শনিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ ১লা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে নেরিকা মিউট্যান্ট জাতের ধান চাষ দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে

দেলোয়ার হোসেন বাদশা, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) সংবাদদাতাঃজলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে যাওয়ায় কৃষক যখন সেচ নিয়ে চিন্তিত ঠিক সেই সময়ে দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে মাঠে মাঠে শোভা পাচ্ছে খরা সহিষ্ণু স্বল্প জীবনকালের উচ্চ ফলনশীল ধান ‘নেরিকা মিউট্যান্ট’। উৎপাদন খরচ কম অধিক উৎপাদন, ভূমির উর্বরতম মান বৃদ্ধি সুষম সার ব্যবহার ও সরকারিভাবে কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে নেরিকা ধানের বীজ ও সার প্রদান করার ফলে নতুন জাতের এই ধান নিয়ে চিরিরবন্দর কৃষকদের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে প্রবল আগ্রহ। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাদের একান্ত উদ্বুদ্ধকরণে উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে প্রায় ১৬ হেক্টর জমিতে নেরিকা মিউট্যান্ট ধানের চাষ করা হয়েছে। গত বিগত বছর গুলোতে এ উপজেলায় স্বল্প পারিমান জমিতে নেরিকা আবাদ হলেও এবছর প্রায় তিনগুণ আবাদ হয়েছে। বিগত বছরের তুলনায় এ বছর ফলনও বেশি হয়েছে বলে চাষী ও উপজেলা কৃষি অফিস সূত্র জানা গেছে। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার মো: মাহমুদুল হাসান বলেন, নেরিকা ধান সম্বন্ধে কৃষকদের পর্যাপ্ত পরামর্শ ও উদ্বুদ্ধ করার কারনে পর্যায়ক্রমে এ ধানের চাষ ও ফলন উভয়ই বৃদ্ধি পাচ্ছে। আগামী বছরগুলোতে এই ধান চাষে কৃষক বেশি আগ্রহী হবে বলে তিনি আশাবাদী।

দেলোয়ার হোসেন বাদশা, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) সংবাদদাতাঃ
জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে যাওয়ায় কৃষক যখন সেচ নিয়ে চিন্তিত ঠিক সেই সময়ে দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে মাঠে মাঠে শোভা পাচ্ছে খরা সহিষ্ণু স্বল্প জীবনকালের উচ্চ ফলনশীল ধান ‘নেরিকা মিউট্যান্ট’। উৎপাদন খরচ কম অধিক উৎপাদন, ভূমির উর্বরতম মান বৃদ্ধি সুষম সার ব্যবহার ও সরকারিভাবে কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে নেরিকা ধানের বীজ ও সার প্রদান করার ফলে নতুন জাতের এই ধান নিয়ে চিরিরবন্দর কৃষকদের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে প্রবল আগ্রহ। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাদের একান্ত উদ্বুদ্ধকরণে উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে প্রায় ১৬ হেক্টর জমিতে নেরিকা মিউট্যান্ট ধানের চাষ করা হয়েছে। গত বিগত বছর গুলোতে এ উপজেলায় স্বল্প পারিমান জমিতে নেরিকা আবাদ হলেও এবছর প্রায় তিনগুণ আবাদ হয়েছে। বিগত বছরের তুলনায় এ বছর ফলনও বেশি হয়েছে বলে চাষী ও উপজেলা কৃষি অফিস সূত্র জানা গেছে। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার মো: মাহমুদুল হাসান বলেন, নেরিকা ধান সম্বন্ধে কৃষকদের পর্যাপ্ত পরামর্শ ও উদ্বুদ্ধ করার কারনে পর্যায়ক্রমে এ ধানের চাষ ও ফলন উভয়ই বৃদ্ধি পাচ্ছে। আগামী বছরগুলোতে এই ধান চাষে কৃষক বেশি আগ্রহী হবে বলে তিনি আশাবাদী।