মঙ্গলবার ২৩ অক্টোবর ২০১৮ ৮ই কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

জেলা ব্রান্ড বুক ‘সৃজনশীল গাইবান্ধা’ এর প্রকাশনা অনুষ্ঠান

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : গাইবান্ধা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা ব্রান্ড বুক ‘সৃজনশীল গাইবান্ধা’র প্রকাশনার মোড়ক উন্মোচন উপলক্ষে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। রবিবার বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন জাতীয় সংসদের হুইপ মাহাবুব আরা বেগম গিনি। জেলা প্রশাসক গৌতম চন্দ্র পালের সভাপতিত্বে প্রকাশনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মিজানুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল্যাহ আল ফারুক, সিভিল সার্জন ডাঃ আব্দুস শাকুর প্রমুখ। অনুষ্ঠানে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের সকল বিভাগীয় কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক, সাংবাদিক, সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দসহ সর্বস্তরের মানুষ অংশ গ্রহণ করেন।
উল্লেখ্য, ১৬৮ পৃষ্ঠার এই সৃজনশীল গাইবান্ধা নামের প্রকাশনাটিতে গাইবান্ধা জেলার ৭টি উপজেলার নানা ঐতিহাসিক নির্দশন, অতীত, স্মৃতিবিজড়িত স্থানের ছবিসহ বিস্তারিত বিবরণ, আদিবাসী সাঁওতাল, ওঁরাও সহ অন্যান্য জনগোষ্ঠীর উৎসব জীবণাচরণ, চরাঞ্চলের কৃষিসহ জীবিকা, বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের ছবিসহ বিবরণ ছাপানো হয়েছে। এছাড়া গাইবান্ধা জেলার নামকরণ ও ইতিহাস ঐতিহ্যের ছবিসহ তথ্য সমৃদ্ধ বিবরণ এতে স্থান পেয়েছে।
তদুপরি জেলার ভৌগলিক অবস্থান আয়তন ও ভূ-প্রকৃতি, ভূ-তাত্তি¡ক বৈশিষ্ট্য এবং জেলার মানচিত্র এতে সন্নিবেশিত হয়েছে। বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মূখ্য সচিব মোঃ নজিবুর রহমান, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব ফয়েজ আহম্মদ, প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মহা-পরিচালক (প্রশাসন) কবির বিন আনোয়ার, রংপুর বিভাগীয় কমিশনার কাজী হাসান আহমেদ এর বাণীও এতে সংযোজন করা হয়েছে।
জেলা প্রশাসনের প্রকাশনা জেলা ব্রান্ডিং এর সংকলনটি উন্নত কাগজে কাগজে ছাপানো এবং মজবুদ বোর্ড বাঁধাইয়ে তা প্রকাশ করা হয়েছে। মূল্যবান এই প্রকাশনাটি জেলা প্রশাসক গৌতম চন্দ্র পালের পৃষ্টপোষকতায় প্রকাশিত হয়। এটি সম্পাদনা করেছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। এতে লেখা ও তথ্য উপাত্ত দিয়ে সহযোগিতা করেছেন আবু জাফর সাবু, জহুরুল কাইয়ুম, গৌতম চন্দ্র মোদক এবং ছবি সরবরাহ করেছেন বিশিষ্ট ফটো সাংবাদিক কুদ্দুস আলম।
প্রসঙ্গত উলে¬খ্য যে, গাইবান্ধা জেলার উদ্ভাবনী উদ্যোগ বা পণ্যকে চিহ্নিত করে বিশেষায়িত করার লক্ষ্যে গাইবান্ধায় ব্র্যান্ডিং কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। জেলা ব্রান্ডিংয়ের অন্যতম পণ্য হিসেবে ঐতিহ্যবাহি মিষ্টান্ন রসমঞ্জুরীকে নির্ধারণ করা হয়। এছাড়া অপর সম্ভাবনাময় এবং লাভজনক কৃষি পণ্য ভুট্টা ও চরাঞ্চলের অন্যতম লাভজনক কৃষি পণ্য মরিচকেও অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে। এজন্য একটি সুদৃশ্য এবং দৃষ্টিনন্দন ব্রান্ডিং লোগোও নির্ধারিত হয়। যাতে একটি ছন্দময় শ্লোগানও অন্তর্ভূক্ত রয়েছে। গাইবান্ধার ব্রান্ডিং শ্লোগানটি হচ্ছে- ‘স্বাদে ভরা রসমঞ্জুরীর ঘ্রাণ চরাঞ্চলের ভুট্টা-মরিচ গাইবান্ধার প্রাণ’।