শুক্রবার ১০ জুলাই ২০২০ ২৬শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চামড়া নিয়ে বিপাকে ডিমলার ব্যবসায়ীরা

জাহাঙ্গীর রেজা, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি : এবারে চামড়াে দাম একেবারেই কম হওয়ায় ক্রয়কৃত চামড়া নিয়ে বিপাকে পড়েছে নীলফামারী জেলা ডিমলা উপজেলার ব্যবসায়ীরা। মৌসুমী ব্যবসায়ীরা যে দামে চামড়া সংগ্রহ করেছেন বিক্রিতে সে পাচ্ছেনা । ব্যবসায়ীরা জানান, ঈদের নামাজ আদায়ের পর ঘরে বসে থেকে কি লাভ, তাই কোরবানির পর মানুষের বাড়ি-বাড়ি গিয়ে চামড়া সংগ্রহ করছি। শঙ্খা ও প্রতিকুল পরিবেশের মধ্যে দিয়ে বকেয়া টাকা পাওয়ার আশায় এখনও কোন রকমে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছি আমরা। এবছর একেবারেই চামড়ার দাম না থাকায় ব্যাপক লোকসানের আশংকা করছি। ব্যবসায়ীরা আরো জানান, কমদামে চামড়া কিনলেও পরিবহন, লেবার, লবনসহ রক্ষণাবেক্ষণ খরচ গত বছরের চেয়ে অনেক বেশি হওয়া শঙ্খিত আছি আমরা। ডিমলা উপজেলার চামড়া ব্যবসায়ী মহাসীন আলী ও গো-মাংস ব্যবসায়ী সাইফুর রহমান বলেন, ভারতে চামড়ার দাম বাংলাদেশের থেকে অনেক বেশি। তাই অসাধু ব্যবসায়ীরা অধিক লাভের আশায় এ চামড়া সংগ্রহ করে গোপনে পাচারের চেষ্টা করবে। মূলত এ অঞ্চলে কোরবানির চামড়া বিক্রি করে যে অর্থ পাওয়া যায়, তা গরীব-দুঃখী, এতিমদের মাঝে বন্টন করে দেওয়া হয়। গতবারে একটু হলেও দাম দিয়ে বিক্রি করেছিল চামড়া কিন্তু এ বছর একেবারেই কোরবানির পশুর চামড়ার দাম না থাকায় গরীব-দুঃখীরাই বঞ্চিত হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা ঈদের দিন উপজেলার বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় ঘুরে-ঘুরে কাঁচা চামড়া সংগ্রহ করে থাকেন। জানা গেছে, এবার গরুর চামড়া বিক্রি হয়েছে ২০০ থেকে ৪০০ টাকা ও খাসি ২০ থেকে ৩০ টাকা দামে। যদিও কয়েক বছর আগে একটি গরুর চামড়া ১৫০০ থেকে ২ হাজার ও খাসির অর্থাৎ ছাগল-ভেড়ার চামড়ার মূল্য ছিলো ২৫০ টাকা। সরদারহাটের ব্যবসায়ী আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, গতবছর সামান্য দাম থাকলেও এবছর একেবারেই দাম নেই চামড়ার। তিনি আরো বলেন, এবার যে চামড়া গুলো সামান্য মূল্যে সংগ্রহ করছি তা আদো বিক্রি করতে পারবো কি না সন্দেহ আছে। চামড়া বিক্রির টাকা গরীব, এতিমদের হক, আর চামড়ার এতো দাম কম হলো যে, ওই সব গরীবদের ভাগ্যে ১/২ টাকা জোটবে। ব্যবসায়ীরা বলেন, চামড়া বাংলাদেশের জাতীয় সম্পদ। প্রতি বছর বাংলাদেশ হতে কয়েক হাজার কোটি টাকার চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য বিদেশে রপ্তানি হয়ে থাকে যা বাংলাদেশের অর্থনীতিতে উল্লেযোগ্য অবদান রাখছে। কিন্তু চামড়া কেন নির্ধারিত মূল্যে সংগ্রহ করা হচ্ছে না, তাই সরকারের কাছে জোর দাবী করেন ব্যবসায়ীরা, যেন সরকারীভাবে চামড়ার নির্ধারিত মূল্য নির্ধারন করা হয়। চামড়া ভারতে পাচার বিষয়ে ডিমলা উপজেলার থানারহাট কম্পানী কমান্ডার নায়েক সুবেদার মোঃ নজরুল ইসলাম এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, সম্ভব্য চামড়া পাচারের রুটগুলো চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে ঈদের দিন থেকেই আমাদের প্রতিটি পয়েন্টের বিওপিকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে তাই আমি আমার জায়গা থেকে সজাগ আছি।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email