বুধবার ২১ অগাস্ট ২০১৯ ৬ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

জাতীয় পুরস্কার পাচ্ছে সৃজিতের ‘এক যে ছিল রাজা’

দিল্লির শাস্ত্রী ভবনে ঘোষিত হলো ৬৬তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। জ্যুরিদের রিপোর্ট আগেই জমা পড়েছে কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকে। এবারের জাতীয় পুরস্কারের মঞ্চে বাংলা ছবির জয়জয়কার। প্রতিবারের মতোই বিভিন্ন বিভাগের শ্রেষ্ঠ ছবি পুরস্কার পেতে চলেছে এবারেও। পরিচালক-প্রযোজক রাহুল রাওয়েইলের নেতৃত্বে বাকি জুরি সদস্যরা ঘোষণা করবেন সেরার তালিকা। বাংলা থেকে সেরা ছবির তালিকায় আবারও একবার পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়। এছাড়াও বাংলার প্রাপ্তির তালিকায় রয়েছে ‘কেদারা’ ও ‘তারিখ’। হিন্দি ছবির ক্ষেত্রে তালিকায় উল্লেখযোগ্য নাম ‘অন্ধাধুন’, ‘উরি’ ও ‘পদ্মাবতের’ মতো ছবি।

প্রত্যেক বছর এপ্রিলে ঘোষণা হয় জাতীয় পুরস্কারের, এবং ৩ মে অনুষ্ঠিত হয় পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান। তবে লোকসভা নির্বাচনের জন্য পিছিয়ে গিয়েছিল এই বছরের ঘোষণা। এর আগে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর পিটিআইকে বলেন, “দু’মাস ধরে অক্লান্ত পরিশ্রম করে এই ছবিগুলো বাছা হয়েছে। আমি নিশ্চিত, তাঁরা সেরা ছবি ও সেরা পরিচালকই বেছে নিয়েছেন। আজ সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে তা জানানো হবে। এবছর ৬৬ তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অনুষ্ঠিত হচ্ছে, এবং দেশের এক অত্যন্ত সম্মানীয় প্রতিষ্ঠান হিসেবে গণ্য হয় এই পুরস্কার।” সেরা বংলা ছবি হিসেবে জাতীয় পুরস্কার পেতে চলেছে সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের ছবি ‘এক যে ছিল রাজা।’ মহান্তি ছবির জন্য সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার পাচ্ছে তামিল অভিনেত্রী কীর্তি সুরেশ। সেরা অভিনেতার পুরস্কার পাচ্ছেন আয়ুস্মান খুরানা ও ভিকি কৌশল। এছাড়া, সেরা হিন্দি ছবি হিসেবে জাতীয় পুরস্কার পাচ্ছে ‘অন্ধা ধুন।’ ‘পদ্মাবত’ ছবির জন্য সেরা সঙ্গীত পরিচালকের পুরস্কার পেলেন সঞ্জয় লীলা বনশালী। ‘ঘুমর’ গানটি সেরা কোরিওগ্রাফির পুরস্কার পাচ্ছে। সামাজিক বিষয়ের উপর ছবি হিসেবে পুরস্কৃত হচ্ছে ‘প্যাডম্যান।’ সেরা ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিকের জন্য পুুরস্কৃত হবে ‘উরি- দ্য সার্জিক্যাল স্ট্রাইক।’  সহ অভিনেত্রী হিসেবে পুরস্কার পাচ্ছেন ‘বাধাই হো’ ছবির জন্য সুরেখা সিক্রি। বিনতে দিল গানের জন্য সেরা প্লে ব্যাক সিঙ্গার ‘বিনতে দিল। ১৯৫৪ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের সূচনা হয়। ভারতের বিভিন্ন ভাষার ইন্ডাস্ট্রির কাছে অত্যন্ত সম্মানীয় এই পুরস্কার। শেখর কাপুর, যিনি ছিলেন গতবছর ফিচার ফিল্ম বিভাগের জুরি প্রধান, এই পুরস্কার প্রসঙ্গে বলেন, “শুধুমাত্র কিছু নির্দিষ্ট চিত্রনির্মাতার কাজের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করাই এই পুরস্কারের কাজ নয়। এগুলি প্রদান করা হয় যাতে দর্শক সত্যি সত্যি গিয়ে দেখতে পারেন ছবিগুলি। স্রেফ চিত্র সমালোচকরা দেখবেন বলে তৈরি হয় নি এসব ছবি।”