মঙ্গলবার ২৩ জুলাই ২০১৯ ৮ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির দায়বদ্ধতা

বাংলাদেশে শাওয়াল মাসের পবিত্র চাঁদ দেখা নিয়ে এবার একটা তুঘলকি কারবার ঘটে গেল। রাত ৮টায় দেশের কোথাও চাঁদ দেখা না যাওয়ার ঘোষণা দিয়ে বলা হলো কাল ঈদ হচ্ছে না। আবার রাত ১১টায় নতুন করে ঘোষণা দিয়ে বলা হলো চাঁদ দেখা গেছে, কালকেই ঈদ হচ্ছে!

চাঁদ দেখতে পাওয়া, না পাওয়া নিয়ে এই তুঘলকি কারবারের জন্ম দিয়েছে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের নেতৃত্বে গঠিত জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি। তারা এক বিষয়ে দুই রকমের ঘোষণা দিয়েছেন তিন ঘন্টার ব্যবধানে। ব্যাপারটা অদ্ভুত। যা রাত ৮টা পর্যন্ত দেখা যায় নাই, তা রাত ১১টায় কেমন করে দেখা গেল তা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় নানা রকমের চটুল মন্তব্যের ছড়া-ছড়ি হয়েছে। বিশেষ করে ফেসবুকে। যেভাবে চাঁদ দেখার খবর দেশবাসীকে জানিয়েছে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি, তাতে ফেসবুক বন্ধুরা বিস্ময় প্রকাশ করে চাঁদটিকে ‘সিজারিয়ান চাঁদ’ বলে কটাক্ষ করতে দ্বিধা করেন নাই মোটেও। আর সিজারিয়ান চাঁদের আবিস্কারের কৃতিত্বটা তারা জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটিকেই দিয়েছেন। এ বিষয়ে চাঁদ দেখা কমিটির ব্যাপার-স্যাপার নিয়ে কয়েক জন ফেসবুক বন্ধুর মন্তব্য তুলে ধরা যাক :

দিনাজপুরের বাবুল আজাদ পাঁচ ওয়াক্ত নামাজী মানুষ। পরিচিত জনদের মধ্যে সৎ মানুষ হিসেবে পরিচিত। চাঁদ দেখা কমিটির দ্বিতীয় দফা সিদ্ধান্তের পর তিনি ফেসবুকে লিখেছেন, মাত্র চার ঘন্টায় চাঁদ দেখতে পেল কমিটি! অবিশ^াস্য।

একটি সংবাদ পত্রের ব্যবস্থাপনার সাথে জড়িত হারুন রশিদ লিখেছেন, আরেকটু দেরী হলেই চাঁদ দেখা কমিটি সূর্য দেখে ফেলতো।

দিনাজপুরের বিশেষ ব্যক্তিত্ব আজাদ আবুল কালাম লিখেছেন, সিজারিয়ান চাঁদে অবশেষে বিলম্বিত ঈদ মুবারক।

একটি ব্যাংকে কর্মরত আমির জুলিয়াস লিখেছেন, কমিটির কি দোষ? নরমাল ডেলিভারি হবে ভেবে অপারেশন থিয়েটারের প্রস্তুতি ছিল না। পরে অপারেশন করে বের করতে একটু সময় লেগেছে।

একজন তরুণ চিন্তাবিদ তুষার শুভ্র বসাক লিখেছেন, এই চাঁদ যেনো ডুমুরের ফুল।

পঞ্চগড়ের সাংবাদিক কামরুল কামু লিখেছেন, ঈদ আর চাঁদ নিয়ে ফাজলামি, এসব কেন হবে? সৌদির পরের দিন বাংলাদেশে ঈদ হওয়াটা স্বাভাবিক।

বীরগঞ্জের আরেক সাংবাদিক আব্দুর রাজ্জাক বিপুল লিখেছেন, বুকটা ফাইট্টা যায়, রাত ১১টায় চাঁদ মামা রঙ্গ কইরা হাইট্টা যায়।

রাত ১টা ২০ মিনিটে ঢাকা প্রবাসী কন্ঠ শিল্পী তজিরুল ইসলাম লিখেছেন, দুঃখিত, আগামীকাল পবিত্র ঈদুল ফিতর, ঈদ মুবারক।

একজন চিত্রশিল্পী সৈয়দ মুন্নাফ হোসেন রাত ৩টায় লিখেছেন, রাত ৩টা পর্যন্ত জেগে থাকলাম, যদি আবার কেউ সেহরী করার জন্য ডাক দেয়!

এইসব মন্তব্য থেকে এটা পরিস্কার যে, জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি এবার চাঁদ দেখা নিয়ে যা করেছে তা কারো কাছেই গ্রহণযোগ্য হয় নাই। কমিটির কর্মকান্ডের প্রতি ধর্মপ্রাণ মানুষসহ সর্বসাধারনের মধ্যে এক ধরণের অনাস্থা তৈরী হয়েছে। কমিটির পক্ষে মাননীয় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী চাঁদ দেখা সংক্রান্ত যে ব্যাখ্যা দিয়েছেন, সেটার গ্রহণযোগ্যতা নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে।

যারা চাঁদ দেখা না দেখা নিয়ে শুধু মাত্র মিটিং করেন, সিদ্ধান্ত দেন, কিন্তু প্রকৃত পক্ষে চাঁদ দেখার কোন ব্যবস্থা করেন না, তাদের কর্মকান্ড গ্রহণযোগ্য হবে না, সেটাই স্বাভাবিক। কেন না চাঁদ দেখা কমিটির অদূরদর্শীতার কারণে এবার ঈদ আয়োজন নিয়ে ধর্মপ্রাণ মুসল্লীসহ সর্ব সাধারণকে বিভ্রান্তিতে ভুগতে হয়েছে।

এ বছর ৩ জুন সৌদী আরবে শাওয়াল মাসের  চাঁদ দেখা গেছে এবং ৪ জুন সৌদী আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উদযাপিত হচ্ছে, এই খবর সারা দুনিয়ার লোক জানত, বাংলাদেশের মানুষেরও অজানা ছিল না। তাই বাংলাদেশের মানুষ মানসিক প্রস্তুতি নিয়েছিল, ৫ জুন ঈদ উদযাপনের। এর যথেষ্ট কারণও আছে। বাংলাদেশের সাথে সৌদী আরবের সময়ের ব্যবধান ৪ ঘন্টা। কিন্তু সৌদী আরবে চাঁদ উঠার  ৪ ঘন্টা পর বাংলাদেশে যেহেতু রাত নেমে আসে তাই চাঁদ উঠার কোন সম্ভাবনা থাকে না। সৌদী আরবে চাঁদ উঠার পরদিন বাংলাদেশে চাঁদ উঠবে এবং সৌদী আরবে যেদিন ঈদ উদযাপিত হয় তার পরদিন বাংলাদেশে ঈদ উদযাপিত হবে, সেটাই স্বাভাবিক এবং অতীতে সেটাই হয়েছে। বাংলাদেশের মানুষ অতীতে সেভাবেই ঈদ-উল-ফিতর উদযাপন করেছে। তাই এবারেও সৌদী আরবে উদযাপিত ঈদের পরের দিন ৫ জুন ঈদ উদযাপনে মানসিক প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিল বাংলাদেশের মানুষ। বাংলাদেশের গ্রামে-গঞ্জে, পাড়া-মহল্লায় ৪ জুন সন্ধ্যায় অল্প বয়সী ছেলেদের পটকা ফুটানোর মধ্যে বাংলাদেশের মানুষের সেই মনোভাবেরই বহি:প্রকাশের পরিস্কার চিত্র ছিল।

কিন্তু জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি আরেকটু হলেই এর ব্যতিক্রম ঘটিয়ে দিতে যাচ্ছিল। কমিটির সভাপতি ও ধর্ম প্রতিমন্ত্রী রাত প্রায় সাড়ে ৮টার দিকে ঘোষণা দিলেন যে, ৬৮ জেলার কোথাও চাঁদ দেখা যায় নাই। ডিসিরা চাঁদ দেখতেপাওয়ার খবর দিতে পারেন নাই, আবহাওয়া অফিস খবর দিতে পারেন নাই, কারো কাছ থেকেই চাঁদ দেখার  কোন খবর খবর পাওয়া যায় নাই, অতএব শরীয়া মোতাবেক ৫ জুন ঈদ হচ্ছে না, ঈদ হচ্ছে ৬ জুন।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শরীয়ার কথা বলেছেন। শরীয়া হলো শাওয়াল মাসের চাঁদ উঠলে পরদিন ঈদ হবে। আর শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা ছুন্নত। কাজেই মানুষ শাওয়াল মাসের প্রথম দিনের চাঁদ দেখার চেস্টা করে থাকে ধর্মীয় অনুভূতির কারণে। চাঁদ উঠলেই ঈদ হবে নইলে হবে না। কিন্তু চাঁদ উঠার পরেও কেউ যদি না দেখে, তার মানে এই নয় যে, ঈদ হবে না। সৌদী আরবসহ মধ্যপ্রাচ্রের দেশগুলোয় যেহেতু ৩ জুন চাঁদ দেখা গিয়েছিল, সেহেতু ৪ জুন সন্ধ্যায় বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ভারতের আকাশে চাঁদ দেখা যাবেই তাতে সন্দেহের অবকাশ থাকার কোন কারণ ছিল না। আকাশে মেঘের কারনে চাঁদ দেখা নাও যেতে পারে। তাই বলে চাঁদ উঠে নাই, এমনটা ধরা যাবে না। যেহেতু সৌদীদে আগের দিন চাঁদ উঠেছে, সেহেতু পরদিন বাংলাদেশে চাঁদ উঠবে, এটাই স্বভাবিক। এখন মেঘের কারণে ৩-৪দিন চাঁদ দেখা না গেলে ঈদ কি থেমে থাকবে? ঈদ হবেই।

ধর্ম প্রতিমন্তী প্রথম দফায় দেশের কোথাও চাঁদ না দেখার কথা বলেছেন। দ্বিতীয় দফায় পাটগ্রামে চাঁদ দেখা গেছে বলে জানিয়েছেন। প্রশ্ন হলো, একই বিষয় নিয়ে তিন ঘন্টার ব্যবধানে দুই রকমের তথ্য কেন? সাংবাদিকদের সামনে যখন তিনি চাঁদ নিয়ে ব্যাখ্যা দিচ্ছিলেন, তখন একটা বিষয় পরিস্কার হয়ে গিয়েছিল যে, জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির চাঁদ দেখা নিয়ে কোন পূর্ব প্রস্তুতি ছিল না। এই কমিটি বাংলাদেশের কোথাও চাঁদ দেখা গেলে সেই তথ্য সাথে সাথে সংগ্রহ করার কোন ব্যবস্থাই নেয়নি। ডিসি, ইউএনওদের প্রতি তাদের কোন নির্দেশনা ছিল না। থাকলেও ডিসি, ইউএনওরা সেই নির্দেশনাকে গুরুত্ব দেয় নাই।

আবহাওয়া অফিস কয়েকদিন আগেই পূর্বভাস দিয়েছিল, ঈদের দিনসহ এর আগের ও পরের দু-একদিন আকাশ মেঘলা থাকবে, বৃষ্টিপাতও কোথাও কোথাও হবে। আকাশ যদি মেঘলা থাকে তাহলে চাঁদ দেখার উপায়টা কি? বর্তমান স্যাটেলাইট, প্রযুক্তি আর শক্তিশালী দূরবীন ও অণুবীক্ষণ যন্ত্রের যুগে সেটা কি কঠিণ কোন বিষয়? এখন জ্যোতির্বিজ্ঞান আগাম বলে দিতে পারে যে, কখন, কোন সময়, কত মিনিটে সূর্যগ্রহণ হবে, সূর্যগ্রহণের প্রভাব কি রকম হবে, চন্দ্র গ্রহণ হলে কতক্ষণ স্থায়ী হবে, কোন গ্যালাক্সি, কোন নক্ষত্র কখন কোথায় এসে উপনীত হবে, কতক্ষণ আলো ছড়াবে, খালি চোখে কখন কোন সময় দেখা যাবে। সব কিছুই আগাম বলে দিতে পার্।ে তারা যা বলেন, যে ভাবে পূর্বাভাষ দিয়ে থাকেন, দেখা যায় তা ঠিক ঠিক  সে ভাবেই মিলে যায়। তাদের পূর্বাভাষ নিখুঁত হয় কারণ তাদের কাছে আলোক বর্ষের হিসাব আছে, সময়, ভর, নক্ষত্ররাজি, চন্দ্র সংক্রান্ত সুনির্দিষ্ট তথ্য আছে। সেই সব তথ্য বিশ্লেষন করে, যোগ-বিয়োগ করে, সময়, ভর, দূরত্ব, আলোক বর্ষের পরিসংখ্যান করে তারা বলে দিতে পারেন যে, কখন কি হতে যাচ্ছে। তাহলে প্রশ্ন, চাঁদ তো ইঠেছিলই, তাহলে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি কেন সেই চাঁদ দেখতে পেলনা? এর সোজা-সাপ্টা উত্তর হলো, কমিটি আসলে চাঁদ দেখার কোন উদ্যোগ নেয় নাই। মেঘ থাকলে খালি চোখে চাঁদ দেখা যাবে না সেটাই স্বাভাবিক, তাহলে যে ব্যবস্থা নেয়া দরকার ছিল তেমন কোন ব্যবস্থা তারা নেয় নাই। ডিসি-ইউএনওদেরকেও আগের থেকে এলার্ট করে নাই। তাই তারাও চাঁদ দেখা বাদ দিয়ে অন্য কাজে ব্যস্ত ছিলেন। ফলে আকাশে চাঁদ উঠলেও তারা কেউই তা দেখতে পান নাই। অথচ ঈদ হবে তাদের সিদ্ধান্তের আলোকেই! ফলে তাদের কারণে মানুষকে বিভ্রান্তিতে পড়তে হয়েছে। তাই মানুষও ক্ষুব্ধ হয়ে নানান মাধ্যমে নানান মন্তব্য করেছেন। 

যা হওয়ার হয়ে গেছে, আগামীতে এমন যেন না হয় সে লক্ষ্যে সচেতন থাকতে হবে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটিকে। স্যাটেলাইট, প্রযুক্তি, বাইনোকুলার, অনুবীক্ষণ যন্ত্র আর জ্যোতির্বিজ্ঞানের এই সময়ে চাঁদ দেখতে পাওয়া যে কোন কঠিন বিষয় না, তা বলার অপেক্ষা রাখেনা। পূর্ব প্রস্তুতি নিয়ে কিছু উদ্যোগ গ্রহণ করলেই নিশ্চিতভাবে চাঁদ দেখা সম্ভব। কমিটি চাঁদ দেখার বিষয়ে প্রশাসনের সহযোগিতা নেয়ার পাশাপাশি সাধারণ মানুষের সহায়তাও নিতে পারেন। যদি কমিটির কোন মোবাইল নম্বর অথব ইমেইল এড্রেস দিয়ে জনগণের কাছে আবেদন রাখা হয় যে, চাঁদ দেখতে পেলে যেন ঐ নম্বরে জানানো হয়, তাহলে আকাশে শাওয়ালের চাঁদ উঠার সাথে সাথেই কমিটি সেই তথ্য জানতে পেয়ে যাবেন। তাহলে কমিটিও ভুল করবেন না, জনতাও বিভ্রান্তি ও বিরক্ত হবেন না। কেউ আর ব্যাঙ্গ করে লিখবেন না যে, চাঁদ হলো সিজারিয়ান। কমিটিকে মনে রাখতে হবে, চাঁদ দেখার সাথে ধর্মের বিষয় যুক্ত, সেহেতু তাদেরকে যথেষ্ট সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে, দায়িত্ব সঠিক ভাবে পালন করতে হবে, কোন ভুল কিংবা বিভ্রান্তি তাদের চলবে না। কারণ চাঁদ দেখা নিয়ে জনগণের কাছে তাদের কিছু দায়বদ্ধতা অবশ্যই আছে।

লেখক-আজহারুল আজাদ জুয়েল

সাংবাদিক-কলামিস্ট, পাটুয়াপাড়া, দিনাজপুর

মোবাঃ ০১৭১৬৩৩৪৬৯০/০১৯০২০২৯০৯৭