শুক্রবার ২০ জুলাই ২০১৮ ৫ই শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

গুহায় আটকে পড়া ফুটবলারদের উদ্ধারে অভিযান শুরু

থাইল্যান্ডের একটি গুহায় দুই সপ্তাহ ধরে আটকে থাকা ১২ জন কিশোর ফুটবলার ও তাদের কোচকে উদ্ধারে অভিযান শুরু হয়েছে।

স্থানীয় সময় রবিবার (৮ জুলাই) সকাল ১০টার দিকে উদ্ধারকর্মীদের একটি দল গুহায় প্রবেশ করেছে বলে জানিয়েছে থাই কর্তৃপক্ষ। এর আগে ভোরে ডুবুরিরা গুহার পাশে সমবেত হন। পরে সেখানে জড়ো হওয়া লোকজনদের সরিয়ে দেয়া হয়। গুহার প্রবেশ মুখে অ্যাম্বুলেন্স প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

উদ্ধারকারী দলের প্রধান নারোংসাক ওসাতানাকর্ন গুহার পাশে সমবেত সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, ধারণা করা হচ্ছে প্রথম দলটিকে বের করে আনতে প্রায় ১১ ঘণ্টা সময় লাগবে। স্থানীয় সময় রাত ৯টার দিকে তাদের প্রথম দলটিকে বের করে আনা সম্ভব হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

চিয়াং রাই রাজ্যের গভর্নর নারোংসাক ওসোত্থানাকর্ন বলেন, আমরা সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিয়েছি। আজ আমাদের ডি-দিবস (গুরুত্বপূর্ণ অভিযানের দিন)। সব পরিবারকে উদ্ধার অভিযান সম্পর্ক জানানো হয়েছে। তারা এ জন্য সমর্থন জানিয়েছে। কিশোরগুলো মানসিক ও শারীরিকভাবে প্রস্তুত আছে।

১৩ জন বিদেশী ডুবুরি এবং থাইল্যান্ডের রাজকীয় নেভির পাঁচজন সিল সদস্য থাকছেন এই বিশেষ উদ্ধারকারী দলে। তারা গুহার ভেতরে এমন এক জায়গা থেকে আটকে পড়াদের উদ্ধার করবেন যেখানে সাঁতরে যেতে হবে।

মূলত বর্ষা মৌসুমের কারণে গুহা মুখ থেকে ওই স্থানে যাওয়ার পথের একটি বড় অংশে পানি জমে আছে। আর পানি জমা এই অংশটি বেশ সরু। এই জায়গা পাড়ি দিতে একজন দক্ষ সাতারু হতে হবে। গত সপ্তাহে আটকে পড়াদের মাঝে অক্সিজেন সরবরাহ করতে গিয়ে মারা যান থাই নেভি সিলের সাবেক এক ডুবুরি।

গত ২৩ জুন বেড়াতে গিয়ে সেখানে আটকে পড়ে ১২ কিশোর এবং তাদের ফুটবল কোচ। তারা গুহায় ঢোকার পর হঠাৎ ভারী বৃষ্টি হয় এবং এতে সৃষ্ট বন্যায় ডুবে যায় গুহামুখ। ভেতরেও ঢুকে পড়ে পানি।

ধারণা করা হচ্ছিল, এই গুহায় কিশোরের দল মাসব্যাপী থাকতে পারবে। তবে ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস থাকায় আশঙ্কা করা হচ্ছে, আবারও বৃষ্টির পানি গুহায় ঢুকে যেতে পারে। তাই দ্রুত তাদের বের করে আনতে আজকের এ উদ্ধার অভিযান।

কিভাবে ওই কিশোরদের গুহা থেকে বের করা হবে তা এখনও পরিস্কার নয়। তবে এই অভিযানে তাদের কিছু সময় ডুব সাতার কাটতে হবে আবার যেখানে পানির উচ্চতা কম সেখানে হেঁটে আসতে হবে। এটা তাদের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ। কারণ, গুহার অনেক জায়গা বেশ সংকীর্ণ এবং বিপজ্জনক।

তবে সরু ডুবন্ত প্যাসেজ দিয়ে ওই দলটিকে বের করে আনতে হবে যা বেশ চ্যালেঞ্জিং। আর ডাইভিং যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে দীর্ঘ সময় পানির নিচ দিয়ে চলাচল করাও আরেকটি চ্যালেঞ্জ। এছাড়া ওই কিশোররা কখনও এ ধরনের যন্ত্রপাতিও ব্যবহার করেনি।

উল্লেখ্য, গত ২৩ জুন ১২ কিশোর ও তাদের কোচ বেড়াতে গিয়ে উত্তরাঞ্চলীয় চিয়াং রাই এলাকার থাম লুয়াং নং নন গুহায় আটকা পড়ে। কিশোরদের বয়স ১১ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে। গুহাটি প্রায় ১০ কিলোমিটার দীর্ঘ। এটি থাইল্যান্ডের দীর্ঘতম গুহার একটি।

এখানে যাত্রাপথের দিক খুঁজে পাওয়া কঠিন। ভারী বর্ষণ আর কাদায় থাম লুয়াংয়ের প্রবেশ মুখ বন্ধ হয়ে গেলে তারা আটকা পড়ে। নিখোঁজের পর গুহার পাশে তাদের সাইকেল এবং খেলার সামগ্রী পড়ে থাকতে দেখা যায়।

নিখোঁজের নয়দিন পর ২ জুলাই দুইজন বৃটিশ ডুবুরি চিয়াং রাই এলাকার থাম লুয়াং নং নন গুহায় তাদের জীবিত সন্ধান পান। পরে থাইল্যান্ড নৌ বাহিনী গুহায় আটকা পড়া কিশোরদের ভিডিও ফেসবুকে পোস্ট করেন। ডুবুরিরা তাদের টর্চলাইটের আলো ফেলে ১৩ জনকেই দেখতে পায়। সে সময় তারা খুব ক্ষুধার্ত ছিল।