শনিবার ২৫ মে ২০১৯ ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

গোবিন্দগঞ্জে আদিবাসী স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা, গ্রেফতার ৩

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে আদিবাসী সুশীল মুরমুর স্কুল পড়ৃয়া কুমারী মেয়েকে ধর্ষনের চেষ্টার অভিযোগে ৩ যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। থানা সূত্রে জানা গেছে, গতকাল সোমবার দুপুর ১২টায় গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কামদিয়া ইউনিয়নের তেঘরা (লালোপাড়া) মৌজার শ্রী সুশীল মুরমু এর কিশোরী কন্যা (১৬) বাড়ীতে রেখে বাবা মা ধান কাটা কাজ করার জন্য মাঠে অবস্থান করে। বাড়ীতে কেউ না থাকার সুযোগে তিন বখাটে মুশীলের বাড়ীতে গিয়ে তারা বাড়ীর ভিতরে অসৎ উদ্দেশ্যে প্রবেশ করিয়া রান্না ঘরে ঢুকে আসামী রনী মিয়া আদিবাসী কিশোরী কন্যাকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষণের চেষ্টায় জাপটে ধরে এবং পড়নের জামা কাপড় খোলার চেষ্টা করে। ভিকটিম আত্মরক্ষায় আসামী রনী মিয়ার হাতে কামড় দিলে ও ডাক চিৎকারে লম্পট আসামীরা মোটরসাইকেল নিয়ে পালিয়ে যায়। এ ব্যাপারে ঐ কিশোরীর পিতা সুশীল মুরমু গোবিন্দগঞ্জ থানায় নারী শিশু নির্যাতন আইনে মামলা মামলা দায়ের করে।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে গোবিন্দগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে তিন বখাটেকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতার কৃতরা হলেন, পার্শ্ববর্তী কনিয়াটেকর (ভেউর) গ্রামের মৃত শাহারুল আলমের ছেলে জেহাদ (২৫) তেঘরা তালপাড়া মৌজার সাখাওয়াত হোসেন এর ছেলে রনী মিয়া (২২) সরকার মরমুর ছেলে সনাতন মুরমু (১৮)। বখাটেরা পূর্ব যোগসাজসে পরিকল্পতভাবে ১টি মোটরসাইকেল যোগে বাড়ীর উঠানে এসে পানি পানের ওজুহাতে ভিকটিমের নিকট পানি চায়। এ ব্যাপারে ঐ কিশোরীর পিতা সুশীল মুরমু গোবিন্দগঞ্জ থানায় নারী শিশু নির্যাতন আইনে মামলা মামলা দায়ের করে। এ বিষয়ে গোবিন্দগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ এ কে এম মেহেদী হাসান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, ঘটনার জরিত থাকার সন্দেহে  আসামী জেহাদ (২৫), রনী মিয়া (২২) ও সনাতন মুরমু (১৮) এই ৩ জন বখাটেকে গ্রেফতার করে তাদের জবান বন্দী নিয়ে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।