শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯ ৩রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চীন-মিশরের সাড়ে তিন লাখ কেজি পেঁয়াজ দেশে

মিশর ও চীন থেকে আমদানি করা তিন লাখ ৬৪ হাজার কেজি পেঁয়াজ চট্টগ্রাম বন্দরে এসে পৌঁছেছে। ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়ার পরদিন সোমবার (৩০ সেপ্টেম্বর) বন্দরে এসে পৌঁছে এসব পেঁয়াজ। কনটেইনারযোগে আমদানি করা এসব পেঁয়াজ বর্তমানে খালাসের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

দেশের তিনটি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান এসব পেঁয়াজ এনেছেন। প্রতিষ্ঠান তিনটি হলো- জেনি এন্টারপ্রাইজ, এন এস ইন্টারন্যাশনাল এবং হাফিজ করপোরেশন। মোট ১৪টি কনটেইনারে পেঁয়াজের চালানটি আনা হয়েছে কনটেইনারবাহী জাহাজ ‘এমভি কালা পাগুরো’, ‘জাকার্তা ব্রিজ’ ও ‘কোটা ওয়াজারে’।

চট্টগ্রাম বন্দরের পরিচালক (পরিবহন) এনামুল করিম জানান, কনটেইনারবাহী জাহাজ তিনটির মধ্যে ইতোমধ্যেই দুইটি থেকে পেঁয়াজ খালাস করা হচ্ছে। আর অপর কনটেইনারের পেঁয়াজগুলো জাহাজটির জেটিতে ভিড়ানোর পর খালাস করা হবে।

এ দিকে, বন্দর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, দু-একদিনের মধ্যেই আমদানি করা এসব পেঁয়াজ জাহাজ থেকে খালাসের পর শুল্কায়নসহ সংশ্লিষ্ট সকল ছাড়পত্র পেয়ে যাবে। এ হিসাব অনুযায়ী বন্দর দিয়ে আমদানি করা এসব পেঁয়াজ আগামীকাল (১ অক্টোবর) বা পরশু (২ অক্টোবর) থেকেই বাজারে পাওয়া যেতে পারে।

অপরদিক পেঁয়াজ আমদানি করা ব্যবসায়ীরা জানান, চীন ও মিশর থেকে পেঁয়াজ আমদানির প্রক্রিয়া শুরুর পর থেকে এগুলো হাতে পেতে প্রায় ২৫ থেকে ৩০ দিন সময় লাগে। বন্দরে নিয়ে আসা এ পেঁয়াজের চালানটির আমদানির প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে ২৫ থেকে ৩০ দিন পূর্বে। তারা বলেন, দাম বৃদ্ধির পর ব্যবসায়ীরা বিকল্প উৎস থেকে পেঁয়াজ আমদানির খোঁজখবর শুরু করেন। এরই ধারাবাহিকতায় এসব পেঁয়াজ আনা হয়েছে। এ সময় আরও কনটেইনারবাহী পেঁয়াজ বন্দরে আসার পথে রয়েছে বলেও জানান তারা।