মঙ্গলবার ৭ জুলাই ২০২০ ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

জর্জ ফ্লয়েড – উই আর উইথ ইয়্যু ।

২৫ শে মে সোমবার নিরস্ত্র আফ্রিকান-আমেরিকান জর্জ ফ্লয়েডকে পুলিশি হেফাজতে হাঁটুতে পিষে নির্মমভাবে হত্যা করে যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা অঙ্গরাজ্য পুলিশ। ফ্লয়েডের হত্যাকারী পুলিশ সদস্যের নাম ডেরেক চাওভিন । ডেরেকের হাঁটুর নিচেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ফ্লয়েড। এ নির্মম হত্যার ভিডিও ভাইরাল হতেই প্রতিবাদে ফেটে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্রসহ সারা বিশ্ব।
প্রতিবাদ জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট জিমি কার্টার,বিল ক্লিনটন , জর্জ বুশ,বরাক ওবামা।
সাবেক যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন বলেন, জর্জ ফ্লয়ডের মত মৃত্যু কারও কাম্য নয়। সত্যি কথা হলো, সাদা চামড়ার হলে এমন মৃত্যুর সম্ভাবনা কম।
সাবেক রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট জর্জ বুশ বলেছেন,এখন বক্তৃতা দেওয়ার সময় নয়, এখন সময় কথা শোনার।যারা কালো আমেরিকান তরুনকে টার্গেট করে হত্যা করেছে , বুশ তাদের প্রতি নিন্দা জানিয়েছেন।শান্তিপূর্ণ আন্দোলনকারীদের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন। ওবামা এই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন ভায়োলেন্স আমরা পছন্দ করি না তাই বলে আমরা আন্দোলন হতে পিছপা হবোনা। আন্দোলনকে আমরা সামনে এগিয়ে নিয়ে যাব।
যুক্তরাষ্ট্রের ৬৪ ভাগ মানুষ এই ঘটনায় সহমর্মিতা প্রকাশ করেছেন।
যুক্তরাষ্ট্রের ৪০০ বছরের ইতিহাসে এই সাদা-কালো বিদ্বেষ জিইয়ে আছে।অনেক আইন কানুন দিয়েও কিছুটা সমস্যার সমাধান হলেও বেশীর ভাগ সমস্যা সামাজিকভাবে রন্ধ্রে রন্ধ্রে বিদ্যমান।

এ ব্যপারে মহান আল্লাহ্ বলেন-
আমি সৃষ্টি করেছি মানুষকে সুন্দরতম অবয়বে। অতঃপর তাকে ফিরিয়ে দিয়েছি নিচ থেকে নিচে। (সূরা ত্বীন-৪-৫)
এখানে আল্লাহতায়ালা বুঝাচ্ছেন যে, মানুষের স্বভাবকে যেমন অন্যান্য সৃষ্টি জীবের তুলনায় উত্তম করা হয়েছে ঠিক তেমনি তার দৈহিক অবয়ব এবং আকার-আকৃতিকেও দুনিয়ার সব প্রাণী অপেক্ষা সুন্দরতম করা হয়েছে। ইবনে আরবী বলেন, আল্লাহর সৃষ্ট বস্তুর মধ্যে মানুষ অপেক্ষা সুন্দর কেউ নেই। কেননা আল্লাহ তাকে জ্ঞানী, শক্তিমান, বক্তা, শ্রোতা, দ্রষ্টা, কুশলী এবং প্রজ্ঞাবান করেছেন। এগুলো প্রকৃতপক্ষে আল্লাহতায়ালারই গুণাবলি। মানুষ যে অবয়বে সৃষ্টির সর্বাধিক সুন্দর এটা শ্বেত, কৃষ্ণ , খর্বকায়, লম্বা সব মানুষের ক্ষেত্রে ঘোষিত হয়েছে। অতএব একে অন্যের মাঝে বৈষম্য সৃষ্টির কোনো যুক্তিকতা নেই।
আবার আল্লাহতায়ালা যেহেতু সব মানুষকে নিচ থেকে নিচে ফিরিয়ে দেবেন তাহলে অহংকার ও আত্মগর্বেরও কিছুই নেই। এভাবে মানব মনকে তৈরি করার উদ্দেশ্যে এসব আয়াত বর্ণিত হয়েছে।
পবিত্র কালামে পাকে সূরা নিসার ১নং আয়াতে আল্লাহতায়ালার অমোঘ ঘোষণা, “হে মানব সমাজ! তোমরা তোমাদের পালনকর্তাকে ভয় কর, যিনি তোমাদেরকে এক ব্যক্তি থেকে সৃষ্টি করেছেন এবং যিনি তার থেকে তার সঙ্গীনীকে সৃষ্টি করেছেন। আর বিস্তার করেছেন তাদের দু’জন থেকে অগণিত পুরুষ ও নারী। আর আল্লাহকে ভয় করো। যার নামে তোমরা একে অন্যের কাছে অধিকার দাবি করো এবং আত্মীয়-জ্ঞাতীদের ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বন করো। নিশ্চয় আল্লাহ তোমাদে ব্যাপারে সচেতন রয়েছেন।”
উপরোক্ত আয়াতে যেমনিভাবে আল্লাহর অধিকারের ব্যাপারে সতর্ক করিয়ে দেয়া হয়েছে এবং তার বিরুদ্ধাচারণের পরিণাম সম্পর্কে অবহিত করা হয়েছে। তেমনিভাবে দুনিয়ার সমগ্র মানুষকে একই পিতার সন্তান হিসেবে গণ্য করে তোমাদের মধ্যে ভ্রাতৃত্ব-বন্ধুত্ব ও সহানুভূতি অনুপ্রেরণায় অনুপ্রাণিত করা হয়েছে। পৃথিবীর সব মানুষ যেহেতু একই পিতার সন্তান। তাহলে বর্ণ যেটাই হোক সকলে ভাই ভাই।
ইসলামে বহু দল উপদল থাকা সত্বেও বহু মত ও মতান্ধতা থাকা সত্ত্বেও মুসলমানদের জীবনাচারে এহেন বিদ্বেষ ও বৈষম্য কখনো দানা বাঁধতে পারেনি। কারণ ইসলাম এ ব্যাপারে কৌশলী পন্থা অবলম্বন করেছে। ইসলামের শিক্ষা হলো সব মানুষ আল্লাহর পরিবারভুক্ত। মানুষের মাঝে ভাষাগত ও বর্ণগত পার্থক্য আল্লাহর অসীম কুদরতের নিদর্শন মাত্র , যা তোমাদের একে অপরকে চিনতে বা জানতে সুবিধা হয়।আল্লাহতায়ালা বলেন, “আর তার নিদর্শনাবলীর মধ্যে রয়েছে আকাশমন্ডলী ও পৃথিবীর সৃষ্টি এবং ভাষা ও বর্ণের বৈচিত্র্য। এতে জ্ঞানীদের জন্য অবশ্যই বহু নিদর্শন রয়েছে। (সূরা রূম-২২)।

হযরত মুহম্মদ ( সা: ) বিখ্যাত বিদায়ী হজ্বের আংশিক ভাষন:

হে মানব সকল! নিশ্চয়ই তোমাদের সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ একজন, তোমাদের সকলের পিতা হযরত আদম আ:। আরবের উপর অনারবের এবং অনারবের উপর আরবের কোন শ্রেষ্ঠত্ব নেই, সাদার উপর কালোর আর কালোর উপর সাদার কোন মর্যাদা নেই। ‘তাকওয়াই’ শুধু পার্থক্য নির্ণয় করবে।
সুতরাং আমরা অহংকার,হিংসা হতে আত্মসংযমী হই।অহংকার ও হিংসার বশবর্তী হয়ে কারো ক্ষতির কারন হয়ে না দ্বারাই।
মানুষ মানুষের জন্য,
মানুষই পারে বৈষম্যের বেড়াজাল ছিন্ন করে বৈষম্যেকে চিরতরে দূরে ছুঁড়ে ফেলে দিতে।

জর্জ ফ্রয়েড যে/যারা তোমাকে কষ্ট দিয়ে তিলে তিলে উম্মুক্ত জনসমুক্ষে হাতে হ্যান্ডকাফ লাগিয়ে নির্দয়ভাবে গরম পিচ ঢালা রাস্তায় উবুর করে শুইয়ে গলায় হাটু দিয়ে চেপে ১০ মিনিট ধরে মৃত্যু নিশ্চিত করেছে।
সেই ক্ষুনিদের বিচারের অপেক্ষায় রইলাম।

হ্যা জর্জ ফ্লয়েড – উই আর উইথ ইউ ।

লেখক-ফতেনূর আলম
নিউইয়র্ক ।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email