বৃহস্পতিবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৯ ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

জননেতা মরহুম আনোয়ারুল ইসলামের মৃত্যুবার্ষিকীতে দিনাজপুর চেম্বারের স্মরণ সভা

আব্দুর রাজ্জাক, দিনাজপুর ॥ জননেতা মরহুম আনোয়ারুল ইসলামের মৃত্যুবার্ষিকীতে দিনাজপুর চেম্বারের স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। স্মরণ সভায় বক্তারা বলেন, নিরহংকার আনোয়ারুল ইসলাম ছিলেন দিনাজপুরবাসীর হৃদয়ের নেতা। মৃত্যুর পর যানাজা নামাজে লক্ষাধিক মুসুল্লীর অংশ্রগ্রহনই বলে দেয় কতটুকু জনপ্রিয়তা ছিল তাঁর। তিনি রাজনীতি করতেন স্বার্থহীনভাবে। অসাম্প্রদায়িকতার সাথে পরোপকারই ছিল তাঁর মুল রাজনীতি।

বক্তারা আরও বলেন, রাজনৈতিক নেতার পাশাপাশি তিনি ছিলেন একজন সৎ, নির্ভিক ব্যবসায়ী নেতা। ফুটপাত থেকে শুরু করে ধনাঢ্য ব্যবসায়ীদের সমস্যার সমাধানে সারাদিন ব্যস্ত থাকতেন তিনি। সর্বপরি আমরা শুধু একজন নেতাকেই হারাইনি, হারিয়েছি দিনাজপুরবাসীর ভবিষ্যত।

দিনাজপুর শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও চেম্বারের সাবেক সিনিয়র সহ সভাপতি জননেতা মরহুম আনোয়ারুল ইসলামের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ১১ নভেম্বর রবিবার শহরের বন্ধন কমিউনিটি সেন্টারে দিনাজপুর চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি ও শুভাকাঙ্খিবৃন্দ আয়োজিত স্বরণ সভায় বক্তারা কথাগুলো বলেন।

দিনাজপুর চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি সুজা উর রব চৌধুরীর সভাপতিত্বে স্বরণ সভায় বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুল ইমাম চৌধুরী, মরহুমের বড় ভাই এ্যাড. মেহেরুল ইসলাম, দিনাজপুর নাট্য সমিতির সভাপতি বিশিষ্ট সাংবাদিক চিত্ত ঘোষ, দিনাজপুর পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান শফিকুল হক ছুটু, বিশিষ্ট চিকিৎসক বি কে বোস, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ্যাড নুরুজ্জামান জাহানী, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কোতয়ালী আওয়ামী লীগের সভাপতি ইমদাদ সরকার, সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ ঘোষ কাঞ্চন, শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম খালেকুজ্জামান রাজু, চেম্বারের পরিচালক ও শহর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনাম উল্ল্যাহ জ্যামী প্রমুখ।

এছাড়াও দিনাজপুর চেম্বার অব কমার্সের পরিচালক আজিজুল ইকবাল চৌধুরীর পরিচালনায় স্বরণ সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন চেম্বারের সাবেক সভাপতি ও বন্ধু রেজা হুমায়ুন ফারুক চৌধুরী শামিম।

স্বরণ সভায় বক্তব্যশেষে জননেতা মরহুম আনোয়ারুল ইসলাম এর আত্মার মাগফিরাত কামনায় বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন উপস্থিত সকলেই।

এছাড়াও শহরের বাসুনিয়াপট্টিস্থ মরহুমের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে সকাল থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত শেষে শেখ জাহাঙ্গীর কবরস্থানে তাঁর আত্মার মাগফিরাত কামনায় বিশেষ মোনাজাতের আয়োজন করে প্রতিষ্ঠান স্টাফ ও প্রিয়জনেরা। তবে শহরের বিভিন্ন সংগঠন, ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানসহ অসংখ্য শুভাকাঙ্খী মরহুম জননেতার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া-মাহফিলের আয়োজন করেছে বলে জানা গেছে।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ১১ নভেম্বর ভারতের দিল্লীতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক কন্যা ও এক পুত্র সন্তানসহ আত্মীয়-স্বজন, অসংখ্য গুনাগ্রাহী রেখে গেছেন।