শুক্রবার ১৭ অগাস্ট ২০১৮ ২রা ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

জামাই শ্বশুরের বিরূদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করার প্রতিবাদে সাংবাদিক সম্মেলন

একরামুল হক চঞ্চল॥ ২৪ জানুয়ারী দিনাজপুর প্রেসক্লাব নিমতলায় চিরিরবন্দর উপজেলার আউলিয়াপুকুর ইউনিয়নের গালতৈড় (কাচলডাঙ্গা) গ্রামের মোঃ আজিবর রহমানের মেয়ে মাবিয়া আক্তার ও এনামুল হকের স্ত্রী শাহিদা খাতুন ও বোন নবীজান এক সংবাদ সম্মেলনে জামাই-শ্বশুরের বিরূদ্ধে মিথ্যা ও ষড়যন্ত্রমূলক ধর্ষন মামলা করায় তার প্রতিবাদে ও ন্যায় বিচার দাবী করে সংবাদ সম্মেলনে তারা বলেন প্রতিবেশী আফতাব আলীর স্ত্রী সখিনা খাতুন ১/৮/২০১৭ইং তারিখে দুইজনকে ধর্ষন ও এনামুলের স্ত্রী শাহিদার বিরূদ্ধে মারপিটের মিথ্যা মামলা দায়ের করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালত দিনাজপুর-এ। যার মামলা নং- ৪৯৬/১৭। মামলাটি অতি গোপনে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে করলেও আমরা কোন নোটিশ না পেয়ে হঠাৎ করে গত ৬ ডিসেম্বর গভীর রাতে চিরিরবন্দর থানা পুলিশ তিনজনকে গ্রেফতার করে। এনামুল হকের স্ত্রী ৬ মাসের অন্তঃস্বত্তা হলেও পুলিশ অমানবিকভাবে তাকে টানা হেঁচড়া করে ও প্রায় বিবস্ত্র করে ঘর থেকে বের করে। পুলিশের এহেন অমানবিক আচরণের আমরা তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এনামুল হক বাদিনীর আপন দুলাভাই। এনামুলে প্রথম স্ত্রীর মৃত্যুর পর শাহিদা খাতুনকে দ্বিতীয় বিবাহ করে। বিবাহের পর হতে ২ পরিবারের মধ্যে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে যখন তখন ঝগড়া-ঝাটি হতো। সখিনা খাতুনের মা মোছাঃ মেহেরজান বেওয়া, মেয়ে আজমাতুন, ভাই মকবুল হোসেন মিলে মিথ্যা ধর্ষন মামলা দায়েরের ১৫ দিন পূর্বে এনামুলের বাড়ীতে এসে তার স্ত্রী শাহিদা খাতুনকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। এ ব্যাপারে ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, মেম্বার ও এলাকার মুরব্বীদের কাছে ন্যায় বিচার না পেয়ে হতাশ হয়ে পড়ে এনামুলের পরিবার। হামলাকারীদের মারপিটের ফলে শাহিদা খাতুন গুরুতর আহত হয়ে দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহণ করে। অথচ তারাই উল্টা মিথ্যা ধর্ষন ও মারপিটের মামলা দায়ের করে আমাদেরকে হেনস্তা করছে। মাবিয়া আক্তার আরও উল্লেখ করেন, বিজ্ঞ আদালত চিরিরবন্দর উপজেলার আনসার ও ভিডিপি অফিসার আবু সাঈদের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন চায়। কিন্তু উক্ত দূর্নীতিবাজ অর্থলোভী মিথ্যুক অফিসার প্রকৃত তদন্ত না করে সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট মনগড়া প্রতিবেদন প্রদান করে। আমরা আপনাদের মাধ্যমে পিবিআই বা সিআইডির কাছে নতুন করে তদন্ত দাবী করছি। পিবিআই বা সিআইডি নিরপেক্ষভাবে তদন্ত করলে চক্রান্তকারীদের মুখোশ উম্মোচিত হবে। আমাদের সন্দেহ- আনসার ও ভিডিপির কুলাঙ্গার অফিসার আবু সাঈদ নিজেকে বিক্রি করে মিথ্যা ও বানোয়াট প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করে। আমরা আপনাদের মাধ্যমে আরো জানাতে চাই- মামলার বাদিনী সখিনা খাতুনের অতীত ঘাটলে আপনারা জানতে পারবেন- সে একজন দুশ্চরিত্রা মহিলা হিসেবে এলাকায় পরিচিত। পুরুষ খেকো এই মহিলা এমন কোন খারাপ কাজ নাই, যা তার দ্বারা সম্ভব নয়। সাংবাদিকরা এলাকায় তার ব্যাপারে খোঁজ-খবর নিলে তার সাথে কত পুরুষের সম্পর্ক আছে তা জানতে পারবেন। মামলায় যে ব্যাক্তির কলাবাগান বা ধর্ষন স্থান দেখায় তাদের সঙ্গে আমাদের দীর্ঘদিন ধরে প্রায় ৮/৯টি মামলা ও ঝগড়া চলে আসছে। আমি আরও জানাতে চাই-বাদিনী সখিনা খাতুনের ধর্ষন মামলার স্বাক্ষী তার মা, মেয়ে ও আপন ভাই। আমাদের প্রশ্ন হলো- গ্রামের অন্য কোন লোক ঘটনা দেখল না, জানল না বা শুনলো না। অথচ তারা নিজেরাই মামলার বাদী ও স্বাক্ষী। ধর্ষন মামলা দায়েরের নাটকের গুরু ওই এলাকার প্রভাবশালী, বহু অপকর্মের ইন্ধনদাতা ও মামলাবাজ আবু বকর সিদ্দিকের ইশারায় হয়েছে বলে মনে করি। সাংবাদিক ভাইদের কাছে অনুরোধ প্রকৃত ঘটনা তদন্ত করে আমার নিরপরাধ পিতা ও নানা-নানীকে মুক্ত করার জোর দাবী জানাচ্ছি।