শুক্রবার ১৭ অগাস্ট ২০১৮ ২রা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

‘গেইলকে রংপুরের জামাই এবং মেয়র হিসেবে দেখতে চাই।’

আজকে মাঠে অবধারিত ভাবেই ‘দরবেশ বাবা’ উপস্হিত ছিলেন। টিভি ক্যামেরা সঙ্গত কারনেই বারবার তার দিকে তাক করা হচ্ছিলো। একবার দেখা গেলো বাঁ হাত পেছনে নিয়ে তিনি পিঠ চুলকানোর চেষ্টা করছেন। হাত সম্ভবত নির্দিষ্ট জায়গায় পৌঁছাচ্ছিলো না। তাই চেষ্টাটা তাকে পুণ:পুণ করতে হচ্ছিলো। মাঠে তখন তুমুল ‘গেইল’ ঝড়। বলে বলে চার, ছয়। এ দুটো দৃশ্য পাশাপাশি দেখতে দেখতে আমার শুধু মনে হচ্ছিলো, সাধেতো আর বলেনা- ‘প্রতিভা আর চুলকানি আটকে রাখা যায় না।’

শতাব্দী প্রাচিন ক্রিকেট খেলা নিয়ে হাজারও মজার গল্প আমাদের জানা। ইংলিশ কাউন্টি দল ভিক্টোরিয়ার একজন ব্যাটসমানের সজোড়ে মারা বল গিয়ে আটকে গেল বাউন্ডারির মধ্যে দাঁড়িয়ে থাকা একটা গাছের মগডালে। ব্যাটসম্যানরা ক্রমাগত প্রান্ত বদল করে চলেছেন। বল যেহেতু হারায় নাই বরং নিচ থেকে সেটা দৃশ্যমান তাই আইন অনুযায়ি রান নেয়াও থামানো যাচ্ছে না। কিংকর্তব্যবিমূঢ় আম্পায়ার আর কাউন্টি কর্তৃপক্ষ দীর্ঘ আলোচনার পর যখন গুলিটুলি ছুঁড়ে বলটাকে গাছের মাথা থেকে নামিয়ে আনতে পারলেন ততক্ষণে দু’ ব্যাটসম্যান মিলে প্রান্ত বদলেছেন মোট দু’শ ছিয়াশিবার। অর্থাৎ এক বলে রান হলো দু’শ ছিয়াশি। এক বলের এই লম্বা রান নেয়ার গল্পের সাথে সাথে ১৯৩৯ সালে ইংল্যান্ড- সাউথ আফ্রিকার সেই লম্বা খেলাটার কথাও নিশ্চয়ই অনেকের মনে পড়বে। যেটা লাগাতার চোদ্দ দিন ধরে চলার পর অবশেষে অমিমাংসিতভাবে শেষ হয়েছিলো।

স্পোর্টসের এসব মজার গল্পের পাশাপাশি স্পোর্টসম্যানদের সেন্স অব হিউমারের গল্পও আকসার শোনা যায়। গাভাস্কার নিয়মিত ইনিংস ওপেন করতেই নামেন। সেবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথে একটা ম্যাচে ব্যতিক্রম ঘটলো। তিনি সিদ্ধান্ত নিলেন চার-এ নামবেন। দূর্মুখেরা বলে নতুন বলে ম্যালকম মার্শালের মুখোমুখি হতে না চাওয়ার কারনেই নাকি এমন সিদ্ধান্ত। কিন্তু নিয়তির সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধেতো কারও হাত নেই। প্রথম ওভারেই ভারতেই দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান অংশুমান গায়কোয়াড় আর দিলিপ ভেংসরকার আউট। স্কোর বোর্ডে তখন মস্ত একটা শুণ্য। গাভাস্কার নামলেন। ক্রিজে দাঁড়িয়ে তিনি পজিশন ঠিক করে নিচ্ছেন। পাশ দিয়ে হেঁটে যেতে যেতে মার্শাল গাভাস্কারকে উদ্দেশ্যে বললেন, ‘ ম্যান…তুমি যখনই নামোনা কেন স্কোর বোর্ড শুণ্যই থাকবে।’

বাঙ্গালীদের রসবোধও কম না। ‘রসময় গুপ্ত’ ছাড়াও যে রসিক বাঙ্গালীর অভাব নেই শুনুন তেমন একটা গল্প –

শান্তিনিকেতনের উন্নয়ন কাজ চলছে। বর্জ্য নিষ্কাশনের জন্য নর্দমা তৈরী করা দরকার। অর্থ সংকট চলছে। প্রয়োজনীয় টাকা জোগাড়ের জন্য রবীন্দ্রনাথ নিজ দপ্তরে অন্যদের সাথে আলোচনায় বসেছেন। ঠিক এই সময়ে নোবেল প্রাপ্তির খবর আসে তাঁর কাছে। আনন্দিত রবীন্দ্রনাথ বলে ওঠেন, ‘যাক, নর্দমা তৈরীর টাকার চিন্তাটা মিটলো।’

রংপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের জোর প্রচারণা চলছে। উত্তেজনাময় আনন্দমুখর পরিবেশ সেখানে। এরই মধ্যে ‘রংপুর রাইডার্সে’র বিপিএল বিজয় সে আনন্দ উত্তেজনাকে আরও বহুগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। রসিক রংপুরিয়াদের পক্ষ থেকে তাই এবার জোর দাবী উঠেছে-

‘গেইলকে রংপুরের জামাই এবং মেয়র হিসেবে দেখতে চাই।’

হাহাহা…

 

লেখক-সুভাষ দাশ

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ।

বীরগঞ্জ,দিনাজপুর