সোমবার ২২ জুলাই ২০১৯ ৭ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে মাদ্রাসা ছাত্রীদের যৌন নিপীড়ন ও অসদাচরনের অভিযোগে শিক্ষক সাময়িক বরখাস্ত

মো. রফিকুল ইসলাম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে মাদ্রাসা ছাত্রীদের যৌন নিপীড়ন ও অসদাচরনের অভিযোগে অভিযুক্ত শিক্ষককে মাদ্রাসা কতৃপক্ষ শোকজের জবাব সন্তোষজনক না হওয়ায় সাময়িকভাবে বরখাস্ত করে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে পত্র দিয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত দারুল ফালাহ আলিম মাদরাসা ও বিএম কলেজে। 

বিভিন্ন দপ্তরে পাঠানো পত্রের সুত্র ধরে জানা যায়, ওই মাদ্রাসার সহকারি শিক্ষক মো. আব্দুল কাদের সরকার দীর্ঘদিন যাবত গোপনে শ্রেণিকক্ষে বিভিন্ন শ্রেণির ছাত্রীদের স্পর্শকাতর স্থানে হাত, যৌন নিপীড়ন ও অসদাচরণ আচরণ করে আসছেন। কয়েকজন ছাত্রীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে মাদ্রাসা কতৃপক্ষ গত ২ মে ওই শিক্ষককে শোকজ করে।  শোকজের জবাব সন্তোষজনক না হওয়ায় ২০ জুন মাদ্রাসার গভর্ণিং বডি সিদ্ধান্ত নিয়ে ১ জুলাই হতে সাময়িক বরখাস্ত করে। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ছাত্রী জানান, ওই স্যারের ক্লাসে আমরা সহজে যাই না।  গেলেও ভয়ে থাকি। ইতিপূর্বে ২০১৭ সালেও আমাদের এমন অভিযোগ ছিল।  সে সময় থেকে তাকে ১ বছর যাবত ক্লাস করতে দেয়া হয়নি।

এ অভিযোগের ব্যাপারে জানতে অভিযুক্ত শিক্ষক আব্দুল কাদেরের ০১৭১৭-৩৬০৮১১ নম্ব^র মোবাইল ফোনে কল দেয়া হলে সেটি বন্ধ পাওয়া যায়। তার বাড়িতেও পাওয়া যায়নি।

মাদ্রাসা অধ্যক্ষ আলহাজ্ব ইউসুফ আলী জানান, অভিযোগ পাওয়ার সাথেই সাথেই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এমন জঘন্যতম ঘটনায় কোনভাবেই ছাড় দেয়ার সুযোগ নাই। শিক্ষার্থীরা সন্তানের মতো। তাদের সামগ্রিক নিরাপত্তায় প্রতিষ্ঠান কতৃপক্ষ কঠোর অবস্থানে রয়েছে। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন প্রতিবেশিগণ জানান, উনি আত্মগোপনে রয়েছেন। তিনি নিজেকে বাঁচাতে আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী নেতাদের কাছে ধর্ণা দিচ্ছেন। তার ভয়ে আমরা পাড়ার মেয়েদেরও সাবধানে রাখি।

এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. মনজুরুল হক জানান, সাময়িক বরখাস্তের পত্র পাওয়ার পর ওই মাদরাসায় ৪ জুলাই সরজমিন পরিদর্শন করি এবং ছাত্রীদের জবানবন্দি নেই। সত্যতা পাওয়ায় অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য গত  ৮ জুলাই ২০১৯ ইং তারিখে বঙ্গবন্ধু হলে অনুষ্ঠিতব্য উপজেলা নারী শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটির সভায় লিখিতভাবে প্রতিবেদন দাখিল করি। ঘটনাটি এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।