শুক্রবার ২৭ এপ্রিল ২০১৮ ১৪ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে বায়রা বীমা ডিভিশনের বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

মো. রফিকুল ইসলাম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: চিরিরবন্দরে বায়রা লাইফ ইনন্সুরেন্স কোম্পানী লি.’র বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)’র নিকট বীমাকৃতদের লাখ লাখ টাকা আত্মসাত করার অভিযোগে দায়ের হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)’র নিকট গত ১ এপ্রিল এ অভিযোগ দায়ের করেন ভুক্তভোগিরা।

অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, আব্দুলপুর ইউনিয়নের চৌধুরীপাড়াবাসি ও নান্দেড়াই আব্দুলপুর মোহছেনা চৌধুরী দাখিল মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক মো. মামুনুর রশিদ মানিক ও তার স্ত্রী মোছা. মাহফুজা আক্তার ওই কোম্পানীর নামে টাকা উত্তোলন করতেন। ওই ইন্সুরেন্স কোং লি.’র প্রধান কার্যালয় মাহতাব সেন্টার (১০তলা) ১৭৭, শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্মরনী, বিজয়নগর, ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ, নিবন্ধন নং- সি-৪০১৩৯ (২১০৭) ২০০০ এর সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে বিভিন্ন গ্রামে ঘুরে ঘুরে মহিলাদের আসলসহ লভ্যাংশের লোভ দেখিয়ে টাকা নেয়া হত। জীবনবীমার ১০বছর মেয়াদ শেষে জমাকৃত টাকা ও মুনাফা ফেরত দেওয়ার নিয়ম থাকলেও ২বছর অতিবাহিত হওয়ার পরও টাকা ফেরত পায়নি বীমাকৃত ব্যক্তিরা।

ক্ষতিগ্রস্থ জরিনা বেগম, খতেজা বেগম, রোজিফা বেগমসহ অনেকেই জানান, আমরা অনেক কষ্ট করে দীর্ঘ ১০ বছর ধরে নিয়মিত মাসিক টাকা জমা করে এসেছি। আমাদের একেকজনের আসল ৬০ হাজার টাকা করে জমা হয়েছে। মানিক স্থানীয় এবং হুজুর হওয়ায় আমরা তাঁকে বিশ্বাস করে টাকা দিয়েছি। কোম্পানীর নিয়ম মোতাবেক মেয়াদ ১০বছর উর্ত্তীণ হলে সেই টাকার লভ্যাংশসহ আসল টাকা ফেরত পাওয়ার কথা। কিন্তু এর প্রায় ২ বছর ধরে বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে সময় কাটাছেন মো. মামুনুর রশিদ মানিক ও তার স্ত্রী মোছা. মাহফুজা আক্তার। বিভিন্ন গ্রামে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কমপক্ষে দু’শতাধিক পুরুষ মহিলা ওইবীমা কোম্পানীতে টাকা জমা করে ইন্সুরেন্স করেছেন।

এ ব্যাপারে মো. মামুনুর রশিদ মানিক মুঠোফোনে জানান, বীমাকৃত ব্যক্তিদের টাকা ফেরত দেওয়ার কিছু নিয়ম-নীতি আছে, সেই নিয়ম-নীতি মোতাবেক টাকা ফেরত দেয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. গোলাম রব্বানী জানান, বিষয়টির তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।