মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ঘনীভূত হচ্ছে ঘূর্ণিঝড়‘পাইলিন’

Cyclone_Catarina_from_the_ISS_on_March_26_2004দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগর ও উত্তর আন্দামান সাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘পাইলিন’ দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগর থেকে কিছুটা পশ্চিমে অগ্রসর হয়েছে। এটি আরও ঘনীভূত হয়ে উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।

আজ শুক্রবার সকাল ১০টায় আবহাওয়া অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে প্রচারিত বার্তায় বলা হয়, ঘূর্ণিঝড়টি ভোর ছয়টার দিকে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ৭৯৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার থেকে ৭১৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং মংলাবন্দর থেকে ৭৪০ কিলোমিটার দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল। ঘূর্ণিঝড়টির কেন্দ্রে ৭৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা গতিবেগ ১৫০ কিলোমিটার, যা দমকা ও ঝোড়ো হাওয়ার বেগে ১৮০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

চট্টগ্রাম, মংলাবন্দর ও কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরের আওতাভুক্ত এলাকাগুলোয় ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত বহাল রাখা হয়েছে। একই সঙ্গে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও  তত্সংলগ্ন গভীর সাগরে মাছ ধরার সব নৌকা ও ট্রলারকে উপকূলের কাছাকাছি নিরাপদ স্থানে থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল নয়টায় ঘূর্ণিঝড়টি চট্টগ্রাম থেকে ৯২০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে, কক্সবাজার থেকে ৮২৫ কিলোমিটার দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্বে এবং মংলাবন্দর থেকে ৯৫০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থান করছিল।

বরগুনা জেলা ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচির উপপরিচালক কিশোর কুমার সরদার প্রথম আলো ডটকমকে জানান, ঘূর্ণিঝড়টির আশপাশের এলাকা খুবই উত্তাল রয়েছে। এটি ঘনীভূত হয়ে উত্তর ও উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হওয়ার সম্ভাবনা থাকায় দেশের সমুদ্রবন্দরগুলোতে ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত জারি করা হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় ‘পাইলিনের’ প্রভাবে দক্ষিণ বঙ্গোপসাগর আজও খুবই উত্তাল রয়েছে। এক সপ্তাহ ধরে বরগুনাসহ উপকূলে থেমে থেমে প্রবল বর্ষণ হলেও গতকাল সকাল থেকে ভাপসা গরম ও গুমোট আবহাওয়া বিরাজ করছে।