শুক্রবার ৩ এপ্রিল ২০২০ ২০শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে জামায়াত-পুলিশ সংঘর্ষ ২২ পুলিশসহ আহত ৫৫ জন। আটক ৫

Policeজিল্লুর রহমান মন্ডল পলাশ, গাইবান্ধা

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার খানাবাড়ি গ্রামে আসামী ধরাকে কেন্দ্র করে জামায়াত-পুলিশ সংঘর্ষে ২২ পুলিশ সদস্যসহ অন্তত: ৫৫ জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে ২০ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। গত শনিবার দিবাগত রাত ১টা থেকে ওই সংঘর্ষ শুরু হয়। রোববার সকাল ৬টা পর্যন্ত দফায় দফায় সংঘর্ষ চলে। এ ঘটনায় যৌথ বাহিনী অভিযান চালিয়ে জামায়াত-শিবিরের ৫ নেতাকর্মীকে আটক করেছেন।

 

এলাকাবাসি, পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গত বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারী জামায়াত নেতা দেলোয়ার হোসাইন সাঈদীর বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় রায় ঘোষণার পর জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বামনডাঙ্গা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে হামলা চালান। তারা পুলিশের চারজন কনস্টেবলকে পিটিয়ে হত্যা করেন। এছাড়া একই সময়ে জামায়াত-শিবিরের সহিংসতায় আরও চার ব্যক্তি নিহত হন। ওই ঘটনায় ৩২টি মামলা হয়। এতে ৬০ হাজার জনকে আসামি করা হয়। এরমধ্যে ১১০০ জনের নাম উল্লে­খ রয়েছে। বাকিরা অজ্ঞাত পরিচয়।

 

এসব মামলার আসামিদের গ্রেফতারের জন্য রোববার দিবাগত রাত ১টার দিকে সর্বানন্দ ইউনিয়নের কদমতলী খানাবাড়ি গ্রামে যায় পুলিশের একটি দল। পরে গ্রামের কানার মোড় এলাকার পুলিশ হত্যা মামলার আসামি আজাদুল ইসলামকে (৩০) গ্রেফতার করতে যায়। এ সময় জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা এক জোট হয়ে পুলিশের ওপর হামলা চালান। এক পর্যায়ে তারা পুলিশের ভাড়া করা একটি পিকআপ ভ্যানে আগুন দেন। পরে পুলিশ শতাধিক ফাঁকা গুলি ছোড়ে। এ সময় জামায়াত-শিবিরের সাথে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। এসময় বেশকিছু ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা একপর্যায়ে পুলিশকে অবরুদ্ধ করে ফেলেন। রাতের অন্ধকারে পুলিশ সদস্যরাও সেখান থেকে বেরিয়ে আসতে পারেননি। এসময় আত্মরক্ষার্থে পুলিশ মাঝেমধ্যে ফাঁকা গুলি ছোড়ে।

 

সুন্দরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মোজাম্মেল হোসেন জানান, অবরুদ্ধ পুলিশ সদস্যদের উদ্ধার করতে রাত প্রায় আড়াইটার দিকে রংপুর ও গাইবান্ধা জেলা শহর থেকে অতিরিক্ত পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবির সদস্যরা ঘটনাস্থলে আসেন। তখন থেকে যৌথ বাহিনী কদমতলী খানাবাড়ি গ্রামটি ঘিরে রাখে। রাতে কুয়াশার কারণে তারা দ্রুত এগোতে পারছিলেন না। তিনি আরো জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আছে। যৌথ বাহিনীর সদস্যরা গ্রামটিকে ঘিরে রেখেছে। তাছাড়া আসামীদের গ্রেফতার না করা পর্যন্ত অভিযান অব্যাহত থাকবে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email