শনিবার ১৯ অক্টোবর ২০১৯ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষে জেলা অবহিতকরণ ও পকিল্পনা সভা

কাশী কুমার দাস, স্টাফ রিপোর্টার ॥ দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মোঃ মাহমুদুল আলম বলেছেন, ভিটামিন ‘এ’ এর পাশাপাশি প্লাস যোগ করা হয়েছে। তার মানে হলো শিশুদের পুষ্টিযুক্ত খাদ্য খাওয়ানোর ব্যাপারে জনগণকে সচেতন করা। প্রচার ও প্রসারের জন্য জুমার নামাজে মসজিদে ইমাম সাহেবরা খুতবায় প্রচার করলে সকলে জানতে পারবে। সুযোগ্য নাগরিক হিসেবে আমাদেন সন্তানদের জন্য ভিটামিন ‘এ’ প্লাস যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ।

১৮ জুন মঙ্গলবার দিনাজপুর জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে সিভিল সার্জন কার্যালয় আয়োজিত এবং জাতীয় পুষ্টি সেবা ও জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়নে আগামী ২২ জুন জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষে জেলা অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভায় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথাগুলো বলেন। “ভিটামিন ‘এ’ খাওয়ান, শিশু মৃত্যুর ঝুঁকি কমান”-এবারের প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আব্দুল কুদ্দুছ এর সভাপতিত্বে অবহিতকর ও পরিকল্পনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ মাহফুজ্জামান আশরাফ, জেলা পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ডাঃ মোঃ আবু নছর নুরুল ইসলাম চৌধুরী। মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরের মাধ্যমে তথ্যভিত্তিক প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ আজমল হক। বিষয়ভিত্তিক আলোচনা করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ঢাকা হতে আগত ডাঃ মোঃ মাসুদ রেজা খান। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা মোঃ নাজমুল ইসলাম, ডাঃ মোঃ খায়রুল ইসলাম ও সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সিনিয়র স্বাস্থ্য শিক্ষা অফিসার মোঃ সাইফুল ইসলাম। সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন ইপিআই’র সুপারইনডেনডেন্ট মোঃ ইছামুদ্দীন। আয়োজকরা জানান, ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী শিশুকে একটি নীল রঙের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল, ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশুকে একটি লাল রঙের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল এবং শিশুর বয়স ৬ মাস পূর্ণ হলে মায়ের দুধের পাশাপাশি পরিমাণমত ঘরে তৈরী সুষম খাবার খাওয়াতে হবে। ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল শিশুর জন্য নিরাপদ। এর কোন প্রকার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই। আগামী ২২ জুন জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইনকে স্বার্থক করতে আপনারা এগিয়ে আসুন ও প্রচার করুন।