শুক্রবার ৬ ডিসেম্বর ২০১৯ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ঘোড়াঘাটে মাঠে মাঠে শীতের সবজীর সমারোহ

মোঃ শফিকুল ইসলাম, ঘোড়াঘাট (দিনাজপুর)  ॥ এসেই গেল শীত। ঘোড়াঘাটে মাঠে মাঠে শীতের সবজীর সমারোহ চলছে। রাতের কুয়াশা শীতের আগমন জানাচ্ছে। দিনে না হলেও সন্ধ্যার পর কিছু কিছু শীতের আমেজ বুঝা যাচ্ছে। সেই সঙ্গে সঙ্গে মাঠে মাঠে শীতকালীন নানান সবজীর সমারোহ দেখা যাচ্ছে। উত্তর ও উত্তর পশ্চিম অঞ্চল থেকে ইতিমধ্যেই মৌসুমী বায়ু বিদায় নিয়েছে। কার্তিক মাস শেষের দিকে। প্রকৃতিতে আসছে হেমন্তকাল। দেশে পৌষ-মাঘকে শীতকাল ধরা হলেও হেমন্তের গুটি গুটি পায়ে আমাদের মাঝে আসে শীতের আমেজ। কিছুদিন হলো দিনে রোদ আর গরমের পর রাতের প্রাকৃতিতে শুরু হয়েছে শীতের হিমেল পরশের গা শীর শীর বাতাস। অপরুপ হেমন্তের ভালো লাগা সকালের মিষ্টি রোদ পড়ছে। মাঠে চাষ  করা নানান সবজীর পাতার গায়ে। কুয়াশায় সকালে শিশির সিক্ত মাটিতে চাষ হওয়া সবজীর পাতা চিকচিক করছে। বরেণ্য অঞ্চল ঘোড়াঘাটে অধিকাংশ জমি উঁচু। শাক সবজী চাষের উপযুক্ত মাটি। এখানকার কৃষকরা একই জমিতে ধান, গম, ভুট্টার পাশা পাশি সবজি চাষে ব্যাপক তৎপর। মাঠগুলো ঘুরে দেখা গেছে। লাল শাক, পুইশাক, মুলা শাক, বরবটি, লাউ, বাধাকপি, ফুলকপি ও আগাম জাতের আলু। কৃষকরা রাত দিন পরিচর্যা করছে যত তাড়াতাড়ি বাজারে তোলা যায়। যে কৃষক যত তাড়াতাড়ি বাজারে তাদের উৎপাদিত শাক সবজী তুলতে পারে সে তত বেশী দামে বিক্রি করতে পারে। এ নিয়ে এখন কৃষকদের মধ্যে এক প্রতিযোগিতাই শুরু হয়েছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এখলাস হোসেন সরকারের সাথে কথা হলে তিনি জানান, ঘোড়াঘাটের মাটি শাক সবজী চাষের জন্য খুবই উপযোগী। এখানকার দোআঁশ মাটিতে সব ধরনের ফসল ভালো হয়। চলতি বছর এ উপজেলায় ৫’শ ৫০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের শাক সবজী চাষের লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে। বিশেষ করে এখানে কয়েক বছর থেকে উৎপাদিত লাউ ট্রাকে ট্রাকে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে যাচ্ছে। চাষীরা শাক সবজী চাষ করে ভালো মুনাফা অর্জন করছে।