শনিবার ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ ৩০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

জলদস্যুতায় সাজা যাবজ্জীবন

বাংলাদেশের সমুদ্রসীমায় কোনো জলদস্যুতা বা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড রেখে ‘বাংলাদেশ মেরিটাইম অঞ্চল আইন, ২০১৯’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

সোমবার (২৫ নভেম্বর) রাজধানীর তেজগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এই আইনের খসড়ার অনুমোদন দেওয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে প্রেস ব্রিফিং করে গণমাধ্যমকর্মীদের এ কথা জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, জলদস্যুতা, সশস্ত্র ডাকাতি, সমুদ্রে সন্ত্রাস ও চুরি করতে গিয়ে কেউ খুন হলে সাজা মৃত্যুদণ্ড হবে। কোনো ব্যক্তি জলদস্যুতা বা সমুদ্রে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করলে তার জন্য যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হবে। আর সেই সঙ্গে দস্যুতা করে লুটে নেওয়া সম্পদ ফরফিট বা বাজেয়াপ্ত করা হবে। এছাড়া কোনো ব্যক্তি যদি জলদস্যুতা বা সমুদ্রে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বা সহায়তা করলে অনুর্ধ্ব ১৪ বছর কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ডে দণ্ডিত হবে। আর এসব কাজে কেউ সহযোগিতা করলে তিনিও ১৪ বছর কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

দেশি-বিদেশি সবার জন্য এই আইন কার্যকর হবে উল্লেখ করে সচিব বলেন, বিদেশি কোনো লোকও যদি আমাদের জলসীমায় এসে এই সব অপরাধ করে তাহলে তিনিও একই শাস্তি পাবেন।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ মেরিটাইম অঞ্চল আইন হলে সমুদ্র সম্পদের ওপর বাংলাদেশের সার্বভৌম অধিকার প্রতিষ্ঠা হবে। এছাড়া সমুদ্র সন্ত্রাস, জলসদ্যুতা, সমুদ্র দূষণ, সমুদ্রে সংঘটিত অপরাধ ও নৌ চলাচল নিরাপত্তা বিঘ্নকারী বেআইনি কর্মকাণ্ড নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে।

খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম জানান, আইন মন্ত্রণালয়ের ভেটিং সাপেক্ষে চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভায় উপস্থাপন করা হবে।