বুধবার ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ ৫ই পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

জাতীয় সংসদ নির্বাচন: ঠাকুুুুরগাঁও-২ আসন: নৌকার মনোনয়নে বাবা’র প্রতিদ্বন্দ্বী ছেলে

রবিউল এহসান রিপন, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঠাকুরগাঁও-২ আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম কিনেছেন বাবা-ছেলে ও আওয়ামী লীগের হাফ ডজন নেতাকর্মী।

এরা হলেন বর্তমান এমপি ঠাকুরগাঁও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব দবিরুল ইসলাম এমপি, এমপির বড় ছেলে মাজহারুল ইসলাম সুজন, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোস্তাক আলম টুলু, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রবীর কুমার, প্রয়াত ভাষাসৈনিক, এমএলএ ও ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি দবিরুল ইসলামের সেজো ছেলে আহসান উল্লাহ ফিলিপ, জেলা পরিষদ সদস্য ও উপজেলা পরিষদের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সাবিনা ইয়াসমিন রিপা।

মনোনয়ন ফরম ক্রয় ও জমা দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সকল মনোনয়ন প্রত্যাশীরা।

এদিকে একই আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশা করে বাবা’র বিপক্ষে ছেলে মনোনয়ন ফরম কেনার খবরে ঠাকুরগাঁও-২ আসনের আওয়ামী লীগের দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে।

হরিপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের কয়েকজন পদধারী নেতা জানান, বাবার পক্ষে কাজ করতেই ছেলে মাজহারুল ইসলাম সুজন মনোনয়ন ফরম কিনেছেন। তবে বিষয়টি অনেকে নেগেটিভ ভাবে বিবেচনা করছেন। তবে মনোনয়ন বোর্ড যদি বলে, ছেলে-বাবার বিরুদ্ধে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন। সেই ক্ষেত্রে বর্তমান এমপির জনপ্রিয়তা নিয়েও প্রশ্ন উঠতে পারে বলে ধারণা করছেন তারা।

আরেকটি সূত্র জানান, ঠাকুরগাঁও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দবিরুল ইসলাম ৬ বারের নির্বাচিত এমপি। আর ৬ষ্ঠ বার বিনাভোটে এমপি হয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। এর আগে মনোনয়ন লাভের জন্য এভাবে কাউকে তার বিরুদ্ধে যেতে দেখা যায়নি। এবার তার পরিবারের সদস্যদের বিতর্কিত কিছু কার্যক্রম, রাজনীতিকে পরিবারতন্ত্র করা আর নেতাকর্মীদের অবমূল্যায়ন করার কারণেই মনোনয়ন পেতে বেগ পেতে হবে। এই জন্য ইতোমধ্যে নিজের স্থানীয়ভাবে জনপ্রিয়তা ও সমর্থন রয়েছে বলে উপজেলা, পৌর, ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের নেতা এবং ইউনিয়ন ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মেম্বারদের নিকট থেকে রেজুলেশন করে দলীয় কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে প্রেরণ করা হয়েছে। তারপরও আসন্ন নির্বাচনে ঠাকুরগাঁও-২ আসনটি নৌকা মার্কাকে উপহার দিতে দলের অনেক নেতারা এবার মনোনয়ন প্রত্যাশায় দলীয় ফরম কিনেছেন।

এই আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশাী অ্যাডভোকেট মোস্তাক আলম টুলু বলেন, এ আসনে আমি মনোনয়ন কিনেছি। জননেত্রী শেখ হাসিনা যদি আমাকে এ আসনে মনোনয়ন চূড়ান্ত করে, তাহলে এ আসনে শতভাগ বিজয়ী হব বলে আশা করি। এছাড়া জননেত্রী যদি অন্য কাউকে মনোনয়ণ চূড়ান্ত করে তাহলে আমিসহ আমাদের দলের নেতাকর্মীরা তাকে বিজয়ী করার জন্য কাজ করবে।

অ্যাডভোকেট মোস্তাক আলম টুলু ১৯৮৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডাকসুর সদস্য ছিলেন এবং তৎকালীন এরশাদ বিরোধী গণতান্ত্রিক ছাত্র আন্দোলন বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করে। পরবর্তীতে ২০০৪ সালে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে আওয়ামী লীগের যোগদান করেন। এরপর তিনি ২০০৫ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত ঠাকুরগাঁও জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর ২০১৩ সালে জেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিলের মাধ্যমে গঠিত কমিটিতে সাংগঠনিক সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রবীর কুমার বলেন, ফরম কেনার গণতান্ত্রিক অধিকার সবার আছে। ফরম বিক্রয়ের জন্যই ছেড়ে দল। সেখানে আমিসহ অন্যরা ফরম কিনেছি। মনোনয়ন বোর্ড যাকে যোগ্য মনে করবেন তাকেই মনোনয়ন দিবেন। তখন আমরা সবাই মিলে নৌকার পক্ষে মনোনয়ন প্রাপ্ত ব্যক্তির পক্ষে কাজ করবো।

দলীয় মনোনয়ন ফরম কেনার বিষয়ে এমপি’র ছেলে জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম সুজন বলেন, আমি এবং আমার পরিবার আজীবন আওয়ামী লীগ রাজনীতি করে আসছি। আমি পদে আছি। মনোনয়ন পাওয়ার যোগ্যতা আমার আছে। আর এই আসনে নতুন নেতৃত্বের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেই আমি মনোনয়ন ফরম কিনেছি। দল যাকে মনোনয়ন দেবে, আমি তার পক্ষে তখন কাজ করবো। ইতোপূর্বেও নৌকা পক্ষে কাজ করেছি। এবার যদি মনোনয়ন নাও পাই, যে পাবে তার পক্ষেই কাজ করবো।

তবে এমপি দবিরুল ইসলাম বলেন, বিরোধী কিছু কুচক্রি আমার নাম ভাঙিয়ে এলাকায় অপকর্ম করছে আমার দীর্ঘদিনের সুনাম নষ্ট করার জন্য। আগামী নির্বাচনে এ আসনে আমি প্রার্থী হলে নৌকা প্রতীক আবারও বিপুল ভোটে বিজয়ী হবে। মনোনয়নে পরিবারের অন্য সদ্যদের কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, দলের মধ্যে মনোনয়নের প্রতিযোগিতা থাকতেই পারে।

মনোনয়ন প্রত্যাশী আহসান উল্লাহ ফিলিপ বলেন, এলাকার মানুষের দাবির প্রতি সাড়া দিয়ে ও আমার প্রয়াত বাবার স্বপ্নকে বাস্তবায়নের জন্যই আমি এ আসনে নির্বাচন করতে চাই।মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে মনোনয়ন দিলে এ এলাকার উন্নয়নের জন্য নিবিড়ভাবে কাজ করে যেতে আমি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

আহসান উল্লাহ ফিলিপের বাবা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন ১৯৪৯-১৯৫২ পর্যন্ত এ সময় জাতির জনকের নির্দেশে ছাত্রলীগকে সুসংগঠিত করেন তিনি। পরে ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট সরকার গঠিত হলে দবিরুল ইসলাম এমএলএ নির্বাচিত হন। পরে তিনি শ্রম প্রতিমন্ত্রীও হয়েছিলেন।

রাজনৈতিক পটভূমি:

হরিপুর, বালিয়াডাঙ্গী ও রাণীশংকৈল (আংশিক) উপজেলা নিয়ে ঠাকুরগাঁও-২ আসনের নির্বাচনী এলাকা গঠিত। আসনটিতে ২ লাখ ৭৩ হাজার ৪১৪ জন ভোটার রয়েছে। দীর্ঘ ৩০ বছর যাবত এ আসনটিতে আধিপত্য ধরে রেখেছেন আওয়ামীলীগের এমপি আলহাজ মো. দবিররুল ইসলাম।

কারণ তিনিই একমাত্র প্রার্থী, যিনি কখনো জামায়াত, কখনো জাতীয় পার্টি আবার কখনো বিএনপির হয়ে লড়াই করে পর পর ৬ বার ঠাকুরগাঁও-২ আসনে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন। মূলত এ কারণেই এমপি দবিরুল ইসলামকে এলাকার লোকজন ভোটের জাদুকর হিসাবে চিনে। দীর্ঘদিন যাবত এমপি থাকার দরুন এলাকায় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, তাঁতী লীগ, ছাত্রলীগসহ অন্যান্য সব অঙ্গ সংগঠনকে সুসংগঠিত এবং শক্তিশালী হিসাবে এলাকায় গড়ে তুলেছেন। এর আগে ২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারি নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত দেশব্যাপী ব্যাপক সহিংসতা চালালেও এ আসনে তেমন কিছুই করতে পারেনি। অনেকেই আবার মনে করেন এর একমাত্র কারণ হলো এমপি দবিরুল ইসলামের শক্ত অবস্থান।

ভোটের পরিসংখ্যান:

ঠাকুরগাঁও-২ আসনের আওতায় রয়েছে বালিয়াডাঙ্গী ও হরিপুর উপজেলা এবং রানীশংকৈল উপজেলার ধর্মগড়, কাশিপুরসহ ১৬টি ইউনিয়ন। ১৯৯৬ সালের ফেব্রুয়ারির বিতর্কিত নির্বাচনকে বাদ দিলে ১৯৮৬ সাল থেকে ঠাকুরগাঁও-২ আসনে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে আসছেন মো. দবিরুল ইসলাম। ১৯৮৬ ও ১৯৯১ সালে তিনি বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) থেকে ১৫ দলীয় ঐক্যজোটের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হন। পরে তিনি আওয়ামী লীগে যোগ দেন। কখনও জাতীয় পার্টির সঙ্গে, কখনও বা বিএনপি অথবা জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে নির্বাচনী যুদ্ধে বরাবরই জয়ী এই নেতা সর্বশেষ ২০১৪ সালের নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। প্রতিবারেই তিনি জয়ী হয়েছেন।

আসন্ন নির্বাচনকে ঘিরে বিভিন্ন দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের নানামুখী কর্মকান্ড চলছে। দলগুলো থেকে কে পাবেন মনোনয়ন তার জন্য এখন অপেক্ষার পালা। এ আসনে পুরাতন ইতিহাস মুছে ফেলে ৩০ বছর ধরে দখলে থাকা প্রার্থীকে টপকিয়ে অন্য কেউ মনোয়ন পাবেন কিনা, সেই সঙ্গে জামায়াতে ইসলামী কোণঠাসা হওয়ায় আব্দুল হাকিম প্রার্থী হবেন কিনা এবং তিনি বিএনপির ২ প্রার্থীর সঙ্গে মিলে জোট থেকে একক প্রার্থী দেয়া হবে কিনা এ সব কিছুই এখন দেখার অপেক্ষা।

প্রসঙ্গত, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে বৃহস্পতিবার (৮ নভেম্বর)। তফসিল অনুযায়ী, নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৩ ডিসেম্বর (রোববার)। এ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ১৯ নভেম্বর (সোমবার)। মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের দিন ২২ নভেম্বর (বৃহস্পতিবার)। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৯ নভেম্বর (বৃহস্পতিবার)।