শুক্রবার ২৩ অক্টোবর ২০২০ ৭ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে ইঁদুরের উপদ্রব আতঙ্কে কৃষক

মো. রফিকুল ইসলাম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে এ বছর তুলনামূলক আবাদ ভালো হয়েছে রোপা আমনের। এ নিয়ে কৃষকের আনন্দ থাকলেও কাঙ্খিত ফলন ঘরে তোলা নিয়ে রয়েছেন উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায়। এর অন্যতম কারণ হলো ইঁদুর। ইঁদুরের চরম উপদ্রব বেশ সংশয়ে ফেলেছে চাষিদের। সরজমিন রোপা আমনচাষিদের সঙ্গে আলাপে কাঙ্খিত উৎপাদন ও ফলন ঘরে তোলা নিয়ে তারা এমন সংশয়ের কথা জানান। এ বছর পর্যাপ্ত সেচ সুবিধা, অনুকূল আবহাওয়া, পর্যাপ্ত সার, বীজ ও কীটনাশকের যোগান, ধানের মূল্য তুলনামূলক বৃদ্ধি ইত্যাদি নানা কারণেই দীর্ঘদিন পর আমনের অনেকটা ভালো আবাদে উৎফুল্ল চাষিরা। তবে ফলনপ্রাপ্তির সময় যত ঘনিয়ে আসছে ততই দুশ্চিন্তা বাড়ছে চাষিদের।

চাষিরা জানালেন অন্যান্য বছর পানি ও রোগ-বালাইয়ের সমস্যা প্রকট থাকলেও এবছর উপদ্রব ইঁদুরের। তারা জানালেন, প্রতি বছরই ইঁদুরের উপদ্রব কমবেশি থাকলেও এ বছর ইঁদুরের উপদ্রব বেড়েছে মারাত্মকভাবে। প্রতিদিন উঠতি কিংবা থোড় ওয়ালা ধান যেভাবে কাটছে ইঁদুর। তাতে কাঙ্খিত ধান ঘরে তোলা নিয়ে তাদের শঙ্কার শেষ নেই। নানা প্রতিকূলতার মধ্যেও এ বছর তাদের আবাদকৃত জমিতে আমনের ফসল অনেকটা ভালো হয়েছে। তবে গেল কয়েকদিন থেকে ইঁদুরের চরম উপদ্রবে তারা অতিষ্ঠ। আমন রোপণ করায় কার্তিক-অগ্রহায়ণ মাসে ধান কাটবেন কৃষকেরা। তবে ইঁদুরের উপদ্রবে চাষিদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণকৃত ধান ব্যাহত হতে পারে এখন এমন দুশ্চিন্তা তাদের। বিষটোপ, পলিথিনের নিশানা আর কলাগাছ পুঁতে দিয়েও কোন কুলকিনারা করতে না পেরে জমির ফসল রক্ষায় এবার ‘বাঁশের চোঙা ফাঁদ’ দিয়ে ইঁদুর নিধনে সুফল পাচ্ছেন উপজেলার কৃষকেরা। ধানক্ষেতে কালো ইঁদুরের উপদ্রব দিনদিন বেড়ে যাওয়ায় কৃষকেরা দিশেহারা হয়ে এ ‘বাঁশের চোঙা ফাঁদ’ ব্যবহার করছেন।

কয়েকজন কৃষক জানান, ইঁদুর ধানগাছের গোড়া কেটে নষ্ট করায় তাদের চিন্তার কোন শেষ নেই। দুই সপ্তাহ আগেও ধানক্ষেতে ইঁদুরের আলামত দেখে বিষটোপ, পলিথিনের নিশানা গেড়ে এবং কলাগাছ পুঁতে দিয়ে  ইঁদুর তাড়ানোর চেষ্টা করেন। এসব পদ্ধতিতেও তেমন কাজ হচ্ছে না। এমতাবস্থায় উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. মাহমুুদুুল হাসান ভ্রাম্যমাণ ফসল ক্লিনিক চালুর মাধ্যমে স্থানীয় প্রযুক্তি (বাঁশের চোঙা ফাঁদ) ব্যবহার করে কিভাবে ইঁদুর নিধন করা যায় সে বিষয় নিয়ে কৃষকদের সাথে আলোচনা করেন এবং বাঁশের চোঙা দিয়ে কিভাবে ফাঁদ তৈরি করা যায় সে বিষয়ে পরামর্শ দেন। এরপর কৃষকরা শুরু করেন বাঁশের চোঙা ফাঁদ ব্যবহার।

বাঁশের চোঙাসহ ইঁদুর হাতে ক্ষেত থেকে আসা উপজেলার সাইতাড়া ইউপির জগৎনাথপুর  এলাকার কৃষক মমিনুল ইসলাম বলেন, আমার ৪বিঘা জমির ধানগাছ কেটে নষ্ট করেছে। কয়েকদিনে আমি ৪০টি ইঁদুর মেরেছি। একই এলাকার কৃষক রহিমউদ্দিন বলেন, গত ১০দিনে ১৬টি ইঁদুর মেরেছি। নশরতপুর ইউনিয়নের নশরতপুর গ্রামের রায়হান ইসলাম জানান, ইঁদুরের উপদ্রবে ধানক্ষেত নিয়ে চিন্তায় রয়েছি। কাঙ্খিত ফলন হবে না।

আউলিয়াপুকুর ইউপির কয়েকজন কৃষক জানায়, বাঁশের তৈরি চোঙা ফাঁদ দিয়ে তাঁরা গত ১০দিনে অন্তত ২০০টি ইঁদুর মেরেছেন। প্রতিদিন বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ধানক্ষেতে বিশেষ যন্ত্রটি একাধিক স্থানে বসিয়ে দিয়ে আসেন। পরদিন সকালে যান ফাঁদে আটকানো ইঁদুর খুলতে।  উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মো. মাহমুদুল হাসান ইঁদুরের উপদ্রবের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, উপজেলায় ‘বিচ্ছিন্নভাবে বেশ কিছু এলাকায় ইঁদুর দেখা গেছে। কৃষকদের সম্মিলিতভাবে ইঁদুর নিধন করতে হবে। বাঁশের চোঙা ফাঁদ দিয়ে ইঁদুর নিধন প্রক্রিয়া অনেকটা কার্যকর। এ পদ্ধতি ব্যবহার করে অনেকেই ভালো সুফল পাচ্ছেন। তাছাড়া চোঙা ফাঁদ ব্যবহারে কৃষকদের ভ্রাম্যমাণ কৃষি বান্ধব চিকিৎসা সেবা নিয়মিত দিয়ে যাচ্ছি।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email