শনিবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৭ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে জমে উঠছে কোরবানীর পশুর হাট

মো. রফিকুল ইসলাম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: আর ক’দিন পরেই কোরবানীর ঈদ। এই ঈদে মানুষের মূল আকর্ষণ হচ্ছে কোরবানীর গরু। সাদ আর সাধ্যের সমন্বয় ঘটিয়ে লোকজন পছন্দের পশু ক্রয় করে কোরবানী দিয়ে থাকেন। তাই ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে চিরিরবন্দর উপজেলার রাণীরবন্দরহাট, বিন্যাকুড়িহাট, কারেন্টহাটসহ ক’টি হাটে কোরবানীর পশু বেচাকেনা বেশ জমে উঠেছে। কোরবানীর পশুর হাটগুলোতে ক্রেতাদের উপচেপড়া ভীড় দেখা যাচ্ছে। কোরবানীর জন্য কোরবানীর জন্য গরু, ছাগল ও ভেড়ার ক্রেতাদের চাহিদার তুলনায় পশু ভালো মানের আমদানি হচ্ছে হাটগুলোতে। গত বছরের তুলনায় চলতি কোরবানীর জন্য পশুর মূল্য অনেক কম হওয়ায় ক্রেতারা পশু ক্রয় করছেন আনন্দে। ঈদের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে উপজেলার হাটগুলোতে পশু ক্রেতাদের ভীড় ততই বাড়ছে। ক্রেতারা সামর্থ্যানুযায়ী পশু কেনার জন্য বিভিন্ন হাট চষে বেড়াচ্ছেন। বিক্রেতারা কাঙ্খিত মূল্য পাওয়ার আশায় পশু নিয়ে ছুঁটছেন এ হাট থেকে ও হাটে। দেশিয় গরুর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। তবে এসব পশুর দাম রয়েছে নাগালের মধ্যেই। এদিকে, ঈদের বেশ ক’দিন বাকি থাকায় বাজারে গরু বেশি থাকলেও ক্রেতারা ক্রয় না করে দর-দাম করে চলে যাচ্ছেন। গরু বিক্রেতারা বলছেন, ঈদ ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে গরুর বাজার জমে উঠবে। গত ১৬ই আগস্ট বৃহস্পতিবার উপজেলার প্রসিদ্ধ হাট রাণীরবন্দর হাটে সরজমিন ঘুরে দেখা গেছে, বিভিন্ন স্থান থেকে বিক্রেতারা সারি সারি গরু সাজিয়ে রেখেছেন। বিক্রেতারা বিভিন্ন বর্ণের ছোট-বড় গরু হাটে তুলছেন।

আবুল কালাম, হামিদুল হকসহ ক’জন ক্রেতা জানান, ঈদের এখনো বেশ ক’দিন বাকি রয়েছে। তাই এখন গরু দেখতে এসেছি। দামে-দরে মিললে হয়তো ক্রয়ও করতে পারি। অন্যদিকে সবুজ, সামসুল হক নামে গরু বিক্রেতা জানান, এখনো বাজারে গরু বেচাকেনা তেমন হচ্ছে না। ঈদের দিন ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে গরু বেচাকেনা জমে উঠবে।