শনিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ ১লা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

জিয়ারুলকে জীবিকার পথ দেখালো আরডিআরএস বাংলাদেশ সংস্থা

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : বেশি বেতন-ভাতার আশায় দালালের খপ্পড়ে পড়ে ভারত হয়ে ভুটানে পাচারের শিকার দিনাজপুরের ফুলবাড়ীর যুবক জিয়ারুল ইসলাম জীবিকার পথ দেখালো বেসরকারি সংস্থা আরডিআরএস বাংলাদেশ সংস্থা।
গত বৃহস্পতিবার (১৩সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় উপজেলার কাজিহাল ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুর দৌলতপুর গ্রামের বাসিন্দা পাচারের শিকার জিয়ারুল ইসলামের বাড়িতে আরডিআরএস বাংলাদেশ সংস্থার বিসিটিআইপি প্রকল্পের আওতায় ক্ষুদ্র ব্যবসার (কাপড় ফেরী করে বিক্রি) জন্য ১৮হাজার টাকা মূল্যের শাড়ি, লুঙ্গি, বোরখা, থ্রিপিচ, থান কাপড়ের একটি বান্ডিল জিয়ারুল ইসলামের তুলে দেওয়া হয়। কাপড়ের বান্ডিল আনুষ্ঠানিকভাবে তুলে দেন কাজিহাল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মানিক রতন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন খয়েরবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু তাহের মন্ডল, আরডিআরএস সংস্থার বিসিটিআইপি প্রকল্পের প্রকল্প কর্মকর্তা মাহমুদ মানিক, শাখা ব্যবস্থাপক করিমুল ইসলাম, কমিউনিটি মোবিলাইজার মোছা. রোজিনা, কাজল, দৈনিক দেশ মা’র স্টাফ রিপোর্টার বকুল বর্মন প্রমূখ।
আরডিআরএস সংস্থার বিসিটিআইপি প্রকল্পের প্রকল্প কর্মকর্তা মাহমুদ মানিক বলেন, বেশি মজুরী ও বেতনের প্রলোভন দেখিয়ে ২০১৬ সালের মার্চ মাসে দালাল চক্র জিয়ারুল ইসলামকে হিলি সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে ভারতে পাচার করে। সেখান থেকে তাকে ভারতের সীমান্ত অতিক্রম করে ভুটানে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে শ্রমদাসত্ব হিসেবে নিয়োজিত করা হয়। পরে বাংলাদেশ ও ভুটানের মধ্যে সরকারিভাবে যোগাযোগের মাধ্যমে একই বছরের ডিসেম্বর মাসে তাকে উদ্ধার করে দেশে ফিরিয়ে আনা হয়। তখন থেকেই জিয়ারুল মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে আরডিআরএস সংস্থার বিসিটিআইপি প্রকল্পের মাধ্যমে পাচারের শিকার ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে একাধিকবার কাউন্সিলিংয়ের মাধ্যমে তাকে স্বাভাবিক জীবন যাপন করার মনোবল ফিরিয়ে আনা হয়েছে। জিয়ারুলকে স্বাভাবিক জীবন যাপন ধরে রাখতে তাকে আয়ের পথ দেখানোর জন্যই সংস্থার পক্ষ থেকে ক্ষুদ্র ব্যবসার জন্য উল্লেখিত অংকের টাকার কাপড়ের মালামাল হস্তান্তর করা হয়েছে।