বুধবার ৩ জুন ২০২০ ২০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে যৌতুকের দাবিতে প্রধান শিক্ষক স্বামীর মারপিটে প্রধান শিক্ষিকা স্ত্রী গুরুতর আহত

মো. রফিকুল ইসলাম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ চিরিরবন্দরে প্রধান শিক্ষক স্বামীর যৌতুকের দাবি মেটাতে অস্বীকার করায় প্রধান শিক্ষিকা স্ত্রীকে বেধড়ক মারপিটে রক্তাক্ত জখম ও গুরুতর আহত করা হয়েছে। আহত প্রধান শিক্ষিকা স্ত্রীকে চিরিরবন্দর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনাটি গত ১৩ এপ্রিল দিবাগত রাত আনুমানিক দেড়টায় উপজেলার ফতেজংপুর ইউনিয়নের বড় হাশিমপুর গ্রামের মুন্সিপাড়ায় ঘটেছে। এ ঘটনায় থানায় প্রধান শিক্ষিকা স্ত্রী বাদি হয়ে একটি এজাহার দাখিল করেছেন।
মামলার এজাহার সুত্রে জানা গেছে, ১৮ বছর পূর্বে উপজেলার বড় হাশিমপুর গ্রামের মুন্সিপাড়ার মৃত শাহাবদ্দিনের ছেলে দগড়বাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. ইয়াকুব আলীর (৪৮) সাথে ওই ইউনিয়নের চম্পাতলী শাহপাড়ার মৃত আব্দুস সাত্তারের চতুর্থ মেয়ে হাশিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা মোছা. মঞ্জুয়ারার (৪৫) সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের পর হতে স্বামী ইয়াকুব আলী প্রতিমাসের বেতনের চেক ও পিত্রালয়ের জমি বিক্রি করে ১০ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে আসছে। যৌতুকের টাকা আনতে অস্বীকার করার কারণে তাকে প্রায়শই স্বামীসহ শ্বাশুরী ও ভাসুর (স্বামীর বড়ভাই) মারধর করত। এনিয়ে কয়েকবার স্থানীয়ভাবে কয়েকবার সালিশ বৈঠকও হয়। এ যৌতুকের চাপের রেশ ধরে গত ১৩ এপ্রিল দিবাগত রাত আনুমানিক দেড়টায় স্ত্রী মঞ্জুয়ারাকে স্বামী ইয়াকুবসহ শ্বাশুরী, ভাসুর মারপিট করে এবং হত্যার চেষ্টা চালায়। এসময় তার চিৎকারে প্রতিবেশিরা এগিয়ে এসে তাকে তাদের খপ্পড় থেকে উদ্ধার করে।
নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন প্রতিবেশি জানান, ছেলে ঘরের আসবাবপত্র ভেঙ্গে ফেললে এবং তাকে শাসন করলে মা তার পক্ষ নিত। ফলে তাদের সংসারে ছেলেকে নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া-বিবাদ লেগেই থাকত।
প্রধান শিক্ষক ইয়াকুব আলী জানান, তার নবম শ্রেণিতে পড়ুয়া ছেলেকে তার মা রুটি খেতে বললে ছেলে তার মাকে লাথি মারে এবং মারধর করে। এ ঘটনায় প্রতিবেশি কয়েকজনের সহায়তায় ছেলেকে শাসন করলে পরদিন সকালে তার মা বকাবকি করে। এসময় অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করলে ক্ষিপ্ত হয়ে একটু শাসন দেয়া হয়েছে।
স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও প্রতিবেশি নুর মোহাম্মদ লুনার জানায়, তিনি কয়েকবার তাদের বিবাদ মিমাংসা করে দিয়েছেন।
চিরিরবন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুব্রত কুমার সরকার জানান, বিষয়টি মিমাংসার জন্য অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষককে থানায় ডেকে পাঠানো হয়েছিল। অভিযুক্ত শিক্ষক সাড়া না দেয়ায় মামলাটি এজাহার হিসেবে রুজু করা হয়েছে। যার মামলা নং ১২।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email