সোমবার ১৩ জুলাই ২০২০ ২৯শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দরে শতাধিক গার্মেন্টকর্মীকে বাড়ি ফেরৎ পাঠালেন এসিল্যান্ড

মো. রফিকুল ইসলাম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি ॥ প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে মানুষকে ঘরে আবদ্ধ রাখতে সরকার নানামূখী উদ্যোগ করলেও লোকজন তা কোনভাবেই মানছে না। সরকারি আইন অমান্য করে মানুষ ছুঁটছে বিভিন্ন স্থানে। এরই ধারাবাহিকতায় যাত্রীবাহি কোচে করে শতাধিক গার্মেন্টকর্মী কর্মস্থল ঢাকায় যাচ্ছিল। কর্মস্থলে পৌঁছার পূর্বেই ওইসব গার্মেন্টকর্মীকে নিজ বাড়িতে ফেরৎ পাঠিয়েছেন চিরিরবন্দরের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইরতিজা হাসান। এ ঘটনাটি গত ৪ এপ্রিল রাতে উপজেলার রাণীরবন্দরে পেট্রোলপাম্পে ঘটেছে।  আটক কোচটি দশমাইল হাইওয়ে থানা পুলিশের হেফাজতে রয়েছে।

জানা গেছে, দিনাজপুরের বীরগঞ্জ থেকে শতাধিক গার্মেন্টকর্মীকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার জন্য দুইটি বাস ঠিক করা হয়। এসব গার্মেন্টকর্মী বিভিন্ন এলাকার হওয়ার কারণে চিরিরবন্দর উপজেলার রাণীরবন্দরস্থ পেট্রোলপাম্প থেকে গাড়িগুলো ছাড়ার জন্য ঠিক করে। ওইসময় ওই পেট্রোলপাম্প এলাকায় লোকজনের সমাগম দেখতে পান করোনাভাইরাসের প্রকোপ প্রতিরোধের নিয়মিত অভিযানের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইরতিজা হাসান। ওই সমবেত লোকজনকে তিনি ডেকে নেন এবং  জিজ্ঞাসাবাদে জানতে পারেন তারা সবাই গার্মেন্টকর্মী। তারা এখান থেকে ঢাকায় যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এসময় তিনি তাদেরকে ঢাকায় না যাওয়ার জন্য নিরুৎসাহিত করে নিজ নিজ বাড়িতে পাঠিয়ে দেন।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন গার্মেন্টকর্মী জানান, একদিকে সরকার আমাদেরকে ঘরে থাকার জন্য বলছে। আমরা ঘরের মধ্যে থাকবো। অন্যদিকে গার্মেন্ট মালিকপক্ষ আমাদেরকে ৫ এপ্রিলের মধ্যে চাকুরিতে যোগদান না করলে চাকুরি থাকবে না বলে জানিয়েছেন। এখন আমরা সাধারণ গার্মেন্টকর্মীরা কোনদিকে যাব? 

নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) ইরতিজা হাসান জানান, এ মূর্হুতে গণপরিবহনে এতো লোকজনের একসাথে ঢাকায় যাওয়ার কোন সুযোগ নেই। এছাড়াও গণপরিবহন বন্ধ রয়েছে। তারা অবৈধভাবে গাড়ি ভাড়া করে নিয়েছে। এভাবে গাড়িতে উঠলে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি রয়েছে। তাই দশমাইল হাইওয়ে থানা পুলিশের সহযোগিতায় কোচটি করা হয়েছে এবং ওইসব যাত্রীদের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email