শনিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

চিকিৎসাসেবায় ভালো কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ বীরগঞ্জে স্বাস্থ্য বিভাগের ৩১ কর্মীকে সন্মাননা প্রদান

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক ॥ চিকিৎসাসেবায় ভালো কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য বিভাগের ৩১ জন কর্মীকে সম্মাননা প্রদান করেছে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ জাহাঙ্গীর কবীরের উদ্যোগে এই ৩১ জন কর্মীর হাতে সন্মাননা ক্রেস্ট ও ম্যাডেল তুলে দেন যুগান্তরের দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি একরাম তালুকদার।

বুধবার দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ জাহাঙ্গীর কবীর বলেন, হাসাপাতাল ও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীদের স্বাস্থ্য সেবায় নিরলস পরিশ্রম ও দায়িত্বে একাগ্রতার কারনে ইতিমধ্যেই বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সুচিকিৎসা নিশ্চিত করা সম্ভব হয়েছে। যার সুফল ভোগ করছে এই উপজেলার মানুষ। প্রসুতিদের স্বাভাবিক প্রসব, নিরাপদ মাতৃত্ব ও হাসপাতালে সুচিকিৎসা সেবা নিশ্চিতের ক্ষেত্রে ইতিমধ্যেই এই হাসপাতাল স্বাস্থ্য বিভাগে সুনাম কুড়িয়েছে। আর এর জন্য সবচেয়ে যাদের অবদান, তারা হচ্ছেন এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীরা।

তিনি বলেন, হাসপাতালের কর্মীদের স্বাস্থ্য সেবায় আরও উৎসাহিত করার জন্য এই সন্মানার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তিনি স্বাস্থ্য সেবায় বীরগঞ্জ হাসপাতালের অনন্য অবদানের কথা উল্লেখ করে সংবাদ প্রকাশের জন্য যুগান্তর পত্রিকার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি যুগান্তরের দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধি একরাম তালুকদার বলেন, বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি স্বাস্থ্য সেবায় অনন্য ভূমিকা রাখার পাশাপাশি হাসপাতাল কমপ্লেক্সে রোগী ও রোগীর লোকজনদের জন্য লাইব্রেরী স্থাপন করে সারাদেশে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। তিনি স্বাস্থ্য সেবায় নিরলস পরিশ্রম ও দায়িত্বে একাগ্রতার কারনে হাসপাতালের কর্মীদের প্রতি ধন্যবাদ জানান।

এসময় আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডাঃ মোঃ মাহমুদুল হাসান পলাশ, মেডিক্যাল অফিসার ডাঃ আফরোজ সুলতানা লুনা, ডাঃ সমরেশ দাস, যুগান্তরের বীরগঞ্জ প্রতিনিধি বিরল প্রতিনিধি আতিউর রহমান, বীরগঞ্জ প্রতিদিন পত্রিকার সম্পাদক মো. আব্দুর রাজ্জাক ও বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।