মঙ্গলবার ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ ৪ঠা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

চিরিরবন্দর হানাদারমুক্ত হয় ৭ ডিসেম্বর

মো. রফিকুল ইসলাম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: আজ ৭ ডিসেম্বর চিরিরবন্দর হানাদারমুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এইদিনে দেশমাতৃকার মুক্তিযোদ্ধাদের প্রাণপণ ও পাকবাহিনীর মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের মধ্যদিয়ে পাকিস্তানী সৈন্যবাহিনীর ঘাটি রাণীরবন্দর, আমতলীসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে পলায়ন শুরু করলে চিরিরবন্দর হানাদারমুক্ত হয়। বাংলার বীর সূর্য সন্তানেরা পাক হানাদার বর্বর বাহিনীকে বিতাড়িত করে এইদিনে। লাভ করে স্বাধীনতা। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের অসীম সাহসে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন করেন পোষ্ট অফিস রোডের চিরিরবন্দর থানা মোড়ে। স্বাধীনতা যুদ্ধে ভারতের ফকিরগঞ্জ ঘেঁষা চিরিরবন্দরের দক্ষিণাঞ্চল প্রবেশ দ্বার হওয়ায় মিত্রবাহিনীর সমন্বয়ে মুক্তিযোদ্ধারা পাক-সেনাদের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। যখন পাকসেনারা বাংলার সূর্য সেনাদের সাথে পেরে উঠতে পারছিল না তার আগে ৬ই ডিসেম্বর রাতে অতর্কিতভাবে হামলা করে বসে। সে সময় চিরিরবন্দরে অবস্থানরত মুক্তিবাহিনীর সদস্যরা প্রস্তুত ছিল না। ওইরাতেই ১০টা ৪৫ মিনিটে তৎকালিন বাংলাদেশ লেবারেশন ফোর্স (বিএলএফ) মুজিব বাহিনীর কমান্ডার ইমদাদুল ইসলাম চৌধুরী ও ডেপুটি কমান্ডার তসলিমউদ্দিনের নেতৃত্বে মুক্তিবাহিনী গড়ে তুলে প্রতিরোধ। অবশেষে মুক্তিযোদ্ধাদের লড়াই-সংগ্রামে টিকতে না পেরে ৭ ডিসেম্ব^র সকাল ১০টা পর্যন্ত ব্যাপক লড়াই করে পাকবাহিনীর সদস্যরা পিঁছু হটতে শুরু করে। চূড়ান্ত বিজয়ের ঠিক পূর্ব মুর্হুতে সম্মুখযুদ্ধে শহীদ হন চিরিরবন্দরের বীরসন্তান নেছারউদ্দিন, আব্দুস সোবহান, ইলিয়াসউদ্দিন ও বেঙ্গল রেজিমেন্টের সৈনিক নজিবর রহমান এবং অনেকে আহত হন। লড়াইয়ে ৯জন পাকসেনা সদস্য মারা যান। সূর্য উদিত হল। ৭ই ডিসেম্বর যেন মুক্তির সূর্র্য। এ যেন স্বাধীন চিরিরবন্দরের লাল রক্তে রঞ্জিত নতুন সূর্য। শুধু তাঁরাই নন-পুরো স্বাধীনতার সম্মুখযুদ্ধে ২১ জন সূর্য সন্তান শহীদ হন। তারা হলেন-উত্তর পলাশবাড়ি গ্রামের গোলাম মোস্তফা, নওখৈর গ্রামের মোজাফফর আলী, দক্ষিণ সুকদেবপুর গ্রামের জহুর আলী, নান্দেড়াই গ্রামের ফজলুর রহমান, জয়দেবপুর গ্রামের ওসমান গণি, বড় হাসিমপুর গ্রামের আব্দুল আজিজ, খোচনা গ্রামের জবান আলী, বানিয়াখড়ি গ্রামের মোতালেব হোসেন, তাজপুর গ্রামের গোলাম মোস্তফা, চকমুসা গ্রামের আবুল ফজল, হরিহরপুর গ্রামের আফসার আলী, কৃষ্ণচন্দ্রপুর গ্রামের আব্দুল জলিল, কালিগঞ্জ গ্রামের সাইদুর রহমান, ইলিয়াস হোসেন, মথুরাপুর গ্রামের নেছারউদ্দিন, আন্ধারমুহা গ্রামের নাছিরউদ্দিন, রাজাপুর গ্রামের নজিবর রহমান, বাসুদেবপুর গ্রামের আব্দুল সোবহান, তাজপুর গ্রামের জালালউদ্দিন, হযরতপুর গ্রামের ইব্রাহিম, আলোকডিহি গ্রামের মাহাতাব বেগ। বিভিন্ন কমসূর্চীর মধ্যদিয়ে দিবসটি পালন করে আসছে চিরিরবন্দর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিল।