শনিবার ১৭ নভেম্বর ২০১৮ ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

জিন্নাতুন আরা চিকিৎসক হয়ে মানব সেবা করতে চায়

মোঃ আব্দুর রাজ্জাক ॥ ঝড়-বৃষ্টি উপেক্ষা করে কখনো পায়ে হেটে আবার কখনো রিক্সা ভ্যানে ৪কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে স্কুলে যেতে হয়। কখনো স্কুল ফাকি দেওয়া হয়নি। এ ভাবে ৫বছর কেটে যায়। অবশেষে ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের অধীনে এসএসসি পরীক্ষার ফলাফলে আসে সেই কষ্ট জয়ের সাফল্য। শিক্ষাবোর্ডের ফলাফলে ফেল করার হার ছিল লক্ষ্যনীয়। ঘোষিত ফলাফলে পাসের হার কমলেও ১১০০ নম্বরের মধ্যে ১০৩০নম্বর পেয়ে সবাইকে অবাক করে দেয় দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার নিজপাড়া ইউনিয়নের দেবীপুর গ্রামের মোছাঃ জিন্নাতুন আরা জিনাত।

বাবা মোঃ আব্দুল জলিল পেশায় একজন কৃষক এবং মা মোছাঃ নুর আকতার বানু আদর্শ গৃহিনী। এক ছেলে এক মেয়ের সংসারে মোছাঃ জিন্নাতুন আরা জিনাত বড়। ছোট ছেলে বাড়ীর পাশের একটি মাদরাসায় তৃতীয় শ্রেণীতে পড়ে।

ছোট বেলা থেকেই পড়াশুনার প্রতি বেশ আগ্রহ ছিল প্রবল। তার এই প্রবল ইচ্ছা শক্তির কারণে সমাপনি পরীক্ষায় গোল্ডেল এ প্লাস এবং জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষায় গোল্ডেল এ প্লাস পেয়ে পরিবারকে সন্মানিত করেছে।

সদ্য প্রকাশিত এসএসসির ফলাফলে পরীক্ষায় ১১০০ নম্বরের মধ্যে ১০৩০নম্বর পেয়ে তার সাফল্যের খাতায় যোগ হয়েছে নতুন ইতিহাস। উপজেলায় এটি সর্বোচ্চ প্রাপ্ত নম্বর বলে নিশ্চিত করেছে বীরগঞ্জ সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের চলতি দায়িত্ব প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ আহসান হাবীব চৌধুরী।

বাবা মোঃ আব্দুল জলিল জানান, বর্তমানে পড়ালেখায় যেমন বেড়েছে ব্যয় তেমনি বেড়েছে প্রতিযোগীতা। অজোপাড়া গায়ে থেকে প্রতিযোগীতায় টিকে থাকা কঠিন এবং উৎপাদিত কৃষি পন্যের দাম না থাকায় ছেলে মেয়েদের পড়াশুনার ব্যয় বহন করা অনেকাংশে দুসাধ্য বলা যেতে পারে। তবুও এই কঠিন কাজটি করে যাচ্ছি মেয়ের পড়াশুনার আগ্রহের কারণে। সমাপনি পরীক্ষার ফলাফল তার পড়াশুনার ব্যাপারে আমাদের যেমন আগ্রহের সৃষ্টি হয়েছে। তেমনি মেয়ে হলেও তাকে নিয়ে নতুন করে স্বপ্ন  দেখতে শুরু করেছি। পড়ালেখার বিষয়ে শেষ পর্যন্ত আমরা তার পাশে আছি।

একই কথা জানিয়ে তার মা মোছাঃ নুর আকতার বানু জানান, মেয়ে হিসেবে প্রথমে তার পড়ালেখা নিয়ে এ ভাবে ভাবি নি। তার ফলাফল আমাদের ভাবনা বদলে দিয়েছে। এখন তাকে মেয়ে হিসেবে আর ভাবি না। এখন তাকে নিয়ে নতুন করে স্বপ্ন দেখা শুরু করেছি। আমার মেয়ে প্রমাণ করেছি শুধু ছেলেরা নয় এখন মেয়েরাও পারে।

মোছাঃ জিন্নাতুন আরা জিনাত জানান, তার সাফল্যের পিছনে বাবা-মা ছাড়াও শিক্ষকদের ভূমিকা ছিল প্রসংশার দাবীদার। স্কুল থেকে বাড়ী দুরে হওয়ায় খুব বেশী প্রাইভেট অথবা কোচিং করা সম্ভব হয়নি। তবে অতিরিক্ত ক্লাশ নিয়ে এবং পরামর্শ দিয়ে সব সময় সহায়তা করেছেন বিদ্যালয়ের সব শিক্ষক। তাদের কাছে আমি ঋণি। পড়াশুনার পাশাপাশি সুযোগ পেলেই কম্পিউটার শেখার চেষ্টা ছিল খুব।  ভবিষ্যতে চিকিৎসক হয়ে মানুষের সেবা করতে চাই। আমার এই স্বপ্ন পুরণে আমি সকলের কাছে দোয়া কামনা করছি।

বীরগঞ্জ সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের চলতি দায়িত্ব প্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ আহসান হাবীব চৌধুরী জানান, ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের অধীনে এসএসসি পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগে এই বিদ্যালয় হতে পাশ করে মোছাঃ জিন্নাতুন আরা জিনাত। তারপ্রাপ্ত নম্বর ১০৩০। যা এখন পর্যন্ত এই উপজেলায় সর্বোচ্চ নম্বর। পড়ালেখার বিষয়ে মোছাঃ জিন্নাতুন আরা জিনাত বেশ আগ্রহী ছিল। চমৎকার তার হাতের লেখা। লেখাপড়া খুব ভালো হওয়ায় সে স্কুল ফাকি দিতো না। মেয়ে হয়েও কয়েক কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে চেষ্টা করতো প্রতিদিন স্কুলে উপস্থিত থাকার। ক্লাশে মনোযোগী ছিল। শান্ত শিষ্ট স্বভাব হওয়ার কারণে কোলাহল মুক্ত থাকতে দেখা যেত তাকে।