শুক্রবার ৬ ডিসেম্বর ২০১৯ ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চকলেটের লোভ দেখিয়ে ধর্ষণের পর শিশুকে হত্যা

দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুরের পার্বতীপুরে সাড়ে ৩ বছরের শিশু কন্যাকে চকলেটের প্রলোভন দিয়ে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে আমজাদ হোসেন নামে এক যুবকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায় আমজাদ হোসেন শিশুটিকে হত্যার পর লাশ ঘরে তালাবদ্ধ রেখে ধর্ষক নিজেই এলাকায় নিখোঁজের মাইকিংয়ে অংশ নেন। পরে সুকৌশলে সটকে পড়ে সে।  ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের রঘুনাথপুর মধ্যডাঙ্গাপাড়া গ্রামে। পরে নিহত ওই শিশুকে পার্বতীপুর মডেল থানা পুলিশ উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী বিক্ষোভ করে ওই ধর্ষকের বাড়ীর আসবাবপত্র ভাংচুর করে।

নিহতের পরিবার ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, গতকাল শনিবার (৩০ নভেম্বর) বেলা ৩টা থেকে ওই শিশুকন্যা নিখোঁজ ছিল। বেলা ৪টার পর তাকে খুজে না পেয়ে এলাকায় মাইকিংয়ের মাধ্যমে শিশুর নিখোঁজের বিষয়টি প্রচার করে তার পরিবার। প্রচারের সময় একই এলাকার আমিনুল হকের ছেলে ধর্ষক আমজাদ হোসেন নিজে মাইকিংয়ের ভ্যানে ছিলো বলে জানান প্রত্যক্ষদর্শীরা।  এ দিকে মাইকিংয়ের সময় শাহিনুর আলম নামের ওই ব্যক্তি মোবাইল ফোনে ধর্ষকের পিতা আমিনুল হককে ঘটনার বিবরণ দেয়ার সময় তার  কথোপকথন শুনতে পায় এলাকাবাসী। এতে তাদের মধ্যে সন্দেহের সৃষ্টি হয়। একই এলাকার রাশেদুল ইসলামের ছেলে জিহাদ জানায়, খেলার সময় অভিযুক্ত আমজাদ হোসেন নামে ওই যুবক চকলেটের প্রলোভন দেখিয়ে শিশুটিকে ঘরের নিয়ে যায়। তার কথার ভিত্তিতে শিশুটির পরিবার ধর্ষক আমজাদের বাড়ীতে গেলে তালাবদ্ধ দেখতে পাওয়ায় পুলিশে খবর দেন।  পুলিশ রাত আনুমানিক পৌনে ৮টায় তার শয়নঘরের দরজা ভেঙ্গে টেবিলের নিচ থেকে রক্তাক্ত অবস্থায় ওই শিশুর নিথরদেহ পরে থাকতে দেখে।  পুলিশ তাকে উদ্ধার করে পার্বতীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় নিহতের পিতা বাদী হয়ে ধর্ষক আমজাদ হোসেন, চাচা শাহিনুর আলম ও দাদী মমিনা বেগম তিনজনের নাম উল্লেখ করে পার্বতীপুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। 

পার্বতীপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোখলেছুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে গতকাল শনিবার রাতেই অপর আসামি শাহিনুর আলমকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পলাতক ধর্ষক আমজাদসহ তার দাদীকে গ্রেফতারের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।