মঙ্গলবার ২৩ অক্টোবর ২০১৮ ৮ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মশিউর রহমান

নবাবগঞ্জ(দিনাজপুর) থেকে এম এ সাজেদুল ইসলাম(সাগর) : দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মশিউর রহমান উপজেলা প্রশাসনের জনগুরুত্বপুর্ন দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে সপ্তাহের প্রতি বুধবার গনমানুষের অভিযোগ সমাজের ছোট খাট অপরাধ পারিবারিক কলহ সহ নানাবিধ বিষয়ে ভুক্তভোগিরা তার দপ্তরে সমস্যা সমাধানের জন্য আবেদন করে থাকেন। গনশুনানিতে দায়িত্ব প্রাপ্ত সাটিফিকেট সহকারি সুভাস চন্দ্র ব্যানার্জি জানান, প্রতি সপ্তাহেই উপজেলার অসহায় নারী পুরুষ লিখিত অভিযোগ দায়ের করে থাকেন। অভিযোগগুলো উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিজেই গ্রহন করে থাকেন। এরপর বাদি বিবাদিদের নিকট তার সাক্ষরিত নোটিশ জারি করেন অফিস পিয়ন। সপ্তাহের বুধবার দিন সাধারন মানুষ ন্যায় বিচারের জন্য হাজির হন তার দপ্তরে । সেদিন দিনভর চলতে থাকে গনশুনানির কাজ। কোন কোন ঘটনা উভয়পক্ষকে ডেকে তার দপ্তরে সমাধা হয়ে যায়। এর কারনে উপজেলাবাসির সাধারন পরিবারের মানুষের নিকটে দিন দিন পাচ্ছে সুফল। গনশুনানি গনমানুষের নিকট দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এ বিষয়ে ২নং বিনোদনগর ইউপি চেয়ারমান মো. মনোয়ার হোসেন জানান, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে গনশুনানির ব্যবস্থা হওয়ায় উপকৃত হচ্ছে সাধারন মানুষ। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ভারপ্রাপ্ত মোছা. পারুল বেগম জানান, গনশুনানি চলতে থাকলে গনমানুষের নিকট সরকারের সেবার দৃষ্টান্ত দিন দিন বৃদ্ধি পাবে। ব্যবসায়ী সমিতির সদস্য মাহবুবুর রহমান জানান, গনশুনানি দিন বৃদ্ধি করলে উপকৃত আরো বেশি হতো সাধারন মানুষ। নবাবগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ সুব্রত কুমার জানান, সমাজের বিভিন্ন অপরাধমুলক ঘটনা থানায় প্রতিনিয়ত এসে থাকে। তিনিও কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির মাধ্যমে স্থানীয় ভাবে সমাধা হয়ে থাকে। এ বিষয়ে নবাবগঞ্জ উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্য নুর মোহাম্মদ সরকার জানান, গনশুনানির এমন উদ্যোগ সত্য্ইি প্রশংসার দাবিদার। এলাকাবাসীর অভিযোগের উভয়পক্ষের স্থানীয়ভাবে সমাধা হচ্ছে এছাড়াও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সাথে যোগাযোগের সেতুবন্ধন সৃষ্টি করে।  উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রতি সপ্তাহে গনশুনানি করায় সাধারন মানুষও ন্যায় বিচার পায়। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মশিউর রহমান জানান, জনসেবার জন্যই এসেছি। গনশুনানি সুষ্টভাবে সমাধার জন্য এলাকার সচেতন মহলেরও সহায়তা কামনা করেন তিনি। এছাড়াও পাক্ষিক ও মাসিক গনশুনানির প্রতিবেদন জেলা প্রশাসক দপ্তরেও প্রেরন করা হয়।