সোমবার ২২ অক্টোবর ২০১৮ ৭ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

গ্রেনেড হামলার রায়ে যেভাবে তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনা সম্ভব

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান ও খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরীসহ ১৯ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং বিএনপি-জামায়াত সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুস সালাম পিন্টুসহ ১৯ জনের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

বুধবার পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পুরাতন কেন্দ্রীয় কারাগারের সামনে স্থাপিত ঢাকার এক নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিনের আদালত এ রায় ঘোষণা করেন।

এদিকে, যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হওয়ার পর থেকে পুনরায় রাজনৈতিক মহলে প্রশ্ন উঠেছে তারেক রহমানকে কি আদৌ দেশে ফিরিয়ে আনা সম্ভব কিনা।

এ অবস্থায় তারেক রহমানকে ফেরত নিতে হলে প্রথমেই যুক্তরাজ্যের সঙ্গে বাংলাদেশের বন্দি-বিনিময় চুক্তি সম্পাদন করতে হবে বলে জানান লিংকনস সলিসিটরজের প্রিন্সিপাল ব্যারিস্টার নাজির আহমেদ। তিনি বলেন, ব্রিটেনের সঙ্গে বাংলাদেশের বন্দি বিনিময় চুক্তি নেই। সেই হিসেবে বাংলাদেশ থেকে কাউকে নিতে হলে বন্দি চুক্তি করতে হবে। কূটনৈতিক চ্যানেলে কথা বলে তা ঠিক করতে হবে।

তবে যে কোনো সময়ে বাংলাদেশের সঙ্গে বন্দি বিনিময় চুক্তি করতে প্রস্তুত যুক্তরাজ্য। এমন নিশ্চয়তা প্রদান করে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন এখন যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আসামী। ফলে তাকে দেশে ফিরিয়ে আনার ধাপটি আরো সহজ হলো। বন্দি-বিনিময় চুক্তি সম্পাদনের পর রাজনৈতিক আশ্রয়ে থাকা তারেক রহমানকে দেশে ফেরত আনতে ব্রিটেনের আদালতে উপস্থাপনের জন্য উপযুক্ত তথ্য প্রমাণ আমাদের হাতে রয়েছে। তারেক রহমানের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হবার পর ইতিমধ্যে আমরা ইন্টারপোলের সঙ্গেও কথা বলেছি। তারা আমাদের আশ্বস্ত করেছেন, তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে নেয়া যাবে।

এদিকে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ‘রেড অ্যালার্ট’ জারি করেছিলো ইন্টারপোল। আওয়ামী লীগের জনসভায় গ্রেনেড হামলা ও হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় অভিযুক্ত হিসেবে পুলিশের আন্তর্জাতিক সংস্থাটির ‘ওয়ান্টেড’ তালিকায় নাম উঠেছিলো তারেকের।

ইন্টারপোলের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছিলো, বাংলাদেশের বিচার বিভাগ বিচারের মুখোমুখি করার জন্য তারেককে খুঁজছে।
ইন্টারপোলের ওয়েবসাইটে নাম ও ছবিসহ প্রকাশ করা হয়েছিল তারেকের ব্যক্তিগত বিবরণও।

এ বিষয়ে হোসাইল ল এসোসিয়েটসের প্রিন্সিপাল ব্যারিস্টার মনোয়ার হোসাইন বলেন, তারেক রহমান শরণার্থী হিসেবে আছেন। তবে ইন্টারপোল চাইলে ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে কথা বলে তাকে যে কোনো সময়ে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দিতে পারে। এখন শুধু বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্তরাজ্যের বন্দি বিনিময় চুক্তি সম্পাদিত হলেই তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে নেয়া যাবে।