মঙ্গলবার ১২ নভেম্বর ২০১৯ ২৮শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় ১০ যুদ্ধজাহাজসহ নৌ কন্টিনজেন্ট প্রস্তুত

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘণ্টায় দেড়শত কিলোমিটারের বেশি গতির প্রবল বিধ্বংসী ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে দেশের উপকূলীয় এলাকায় ঝড়ো হাওয়া বইতে শুরু করেছে। সেই সঙ্গে উপকূলীয় জেলাগুলোতে বৃষ্টিপাত হচ্ছে।  ঘূণিঝড় বুলবুল বাংলাদেশের উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে। শনিবার বিকেলে ঘূর্ণিঝড়ের সবশেষ গতিচিত্র দেখে আবহাওয়াবিদরা বলছেন, একটি মধ্যরাত নাগাদ বাংলাদেশে আঘাত হানতে পারে।

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলে আঘাতের পর পরিস্থিতি মোকাবেলায় জরুরি উদ্ধার, ত্রাণ ও চিকিৎসা সহায়তায় ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে নৌবাহিনী। আইএসপিআর এর সহকারী পরিচালক রাশেদুল আলম খান জানান, বরিশাল, ঝালকাঠি, পটুয়াখালী, বরগুনা, সাতক্ষীরায় পাঁচটি, চট্টগ্রামে নিটি ও সেন্টমার্টিনে দুটি যুদ্ধজাহাজসহ নৌ কন্টিনজেন্ট ও মেডিক্যাল টিম মোতায়নের জন্য প্রস্তুত রয়েছে।

তিনি বলেন, খুলনা অঞ্চলের সমুদ্র উপকূলীয় এলাকায় উদ্ধার ও ত্রাণ তৎপরতা পরিচালনায় বানৌজা কর্ণফুলী, তিস্তা, পদ্মা, এলসিভিপি ০১২ ও এলসিভিপি ০১৩ মোতায়েন করা হয়েছে। পাশাপাশি চারটি নৌ কন্টিনজেন্ট যে কোন জরুরী পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রস্তুত রয়েছে। বিকেলে ঝড়ের সর্বশেষ অবস্থান ও গতিপথ নিয়ে ঢাকার আবহাওয়া অধিদপ্তরে সাংবাদিকদের সামনে আসেন আবহাওয়াবিদরা।

জ্যেষ্ঠ আবহাওয়াবিদ আয়েশা খানম বলেন, “এখন আবহাওয়া উপাত্তসমূহ ক্যালকুলেশন করে বলছি, (ঘূর্ণিঝড়টি) আজ সন্ধ্যা বা মধ্যরাত নাগাদ ভারতের পশ্চিমবঙ্গ বা খুলনা উপকূল অতিক্রম করবে সুন্দরবনের নিকট দিয়ে।” এর আগের দুপুরে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছিল, এটি বঙ্গোপসাগর থেকে উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে সন্ধ্যা নাগাদ ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও খুলনা উপকূল অতিক্রম করতে পারে।

ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানার পর উপকূলে বিরাট জলোচ্ছ্বাস সৃষ্টি হতে পারে। আবহাওয়াবিদ রুহুল কুদ্দুস বলেন, ‘‘ঘূর্ণিঝড়টি যখন উপকূল অতিক্রম করবে তখন সাগরে জোয়ার থাকবে। ফলে স্বাভাবিকের চেয়ে ৫-৭ ফুট বেশি উচ্চতার ঢেউ থাকবে। জোয়ার শুরু হবে বিকেল ৫টা থেকে, পিক টাইম হবে রাত ৯টা। ওই সময় বুলবুল বাংলাদেশ উপকূলে থাকবে।’’

উপকূলীয় জেলা চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, বরগুনা, ভোলা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠী, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরের নিম্নাঞ্চল জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে। ১০ বছর আগে পশ্চিমবঙ্গের সাগরদ্বীপ ও সুন্দরবন এলাকায় আঘাত হেনেছিল ঘূর্ণিঝড় আইলা। সেই ঝড়ের শক্তি ছিল বুলবুলের মতোই। বুলবুলের কারণে মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরসহ ৯ উপকূলীয় জেলায় ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত জারি করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত এই সতর্কতা জারি থাকার কথা জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

ঝড় মোকাবেলায় সার্বিক প্রস্তুতি ইতোমধ্যে নিয়েছে সরকারের বিভিন্ন বিভাগ। উপকূলের ঝুঁকিপূর্ণ জেলাগুলোর ১৮ লাখ মানুষকে ৪ হাজার ৭১টি আশ্রয় কেন্দ্রে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান। স্বাস্থ্য বিভাগের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। মহাবিপদ সংকেত জারির পর সমুদ্রবন্দরগুলোতে কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে; অভ্যন্তরীণ নৌপথেও চলাচল বন্ধ রয়েছে।

ভোলা
দেশের একমাত্র উপকূলীয় দ্বীপজেলা ভোলায় সকাল থেকে থেমে থেমে বৃষ্টি এবং সন্ধ্যা থেকে ঝড়ো হাওয়া বইতে শুরু করেছে। সেখানে সব ধরনের নৌযান বন্ধ থাকায় ভোলা ইলিশা ফেরিঘাটে বহুযাত্রী আটকা পড়ে দুর্ভোগের মধ্যে রয়েছে। জেলার বিচ্ছিন্ন দুর্গম চরাঞ্চলে ২ লক্ষাধিক লোক ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। নদীর তীরবর্তী এলাকায় রেড ক্রিসেন্ট ও সিপিবির পক্ষ থেকে মাইকে ও সাইরেন বাজিয়ে স্থানীয় লোকজনকে সতর্ক করার পাশাপাশি আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ার জন্য বলা হচ্ছে। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মাসুদ আলম ছিদ্দিক জানিয়েছেন, আশ্রয় কেন্দ্রগুলোতে স্থানীয় লোকজনকে আনা হচ্ছে। সেখানে তাদের খাবারের ব্যবস্থা করা হবে। ইতিমধ্যে নগদ ১০ লাখ টাকা, ২ শত মেট্রিকটন চাল, ২ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার বরাদ্দ পেয়েছেন। তিনি জানান, জেলায় ৬৬৮টি আশ্রয়কেন্দ্র, ৮টি কন্ট্রেল রুম খোলা হয়েছে। গঠন করা হয়েছে ৯২টি মেডিকেল টিম। ১৩ হাজার স্বেচ্ছাসেবী সদস্য মাঠে রয়েছেন।

ঝালকাঠী
ঝালকাঠীতে থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে ও দমকা হাওয়া বইছে। জেলার সুগন্ধা ও বিষখালীসহ অন্যান্য নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে। অভ্যন্তরীণ এবং দূরপাল্লার সব রুটে নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে। ঝালকাঠীর ৭৪টি আশ্রয়কেন্দ্রে স্থানীয় সাধারণ মানুষ আশ্রয় নিয়েছে। জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী বিকেলে আশ্রয়কেন্দ্রে থাকা লোকজনের সার্বিক বিষয়ে খোঁজ খবর নেন। শুক্রবার থেকে নদী তীরবর্তী জনসাধারণকে আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়ায় জন্য এলাকায় মাইকিং করা হচ্ছে। জেলায় খোলা হয়েছে ৫টি কন্ট্রোলরুম। বাতিল করা হয়েছে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি। সম্ভাব্য পরিস্থিতি মোকাবেলায় পর্যাপ্ত শুকনা খাবার মজুদ রয়েছে বলে জানান জেলা প্রশাসক।

সিলেট
সিলেটে শুক্রবার মধ্যরাত থেকে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। আর শনিবার সকাল থেকে আকাশ রয়েছে মেঘাচ্ছন্ন। একবারও সূর্যের দেখা মেলেনি। একই সঙ্গে বইছে ঠান্ডা হাওয়া। শনিবার ছুটির দিন হওয়ায় রাস্তা-ঘাটে লোকজনের আনাগোনা কম। বৃষ্টির কারণে সংস্কার চলমান নগরের বেশিরভাগ রাস্তা কাদা-মাটিতে একাকার হয়ে গেছে। ফলে চলতে ভোগান্তিতে পড়ছে জনসাধারণ। সিলেট আবহাওয়া অফিস বলছে, ‘বুলবুল’ যত এগিয়ে আসছে, ততই এর প্রভাব বাড়বে। রাতে ভারি বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। একই সঙ্গে দমকা হাওয়া বইবে। জ্যৈষ্ঠ আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ চৌধুরী বলেন, সিলেটে ভারি বৃষ্টিপাতের সঙ্গে ঝড়ো হাওয়া বইতে পারে। তবে বেশি ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা নেই। চট্টগ্রামে তিনটি জাহাজ বানৌজা শাহজালাল, শাহ পরান ও অতন্দ্র দ্রুততম সময়ে জরুরি পরিস্থিতি মোকাবেলায় ক্ষতিগ্রস্থ উপকূলীয় এলাকায় ত্রাণসামগ্রী নিয়ে গমনের জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে। ইতিমধ্যে বানৌজা সমুদ্র জয় ও সমুদ্র অভিযান জরুরি ত্রাণসামগ্রী নিয়ে সেন্টমার্টিনে অবস্থান করছে। আইএসপিআর থেকে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, খুলনা নৌ অঞ্চল থেকে মোতায়েনকৃত জাহাজসমূহ বরিশাল, ঝালকাঠি, পটুয়াখালী, বরগুনা, সাতক্ষীরার ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাসমূহে ২০০০ প্যাকেট জরুরি খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করবে। যার প্রতিটি প্যাকেটে রয়েছে সাড়ে ৭ কেজি চাল, দেড় কেজি ডাল, দেড় লিটার সয়াবিন তেল, ১ কেজি চিড়া, এক কেজি মুড়ি, আধা কেজি গুড়, আধা কেজি বিস্কুট, ২ লিটার বিশুদ্ধ পানি, ২ ডজন মোমবাতি, ২ ডজন দিয়াশলাই বক্স এবং জীবন রক্ষাকারী প্রয়োজনীয় স্যালাইন ও ঔষধ। দুর্গত এলাকায় জরুরী চিকিৎসা সহায়তার জন্য পাঁচটি বিশেষ মেডিক্যাল টিম গঠন করা হয়েছে। তারা ক্ষতিগ্রস্থ এলাকায় বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা, জীবন রক্ষাকারী ঔষধ ও খাবার স্যালাইন বিতরণের কাজে নিয়োজিত থাকবে। পাশাপাশি ৪টি নৌ কন্টিনজেন্ট যে কোন জরুরি পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রস্তুত রয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ইতিমধ্যে  সেন্টমার্টিনে নৌবাহিনীর ২টি যুদ্ধজাহাজ সমুদ্র জয় ও সমুদ্র অভিযান ২ টন চিড়া, ১ টন মুড়ি, ২ টন চাল, দেড় টন গুড়, ৫০০ কেজি ডাল, ৭০০ কেজি চিনি, ৫০০ প্যাকেট মোমবাতি, ২৫০ ডজন দিয়াশলাই নিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের সহায়তার জন্য প্রস্তুত রয়েছে। পাশাপাশি সেন্টমার্টিনের ফরওয়ার্ড বেসের নৌ সদস্যরা  জরুরী উদ্ধার ও ত্রাণ কার্য পরিচালনার জন্য প্রস্তুত রয়েছে। চট্টগ্রাম ও ঢাকায় উদ্ভুত পরিস্থিতি মোকাবেলায় যুদ্ধজাহাজ ও নৌ কন্টিনজেন্ট অনুরূপ ত্রাণ ও চিকিৎসা সহায়তা নিয়ে প্রস্তুত রয়েছে। ঘূর্ণিঝড় পরবর্তী উদ্ধার তৎপরতায় নৌবাহিনী তিনস্তরের ব্যাপক কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় ও স্থানীয় প্রশাসনের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগের মাধ্যমে এ সকল কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।