সোমবার ২২ অক্টোবর ২০১৮ ৭ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

জীবনই কাঙ্খিত, মৃত্যু নয়।

আজ মারা যাবেন গুডঅল।
খবরের কি অদ্ভুত শিরোনাম! ভদ্রলোকের বয়স চলছে একশ পাঁচ। অস্ট্রেলিয়ার মানুষ তিনি।খ্যাতিমান বিজ্ঞানী। বেঁচে আছেন কিন্তু জীবনকে নাকি আর অর্থপুর্ণ মনে হচ্ছেনা তাঁর। যুবকের মত বাঁচতে চেয়েছিলেন। এ বয়সে তেমনটি হচ্ছেনা। সেকারনে নিজেকে পরাধীন মনে হচ্ছে তার। রাষ্ট্রের কাছে স্বেচ্ছামৃত্যু বরণের অধিকার চেয়েছেন। ব্যাপারটাকে তিনি তাঁর অধিকার মনে করছেন কিন্তু রাষ্ট্র সেটা মনে করছেনা। যদিও অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়া অঙ্গরাজ্যে স্ব ইচ্ছায় মৃত্যুবরণের একটি আইন ইতিমধ্যে পাশ হয়েছে কিন্তু সে আইন কার্যকর শুরু হবে দু হাজার ঊনিশের মাঝামাঝি থেকে। তাই সুইজারল্যান্ড যাচ্ছেন তিনি। সেখানে মৃত্যু চেয়ে নেয়ার বিধান রয়েছে। সেখানে তাঁর কাঙ্খিত মৃত্যুটি নিশ্চিত হবে নাকি কোন আইনি জটিলতায় আটকে যাবে-জানা যায় নাই। প্রকাশিত খবর তাঁর শারীরিক অসুস্হতার বিশদ কোন বিবরন ছাপে নাই। তবে যুবকের মত বাঁচতে না পারার হতাশা তিনি নিজেই ব্যক্ত করেছেন।
সুতরাং গুডবাই গুডঅল।

একটা গানের কলি অাছে এরকম, ‘এ জীবন মৃত্যুর চেয়ে বড় যন্ত্রণাময়, আমার মরণ হলেই ভালো হয়।’ মরণ হলে ভালো হয়ত হয় কিন্তু গানের কথায় মৃত্যুর আকাঙ্খাটাও পরিস্কার নয়।
স্বাভাবিক।
স্বেচ্ছামৃত্যু বিষয়ে গবেষণালব্ধ কোন পরিসংখ্যান এ মুহুর্তে আমার হাতে নেই। কল্পনাপ্রসুত কোন গবেষণা আপনাদের সামনে হাজির করে যদি বলি সাধারন স্বেচ্ছা মৃত্যু চাওয়ার হার দশমিকের পরে দশটা শুণ্য বসিয়ে তারপর একটা এক, কেউ হয়ত অবিশ্বাস করবেন না। কারন যত দূর্বিষহই হোক জীবনই কাঙ্খিত, মৃত্যু নয়।

স্বেচ্ছামৃত্যু বরণের সহজ পথ আত্মহত্যা করা। এমন মৃত্যু হরহামেশাই ঘটছে। এই মৃত্যুগুলো শতভাগই আবেগতাড়িত। আত্মহত্যা পুর্ববর্তী জীবন যন্ত্রণা যত অসহনীয়ই হোক এই ধরনের মৃত্যুকে সাধারন স্বেচ্ছামৃত্যু বলা চলেনা। ব্যক্তিগত জীবনের নানাবিধ টানাপোড়েণের মধ্যে দিয়ে চলতে চলতে কারও কারও ভেতরে আত্মহত্যা প্রবণতা দেখা দিতে পারে। কিন্তু নিজেকে হত্যাকরার এই গোপন প্রক্রিয়ায় কোন আগাম ঘোষনা এবং সেটার আইনগত বৈধতা না থাকায় মৃত্যু পরবর্তী সময়ে আত্মহত্যাকারীর স্বজনদের বহুবিধ আইনী জটিলতার মধ্যে দিয়ে যেতে হয়। সুতরাং আত্মহত্যা স্বেচ্ছামৃত্যু হতে পারেনা।

মানুষের মনে বিভিন্ন কারনে ইচ্ছেমৃত্যুর আকাঙ্খা তৈরী হতে পারে। গুডঅল’র ক্ষেত্রে বিষয়টি প্রথমেই বলা হয়েছে। গতবছর ভারতের মুম্বাইয়ে এমন একটি স্বেচ্ছামৃত্যুর আকাঙ্খা খবর হয়ে আসে। আশি উর্ধ্ব বয়েসের নারায়ন-ইরাবতী দম্পতি স্বেচ্ছামৃত্যুর অধিকার চেয়ে রাষ্ট্রপতি বরাবরে এক চিঠিতে লিখেছেন-‘এখন এই সমাজে আমাদের কোন উপযোগীতা নেই এবং আমরা কোন অবদান রাখতে পারছিনা। আপনি যেহেতু সংবিধানবলে মৃত্যুদন্ডাদেশ প্রাপ্ত ব্যক্তির সাজা রহিত করতে পারেন সেকারনে স্ব ইচ্ছায় মৃত্যুকে বরণের আদেশ দিতেও আপনার বাধা থাকার কথা নয়।’ গুডঅল বা নারায়ন-ইরাবতী দম্পতি তাদের মৃত্যু আকাঙ্খার স্বপক্ষে এমন কিছু বলেননি যা দিয়ে মনে হতে পারে তাঁদের যাপিত জীবন অসহনীয় ছিলো। ভিক্টোরিয়া আইন সভায় যখন স্বেচ্ছামৃত্যু আইনটি পাশ হয় তখন সংশ্লিষ্ট আইন প্রণেতাদের সাধারন পর্যবেক্ষনটি ছিলো, ‘সমবেদনা প্রাপ্তির অধিকার প্রতিষ্ঠা করা।’ স্বেচ্ছামৃত্যুর আকাঙ্খাকে তারা অধিকার হিসেবেই দেখেছেন। প্লেটো এবং তৎপরবর্তী দার্শনিক কিংবা মনোবিদেরা কার্যকারণ’র উপর ভিত্তি করে আত্মহত্যাকে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে ভাগ করেছেন। কিন্তু কোনও ক্যাটাগরিকেই তাঁরা নৈতিকতা বা আইনের মানদন্ড দিয়ে সিদ্ধ করেন নাই। আর ঠিক এ যায়গাতে এসেই কোনও কোনও ক্ষেত্রে স্বেচ্ছামৃত্যুর অধিকারটিরও প্রশ্নবিদ্ধ হওয়ার সুযোগ থাকছে। একটি উদাহরণ দেয়া যেতে পারে-
সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গের বালুরঘাটের পার্থ রায় স্হানিয় সরকারী প্রশাসনের কাছে স্বপরিবারে স্বেচ্ছামৃত্যুর অনুমতির জন্য আবেদন করেছেন। থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত দুই শিশু পুত্র এবং অসুস্হ স্ত্রীর চিকিৎসা ব্যয় নির্বাহ করতে করতে বর্তমানে তিনি নি:স্ব। জীবনভর সরকারি সাহায্য প্রাপ্তির অনিশ্চয়তা কিংবা সামাজিক অনুকম্পার উপর নির্ভরতা তার জন্য মানহানিকর বিবেচনা করে তিনি তাঁর এই আবেদনকে অধিকার হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার জন্য অনুরোধ করেছেন। যথারীতি আবেদনটি অগ্রাহ্য হয়েছে। প্রশ্ন আসছে এ মুহুর্তে পার্থ রায়ের করণীয় কি! স্বেচ্ছামৃত্যুর অনুমতি প্রাপ্তি শর্তাধীন। বয়স আঠারো বছরের কম হওয়া চলবেনা, চিকিৎসার সুযোগ নাই এমন নির্দিষ্ট রোগে আক্রান্ত হতে হবে, ছয় থেকে বারো মাসের বেশী বাঁচার ন্যুনতম সম্ভাবনা নাই এরকম অনেকগুলো কারনসিদ্ধ হলেই কেবল কোন ব্যক্তি এই অধিকার পেতে পারেন। কারনগুলো যৌক্তিক এবং নি:সন্দেহে সুবিবেচনাপ্রসুত। পার্থ রায়ের ক্ষেত্রে উপরের কারনগুলির বেশীর ভাগই খাটেনা। তাহলে তার উপর মানবিক আচরণ দেখানোর রাষ্ট্রীয় পদ্ধতিটি কি হতে পারে!

বড্ড ঝামেলায় ফেললেন গুডঅল!
কারণ জীবনই কাঙ্খিত, মৃত্যু নয়।

 

লেখক-সুভাষ দাশ।

কলামিষ্ট ও রাজনীতিবিদ

বীরগঞ্জ, দিনাজপুর