বুধবার ১৪ নভেম্বর ২০১৮ ৩০শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

চাঁদাবাজদের রুখতে বিশেষ নজরদারিতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী

ঈদের মৌসুমে জনগণ আতঙ্কে থাকে তাদের নিরাপত্তা নিয়ে। কারণ এসময় নগরীর কিছু জায়গায় বেড়ে যায় ছিনতাইকারীর দৌরাত্ম। শুধু তাই নয় বেড়ে যায় চাঁদাবাজদের আনাগোনা। সড়ক মহাসড়কে তারা নির্বঘ্নে চলাচলে বাধা সৃষ্টি করে। এই বছর সব থেকে বেশি নিরাপত্তার দিকে জোর দিয়েছে সরকার। দেশের সকল প্রকার অরাজকতাপূর্ণ ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারী কর্মকান্ড দমন করতে কঠোর পর্যায়ে রয়েছে দেশের আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

সড়ক মহাসড়কে কোনো চাঁদাবাজ চক্র যাতে যাত্রী ও পরিবহন চালকদের হয়রানি করতে না পারে সেজন্য সড়ক মহাসড়কে রয়েছে বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। তারা সময় মতো নজর রাখছেন এবং তদারকি করছেন। সড়ক মহাসড়ক ছাড়াও ঈদকে কেন্দ্র করে চাঁদাবাজ চক্র যাতে বিক্রেতাদের কাছ থেকে অবৈধ উপায়ে অর্থ সংগ্রহ করতে না পারে সে দিকেও সজাগ দৃশ্য রয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর।

ঈদের মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয় ঈদের নামাজের মাধ্যমে। সারা দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ছোট বড় অনেক ঈদের জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে। দেশের সর্ববৃহৎ ঈদের জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া ঈদগায় ময়দানে। সেখানে যাতে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেজন্য সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়েছে। দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে যে ঈদের আগে ঘরমুখো মানুষের যাত্রা ও ঈদ শেষে ঢাকামুখো মানুষের যাত্রা নিরাপদ করতে সব ধরণের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। দেশের বিভিন্ন জায়গায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। ঢাকা সহ দেশের সব গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় মোতায়েন থাকবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকরী বাহিনী। সব মিলিয়ে নিরাপদ ও আনন্দঘন পরিবেশের মধ্যে দিয়ে সবাই ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিবে এই প্রত্যাশা সংশ্লিষ্ট সকলের।