সোমবার ১৮ জুন ২০১৮ ৪ঠা আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

জাস্টিন ট্রুডো খুব অসৎ ও দুর্বল: ট্রাম্প

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো একজন অসৎ ও দুর্বল চরিত্রের। তিনি জি-৭ সম্মেলনে ভুল বক্তব্য দিয়েছেন। অন্যান্য দেশগুলোও যুক্তরাষ্ট্রের ওপর ‘বিপুল পরিমাণ শুল্ক’ চাপিয়ে দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

শনিবার (৯ জুন) এক টুইট বার্তায় ট্রাম্প বলেন, সংবাদ সম্মেলনে জাস্টিনের ভুল বক্তব্যের ভিত্তি করে বলা যায় এবং এটা সত্য যে কানাডা আমাদের মার্কিন কৃষক, শ্রমিক ও প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর বেশি শুল্ক আরোপ করছে। আমাদের প্রতিনিধিদের আমি নির্দেশ দিয়েছি ইশতেহারে সমর্থন না দিতে।

পাল্টা পদক্ষেপ হিসেবে তিনি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রে স্রোতের মতো ঢোকা অটোমোবাইল প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর তার সরকার শুল্ক আরোপের চিন্তা করছে।

এর কিছুক্ষণ আগেই ট্রুডো বলেন, তিনি এ ঘোষণা দিয়ে খুশি যে সাতটি দেশ যৌথ ইশতেহার প্রকাশ করেছে। যুক্তরাষ্ট্র এতে সই করেছে বলে ইঙ্গিত দেন।

জি-৭ সম্মেলনের মাত্র কিছুদিন আগে বন্ধুরাষ্ট্রগুলোর ওপর নতুন করে ইস্পাত আর অ্যালুমিনিয়ামে শুল্ক আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্র। এ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তাদের সম্পর্কে টানাপোড়েন চললেও সম্মেলন শেষে যৌথ প্রজ্ঞাপনে দেশগুলো ‘নিয়মতান্ত্রিক বাণিজ্য ব্যবস্থা’র পক্ষে বিবৃতি দেয়। তখন অবশ্য যুক্তরাষ্ট্রের নাম সেখানে ছিল।

কিন্তু ওই প্রজ্ঞাপন ইস্যু হওয়ার পর সংবাদ সম্মেলনে কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বলেন, ট্রাম্প ঘোষিত শুল্কের জবাবে ১ জুলাই থেকে পাল্টা শুল্ক আরোপ করতে যাচ্ছে তার দেশ।

তিনি বলেন, বিষয়টা খুবই দুঃখজনক। তবে আমি সম্পূর্ণ স্পষ্ট ও দৃঢ়ভাবে জানাতে চাই যে, আমরা ১ জুলাই থেকে পাল্টা ব্যবস্থা নিয়ে এগোবো। কানাডিয়ানরা বিনয়ী এবং যুক্তিবাদী। কিন্তু আমরা কখনোই কারও জোরাজুরি মেনে নেবো না

ট্রুডো সরাসরি বলেন, ইস্পাত ও অ্যালুমিনিয়ামে নতুন করারোপকে যুক্তিযুক্ত করার জন্য ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগের অজুহাত কানাডার জন্য ‘অপমানজনক’।

এরপর ট্রাম্প ঘোষণা দেন, যুক্তরাষ্ট্র তার সিদ্ধান্ত পাল্টে দেবে এবং ইশতেহারে সই করবে না।

পরে কানাডার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে বলা হয়, জাস্টিন ট্রুডো এমন কোনো কথা বলেননি, যা আগে কখনও আলোচনা হয়নি। উন্মুক্ত পরিবেশে ও একান্ত বৈঠকে যে কথা হয়েছে, তাই তিনি সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের সিদ্ধান্তের পর ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) পক্ষ থেকেও বলা হয়, ট্রাম্পকে ছাড়া হলেও তারা যৌথ বিবৃতিতেই একমত।

জি-৭ জোটের সদস্য দেশগুলো হলো কানাডা, ফ্রান্স, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জার্মানি, জাপান ও ইতালি। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কানাডায় জি-৭ সম্মেলনের আউটরিচ কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছেন।