শুক্রবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ৬ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে পরীক্ষা বঞ্চিত ১২ শিক্ষার্থীর আগামী বছরে পরিক্ষার জন্য রেজিষ্ট্রেশনসহ যাবতীয় ব্যয় নির্বাহের অঙ্গিকার করায় মিমাংসা

দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ চিরিরবন্দরে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অবহেলায় ১২জন শিক্ষার্থী এবারের অনুষ্ঠিতব্য এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে না পারার ঘটনায় বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীর অভিভাবকগণ স্থানীয় ভাবে মিমাংসা করে থানায় অভিযোগ না দেয়ায় আটককৃত শিক্ষকদ্বয়কে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের জিম্মায় ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার সকালে পরীক্ষার প্রবেশপত্র না পাওয়ায় ১২জন পরিক্ষার্থীর পরীক্ষা দেয়া অনিশ্চিত হলে স্কুলে পরীক্ষা বঞ্চিত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা শিক্ষকের কাছে জানতে চাইলে কোন সদুত্তর না দিয়ে উল্টো একে অপরের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। এসময় অভিভাবকসহ উত্তেজিতজনতা দুই শিক্ষককে এস.কে রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল এন্ড কলেজে অবরুদ্ধ করে অফিস ভাংচুর করে। পরে পরিস্থিতি সামাল দিতে এস.কে রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল এন্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক নিরঞ্জন রায় নিরু এবং তার সহযোগী হিসেবে সিংগানগর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অজয় রায়কে উদ্ধার করে আটক করে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

শিক্ষকদ্বয়কে আটকের পর বৃহস্পতিবার সন্ধায় চিরিরবন্দর উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ প্রয়োজনীয় কাগজপত্রাদি যাচাইবাছাই করে। অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক নিরঞ্জন রায় ওই শিক্ষার্থীদের আগামী বছরে পরিক্ষার জন্য রেজিষ্ট্রেশনসহ যাবতীয় ব্যয় নির্বাহের অঙ্গিকার করায় স্থানীয়ভাবে মিমাংসা করে বিক্ষুদ্ধ অভিভাবকগণ অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ না দেয়ায় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের জিম্মায় পুলিশ তাদের রাতেই ছেড়ে দিয়েছে।

তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সুনীল কুমার সাহা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধায় চিরিরবন্দর উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ, অভিভাবকবৃন্দ বৈঠক হয়। ওইখানে ১২জন ছাত্রের যাবতীয় ব্যায় বহন করে আগামী বছরে পরীক্ষা দিতে পারার ব্যবস্থা করার অঙ্গিকার করে ওই শিক্ষকদ্বয়।

উল্লেখ্য, চিরিরবন্দরের সিংগানগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিরঞ্জন রায় ২০১৪ সালে সরকারী নীতিমালা ভঙ্গ করে এস কে রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল এন্ড কলেজ স্থাপন করে প্রধান শিক্ষক দাবি করে প্রতিষ্ঠান চালিয়ে আসছিলেন। অনুমোদন না থাকার পরেও ২০১৬ সালে মাসুদ রানা, মিনহাজুল, আকাশ, মানস, সাকিব খান, নাইম, আবু হোসেন, আনিসুর রহমান, জীবন নামে ৯ জন ছাত্র ও মনিকা রায়, মনিরা আকতার, লাবণ্য রায় নামে ১২ জন শিক্ষার্থীকে ৯ম শ্রেণিতে ভর্তি করে। তাদের কাছে আবাসিক ফি, টিউশন ফিসহ অন্যান্য ফি বাবদ প্রতিমাসে জনপ্রতি সাড়ে ৬ হাজার টাকা করে নিয়ে ২ বছর অতিবাহিত করলেও ওইসব শিক্ষার্থীর ফি নিয়েও রেজিষ্ট্রেশন না করে তালবাহানা করে আসছিলেন। ২০১৮ সালের এসএসসি পরীক্ষায় ফরম পূরণের জন্য জনপ্রতি সাড়ে ৪ হাজার টাকা নিয়ে ফরম পুরণ না করায় ওইসব শিক্ষার্থীরা পরিক্ষায় অংশগ্রহন করতে পারেননি।