবীরা দেশ-জাতিকে পথ দেখানোর জন্য অনেক কিছু দিয়ে যেতে পারতেন।

আমরা ১৪ ডিসেম্বরকে শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবস হিসেবে পালন করে থাকি কারণ সেই দিন ভোর রাতে হানাদার পাকিস্তানি বাহিনী তাদের দোসরদের সঙ্গে নিয়ে ঢাকার মিরপুরে অসংখ্য বুদ্ধিজীবীকে গণহত্যা করেছিল। গণহত্যার শিকার সেই বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে ছিলেন বরেন্য শিক্ষক, প্রথিতযশা সাংবাদিক, চিকিৎসক, সাহিত্যিকসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার পথ প্রদর্শক মানুষেরা। রায়েরবাজার বধ্যভূমিতে সেই শহিদদের ছিন্নভিন্ন লাশ পাওয়া যায় দেশ স্বাধীন হওয়ার পর। আজও স্বজনদের কান্নায় ভারি হয়ে উঠে সেই বধ্যভূমিসহ দেশের অসংখ্য বধ্যভূমি এলাকা।

অসংখ্য বুদ্ধিজীবীর লাশ পাওয়ায় ১৪ ডিসেম্বরকে আমরা শহিদ বুদ্ধিজীবী দিবস হিসেবে পালন করে থাকি। তবে গণহত্যা শুধু ঐ একটি দিনে সংঘটিত হয়েছিল ব্যাপারটা সেরকম নয়। বলা যায় মেধাবী, সৃজনশীল, বরেন্য মানুষদের মুক্তিযুদ্ধের পুরো সময় জুড়েই সংঘটিত হয়েছিল, আর দেশজুড়েই সেটা সংঘটিত করেছিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসরেরা।

মুক্তিযুদ্ধে এমন ক’জন বুদ্ধিজীবী পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর গণহত্যার শিকার হন যাদের কেউ কেউ দিনাজপুরের মানুষ ছিলেন। আবার কর্মসূত্রে দিনাজপুরের আপনজন হয়ে উঠেছিলেন এমন বুদ্ধিজজীবীও হত্যার শিকার হন। কিছু মানুষ যাদেরকে হয়তো বুদ্ধিজীবীর পর্যায়ে রাখা যায় না, কিন্তু নিজ নিজ এলাকায় তাদের যথেষ্ট কদর ও মর্যাদা ছিল এবং লোকে তাদের কথা শুনতেন, তাদের পরামর্শ নিতেন, এমন লোককেও হত্যা অথবা গণহত্যার শিকার হতে হয়েছিল। তাদের শুন্যতা কখনো পুরণ হবার নয়।

এখানে দিনাজপুর সংশ্লিষ্ট কয়েকজন বুদ্ধিজীবীর কথা এবং কিছু বিশিষ্ট ব্যক্তির কথা তুলে ধরা হলো যারা মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যার শিকার হয়েছিলেন;

ড. গোবিন্দ চন্দ্র দেব : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের শিক্ষক ড. গোবিন্দ চন্দ্র দেব সাধারনভাবে জি সি দেব নামে অধিক পরিচিত ছিলেন। সিলেটে জন্মগ্রহণকারী জিসি দেব এর কর্মজীবন শুরু হয়েছিল কলকাতার রিপন কলেজে শিক্ষকতার মাধ্যমে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় বোমাবাজির হাত হতে রক্ষার জন্য রিপন কলেজকে দিনাজপুরে (দিনাজপুরের মহারাজা স্কুলে) স্থানান্তর করা হয়। ড. গোবিন্দ চন্দ্র দেবও দিনাজপুরে এসে রিপন কলেজে শিক্ষকতা করেন। বিশ্বযুদ্ধ শেষে রিপন  কলেজকে আবারো কলাকাতায় ফিরিয়ে নেয়া হলেও জি সি দেব দিনাজপুরেই থেকে যান। তিনি দিনাজপুরের মহারাজাসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের প্রচেষ্টায় দিনাজপুরে রিপন কলেজেরই একটি শাখা প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করেন। কিন্তু কলেজ কর্তৃপক্ষ শাখার পরিবর্তে মানব হিতৈষী সুরেন্দ্রনাথ এর নামে কলেজ প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব দিয়ে বলেন, সুরন্দ্রনাথের নামে কলেজ হলে দিনাজপুরে রিপন কলেজের সকল সম্পদ ঐ কলেজকে দান করা হবে। অতঃপর দিনাজপুরে সুরেন্দ্রনাথের নামেই একটি নতুন কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হয় যার প্রথম অধ্যক্ষ নিযুক্ত হন জি সি দেব। তিনি কলেজটি সুপ্রতিষ্ঠিত করতে ব্যাপক অবদান রাখেন। তিনি ১৯৫৩ সালের জুলাই মাসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগে যোগ দন এবং দার্শনিক হিসেবে আন্তর্জাতিক খ্যাতি লাভ করেন। হানাদার বাহিনীর হামলায় ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে মৃত্যবরণ করেন।

আ ন ম গোলাম মাস্তফা : শহীদ সাংবাদিক আ ন ম গোলাম মোস্তফা জন্মসূত্রে নীলফামারীর বাসিন্দা হলেও তার জীবনের দীর্ঘ সময় কেটেছে দিনাজপুরে। দিনাজপুরের বালুবাড়িতে তার পৈর্তক বাড়ি আছে যেখানে তিনি দীর্ঘ সময় বসবাস করেছেন।  তিনি দিনাজপুরের সুরেন্দ্রনাথ কলেজ হতে ১৯৬০ সালে আইএ এবং ১৯৬৩ সালে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন। পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন এবং সাংবাদিকতায় যোগ দন। ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসম্বর রাজাকার আলবদরদের হাতে ঢাকায় মিরপুর বধ্যভূমিতে গণহত্যার শিকার হন। শহীদ সাংবাদিক আ নম গোলাম মোস্তফার ছোট ভাই আ ন ম গোলাম রাব্বানী দিনাজপুর সরকারি কলেজের অধ্যাপক ছিলেন এবং বালুবাড়িতে বসবাস করছেন।

মিজানুর রহমান মিজু : দিনাজপুর শহরের মুন্সীপাড়ার নিবাসী বজলার রহমানের পুত্র মিজানুর রহমান মিজু ছিলেন একজন বরেন্য নাট্য শিল্পী। মঞ্চ, বেতার ও টিভিতে নিয়মিত নাটক করেছেন। তাকেু মুক্তিযুদ্ধের সময় ঘোড়াশালের ইজামুদ্দিন আহমেদ ন্যাশনাল জুটমিলে পাকিস্তানি সেনারা গুলি চালিয়ে হত্যা করে।

আমিরুল হুদা জিন্নাহ : শহরের কালিতলা নিবাসী শামসুল হুদার পুত্র আমিরুল হুদা জিন্নাহ ছিলেন কন্ঠশিল্পী। সঙ্গীত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নবরুপীর সাথে যুক্ত ছিলেন। কালজয়ী কন্ঠশিল্পী হেমন্ত কুমারের অনুকরণে গান গেয়ে সুনাম কুড়িয়েছিলেন। ১৯৭১ সালের এপ্রিল মাসে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর অগ্রযাত্রা প্রতিরোধ করতে গিয়ে দশমাইল এলাকায় শহীদ হন।

সতীশ চন্দ্র সরকার মুন : উচ্চাঙ্গ, রবীন্দ্র, নজরুল সঙ্গীতে পারদর্শী  ছিলেন দিনাজপুর শহরের বালুবাড়ি নিবাসী সতিশ সরকার মনু ওরফে মনু সরকার। নাট্যাভিনয়েও দক্ষতার সাক্ষর রেখেছিলেন। এসএন কলেজে চাকুরি করেছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় দিনাজপুরের এই বরেন্য কন্ঠ ও নাট্যশিল্পীকে পাকিস্তানি হানাদার ও রাজাকার বাহিনী অজ্ঞাত স্থানে হত্যা করে।

অধ্যাপক মোঃ ওয়াজেদুর রহমান ওরফে ডাব্লুয়ার : দিনাজপুর সরকারি কলেজের অধ্যাপক ছিলেন। সাধারনভাবে পরিচিত ছিরেন ডাব্লুয়ার স্যার নামে। ঈদগাহবস্তী নিবাসী ডাব্লুয়ার স্যার পাকিস্তানি সেনা ও রাজাকারদের দ্বারা ১৯৭১ সালে শহিদ হন। 

অধ্যাপক মাঃ সোলায়মান : ঘাসিপাড়া নিবাসী অধ্যাপক মাঃ সোলায়মান মুক্তিযুদ্ধের সময় বিরল উপজেলায় পাকিস্তানি হানাদার ও রাজাকারদের হাত শহিদ হন। তার পিতার নাম মোঃ মফিজউদ্দিন।

ডা. মোঃ খারশেদ আলী : স্বনামধন্য চিকিৎসক ছিলেন কালিতলার ডা. মোঃ খারশেদ আলী। মুক্তিযুদ্ধের সময় হানাদারদের গুলিতে শহীদ হন।

আবু আহমেদ আসাদুল্লাহ : শহরর মুন্সীপাড়া নিবাসী আলহাজ¦ আফতাবউদ্দিনের পুত্র আবু আহমেদ আসাদুল্লাহ ছিলেন ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের একজন ছাত্রনেতা। ঢাকার রাজপথে আন্দোলন করতে গিয়ে পুলিশের গুলিতে আহত হয়েছিলেন। পরে দিনাজপুর জেলায় মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে শহীদ হন।

শাহাবুদ্দিন আহমেদ : শহরের পাটুয়াপাড়ায় বাড়ি ছিল একাত্তরে শহিদ হওয়া শাহাবুদ্দিন আহমেদ এর। বুদ্ধিজীবী না হলেও একজন গন্যমান্য ব্যক্তি হিসেবে এলাকায় সু পরিচিত ছিলেন। ব্যবসা করতেন রেশন ডিলারের। তৎকালিন সময়ে রেশন ডিলারদের বিশেষ কদর ও গুরুত্ব ছিল। তাকে হানাদার ও রাজাকার বাহিনী পুনর্ভবা নদীর কাঞ্চনঘাট এলাকায় হত্যা করে।

ডা. আব্দুল গফুর : পাকিস্তানি সেনারা রাজাকারদের সহযোগিতায় ১৯৭১ সালের ২৮ অক্টোবর দিনাজপুর সদরের ঝানজিরা গ্রামে গণহত্যা চালায়। গণহত্যা শেষে তারা ঐ গ্রামের বিশিষ্ট চিকিৎসক ও সমাজকর্মী ডা. আব্দুল গফুরকে ধরে নিয়ে যায়। তার সাথে ঐ এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজকর্মী পেতবউদ্দিন শাহকেও ধরে নিয়ে যায়। কিন্তু ঐ দুই সমাজকর্মী আর কখনো ফিরে আসেন নাই। তাদেরকে হত্যা করা হয় তবে পরিবারের লোকজন লাশ পায় নাই।

রুপচাঁদ রায় : বিরল উপজেলার ৪নং শহরগ্রাম ইউনিয়নের রাজারামপুর গ্রামের বাসিন্দা রুপচাঁদ রায় ছিলেন একজন সমাজকর্মী ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা। মুক্তিযুদ্ধের সময় ৫ জ্যৈাষ্ঠ তারিখে পাকিস্তানি সেনা ও রাজাকাররা রাজারামপুর গ্রামে গিয়ে নারী নির্যাতন ও লুটপাট চালায়। তারা রুপচাঁদ রায়ের দুই হাতে বেয়নেট দ্বারা আঘাত করলে একটি হাত ছুটে যাওয়ার উপক্রম হয়। তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় ধরে নিয়ে গিয়ে পরে হত্যা করা হয়। 

অমিয় গুহ : খানসামা থানা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ছিলেন অমিয় গুহ। সমাজকর্মী ও দলিল লেখক হিসেবেও সুপরিচিত ছিলেন। হাতের লেখা অসাধারন সুন্দর হওয়ায় লোকজন তাকে বিশেষভাবে সমীহ করতেন। পাকিস্তানি সেনারা বেয়নেট দ্বারা খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে তাকে অতি নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করে ১৯৭১ সালে।

ডা. শামসাদ : পার্বতীপুর রেরওয়ের এক জনদরদী চিকিৎসক ছিলেন ডা. শামসাদ। নতুন বাজার এলাকায় বসবাস করতেন। তাকে ছয় দফার প্রতীক হিসেবে ছয় টুকরো করো জ¦লন্ত বয়লারে ঢুকিয়ে হত্যা করা হয়েছিল।

এভাবে দেখা যায় যে, দিনাজপুর জেলার অনেক বুদ্ধিজীবী, অনেক বিশিষ্ট ব্যক্তিকে, সমাজে যাদের কদর ও সুনাম ছিল, সেই রকম কিছু শ্রদ্ধেয় মানুষকে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসরেরা হত্যা করেছিল। সেই মানুষেরা গণহত্যার শিকার হয়েছিলেন মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন পর্যায়ে। তাদের কেউ শিক্ষক, কেউ চিৎিসক, কেউ সাংবাদিক, কেউ সমাজকর্মী ও রাজনীতিক। সবাই নিজ নিজ নামে সুপরিচিত ছিরেন। কিন্তু তাদেরকে বাছাই করে অতি নিষ্ঠুরতার সাথ হত্যা করা হয়েছিল যার মূল লক্ষ্য ছিল বাঙালি জাতিকে মেধাশুন্য করা, বুদ্ধিহীন করা। কিন্তু আশার কথা হলো পাকিস্তানিদের সেই লক্ষ্য শেষ পর্যন্ত পুরণ হয় নাই। বরং বলা যায়, আজকের পৃথিবীতে বাংলাদেশ ও বাঙালি জাতি পাকিস্তান এবং পাকিস্তানিদের চেয়ে শৌর্ষ, বীর্যে, জ্ঞ্যাণে, দক্ষতায়, উন্নয়নে, উৎপাদনে, শিক্ষা, চিকিৎসা, বাসস্থানে অনেক এগিয়ে গেছে। বিশ^ অবাক চোখ তাকিয়ে থাকছে বাংলাদেশের দিকেই। শহিদদের আত্মত্যাগের মধ্য দিয়ে আয়তনে ক্ষুদ্র বাংলাদেশই এখন বিশে^র উন্নয়নশীল দেশগুলোকে আলোর পথ দেখাচ্ছে।

লেখক-আজহারুল আজাদ জুয়েল

সাংবাদিক, কলামিস্ট, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষক

পাটুয়াপাড়া, সদর, দিনাজপুর

০১৭১৬৩৩৪৬৯০/০১৯০২০২৯০৯৭

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email